ওসির ওপর ক্ষুদ্ধ হয়ে গেল জেলেরা!

১২:১০ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, ফেব্রুয়ারি ১৩, ২০১৯ বরিশাল
oc charfashion

সময়ের কণ্ঠস্বর, ষ্টাফ করেসপন্ডেন্ট :: ভোলার চরফ্যাসনের দক্ষিণ আইচা থানার ওসিকে অবরুদ্ধ করেছে ক্ষুদ্ধ জেলেরা। এ ঘটনা জানাজানি হলে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের সহায়তায় ওই ওসিকে উদ্ধার করা হয়েছে।

মঙ্গলবার বিকাল সাড়ে ৪টার দিকে চর কুকরিমুকরী ইউনিয়নের বিচ্ছিন্ন দ্বীপ চর পাতিলা গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

জানা গেছে, দক্ষিণ আইচা থানার ওসি মাসুম তালুকদার চর পাতিলায় অবৈধ জাল উদ্ধার পরিচালনায় গিয়ে জেলেদের ঘরে ঘরে অভিযান চালান। এবং বিপুল পরিমাণ জাল উদ্ধার করে ওই গ্রামের একটি নির্দিষ্ট স্থানে স্তুপ করে রাখেন। এক পর্যায়ে স্তুপকৃত জালে আগুন ধরিয়ে সেগুলো পুড়িয়ে দেয়া হয়। এ ঘটনায় ক্ষুদ্ধ জেলেরা ওসি ও তার সঙ্গিয় ফোর্সদের বিরুদ্ধে ক্ষোভ প্রকাশ করে অবরুদ্ধ করে রাখার চেষ্টা করে।

তাৎক্ষনিক বিষয়টি স্থানীয় ইউপি চেয়ারম্যানসহ প্রশাসন অবহিত হলে চরফ্যাসনের সর্বমহলে চাঞ্চল্য সৃষ্টি হয়।

তবে জেলেদের অভিযোগ, চাঁদার টাকা চেয়ে সমঝোতার কথা বললে জেলেরা রাজি না হওয়ায় তাদের জাল পুড়িয়ে দেয়া হয়েছে। পরে তারা ক্ষুদ্ধ প্রতিক্রিয়া দেখান। এ পর্যায়ে গন্ডগোলের পরিস্থিতি তৈরী হলে চর পাতিলা ইউপি সদস্য মোঃ বাদশা ও সাবেক ইউপি সদস্য আবুল কাশেম ওসি ও তার সঙ্গীয় ফোর্সকে অক্ষত অবস্থায় সেখান থেকে সরিয়ে নেয়।

চরফ্যাসন সিনিয়র মৎস্য কর্মকর্তা মারুফ হোসেন মিনার বলেন, জেলেদের অবৈধ জাল উদ্ধার, পোড়ানো ক্ষেত্রে অভিযান পরিচালনা করতে ভ্রাম্যমান ম্যাজিষ্ট্রেট ও মৎস্য বিভাগের জনবল নিয়ে অভিযান চালানোর নিয়ম। এ ধরনের অভিযানের বিষয়টি আমার জানা নেই।

এ ব্যাপারে দক্ষিণ আইচা থানার ওসি মাসুম তালুকদার মুঠোফোনে জানান, বৈধভাবে জেলেদের জাল পোড়াতে গেলে জেলেরা ক্ষুদ্ধ হয়ে ওঠে। এ পর্যায়ে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিরা সেখানে গিয়ে তাদের শান্ত করে। এ ঘটনায় আইনী পদক্ষেপ নেয়া হচ্ছে বলে জানান ওসি মাসুম।

প্রসঙ্গত, এর আগে দক্ষিণ আইচা থানার এক ওসি অনিয়ম করায় তাকে ক্লোজ করা হয়। ওই ওসির নাম হাবিবুর রহমান। ২০১৮ সালের ৯ আগষ্ট তাকে ক্লোজ করে ভোলা পুলিশ লাইনে সংযুক্ত করা হয়। দক্ষিণ আইচা থানার ওসি হাবিবুর রহমান ঘুষ-দূর্নীতিসহ নানা অনিয়মের কারণে এলাকায় বিতর্কিত হন।