সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১২ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগে মামলা করলেন প্রেমিক!

২:৩৮ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, ফেব্রুয়ারি ১২, ২০১৯ বিনোদন

বিনোদন ডেস্ক :: ভারতের কলকাতায় এ যেন উল্টোচিত্র। এবার মহিলার বিরুদ্ধে উঠল ধর্ষণের অভিযোগ। অভিনেত্রীর বিরুদ্ধে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগ আনলেন তাঁর প্রেমিক। আলিপুর আদালতে মামলা দায়ের করা হয়েছে। অভিনেত্রীর উপযুক্ত শাস্তির আবেদন জানিয়েছেন বহুজাতিক সংস্থার কর্মী অভিষেক তালুকদার।

যা দেখতে অভ্যস্ত চোখ, এবার একেবারে তার উল্টো ছবি। বান্ধবীর বিরুদ্ধে বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে সহবাসের অভিযোগ এনেছেন বহুজাতিক সংস্থার কর্মী অভিষেক তালুকদার। তাঁর দাবি, ২০১৬ সালের মে মাসে বিবাহিত অভিনেত্রীর সঙ্গে তাঁর পরিচয় হয়। পরিচয় থেকে ঘনিষ্ঠতা। তাঁরা দু’জনেই বিবাহ বিচ্ছেদ করে নতুন জীবন শুরুর সিদ্ধান্ত নেন। অভিষেকের অভিযোগ,
বান্ধবীর প্রতিশ্রুতিতে ডিভোর্স নেন অভিষেক, সন্তানের অজুহাত দেখিয়ে নিজে ডিভোর্স নেননি বান্ধবী। এক বছরের মধ্যে দু’জনের সম্পর্কে চিড় ধরে

১৯ অক্টোবর, ২০১৮, বিজয়া দশমীর দিন স্বামীর সঙ্গে লখনউ যান বান্ধবী। অভিষেকও পৌঁছন সেখানে। বান্ধবী ও তাঁর স্বামীর সঙ্গে বচসায় জড়িয়ে এক ঘণ্টার মধ্যেই লখনউ ছাড়েন। এর চার সপ্তাহ পরই নেতাজিনগর থানায় অভিষেকের বিরুদ্ধে জামিনযোগ্য ধারায় চারটি মামলা করেন বান্ধবী।

১৩ নভেম্বর,২০১৮,জামিন পান অভিষেক। সম্পর্ক শেষ হয়ে যায়। অভিষেকের দাবি, বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়েও প্রতিশ্রুতি রাখেননি বান্ধবী। তাঁর বিরুদ্ধে আলিপুর আদালতে পাল্টা চারটি ধারায় মামলা করেন অভিষেক। ৪২০ ধারায় প্রতারণা , ৪০৬ ধারায় বিশ্বাসভঙ্গ , ৪১৭ ধারায় চিটিং ও ১২০বি ধারায় ষড়যন্ত্রের অভিযোগ আনেন তিনি।

অভিষেকের স্ত্রীকে ডিভোর্স দিতে বাধ্য করেছিলেন অভিযুক্ত এমনটাই অভিযোগ। তিনি প্রতিশ্রুতি দেন, নিজেও তাঁর স্বামীকে ডিভোর্স দিয়ে আব বিয়ে করবেন। এনিয়ে আবেদনকারীকে ব্ল্যাকমেল করেন। আবেদনকারী তাঁর স্ত্রীকে ডিভোর্স না দিলে তিনি আত্মহত্যা করবেন বলে হুমকি দেন অভিযুক্ত। বিয়ের প্রতিশ্রুতি দিয়ে আবেদনকারীর সঙ্গে নিয়মিত সহবাসও করতেন তিনি। অভিযুক্তের প্রবল চাপেই আবেদনকারী তাঁর স্ত্রী নন্দিনী সান্যালকে ডিভোর্স দেন।

বিষয়টি মানতে পারছেন না অভিযুক্তের পরিবার। অভিযুক্তের বাবা জানিয়েছেন, আমরা মানসিকভাবে ডিসটার্বড আছি..আমি ভাবতেও পারিনি যে এরকম কথা বলতে পারে……অসম্ভব ৷’’

দেড় মাস অফিসে যাননি। চাকরি যায়-যায়। চারটি শর্ট ফিল্ম ও একটি সিনেমা তৈরি করেছেন অভিষেক। তাঁর দাবি, বিনোদনের সেই জগতে আর ফিরতে পারছেন না। এই অবস্থায় বান্ধবীর শাস্তি চেয়ে আদালতের দারস্থ অভিষেক।