হোটেল ছেড়ে মেসে উঠলেন আইজিপি!

৬:০০ অপরাহ্ণ | রবিবার, ফেব্রুয়ারি ১৭, ২০১৯ আলোচিত

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- দেশব্যাপী চলা মাদকবিরোধী অভিযান থেকে প্রাণ বাঁচাতে প্রথমবারের মতো মাদক কারবারীদের একটি অংশ সরকারের কাছে আত্মসমর্পণ করেছে।

শনিবার (১৬ ফেব্রুয়ারি) সকালে কক্সবাজারের টেকনাফ পাইলট উচ্চ বিদ্যালয় মাঠে স্বরাষ্ট্রমন্ত্রী আসাদুজ্জামান খাঁন কামালের কাছে আত্মসমর্পণ করেন ১০২ ইয়াবা কারবারি।

এর আগে ইয়াবা ব্যবসায়ীদের আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠান তদারকি করতে গত বৃহস্পতিবার (১৪ ফেব্রুয়ারি) কক্সবাজারে যান পুলিশের মহাপরিদর্শক (আইজিপি) মোহাম্মদ জাবেদ পাটোয়ারী।

সেখানে তার জন্য উন্নত মানের হোটেলে থাকার ব্যবস্থা থাকলেও তিনি উঠেছেন একেবারেই সাধারণ একটি গেস্ট হাউজে। খেলেন স্থানীয় সাধারণ খাবারই। পুলিশ বাহিনী প্রধানের এমন এমন সাধারণ জীবন-যাপন নিয়ে আলোচনা হচ্ছে সর্বত্র। একে অনুকরণীয় বলছেনই অনেকেই।

জানা গেছে, শনিবার টেকনাফ সীমান্তের ইয়াবা কারবারিদের আত্মসমর্পণ অনুষ্ঠানের তদারকি করতেই পুলিশের আইজিপি বৃহস্পতিবার কক্সবাজার এসে পৌঁছান। কক্সবাজার সাগর পাড়ে রয়েছে কমপক্ষে আধা ডজন তারকা মানের হোটেল। রয়েছে অনেক উন্নত মানের সরকারি-বেসরকারি সার্কিট হাউজ থেকে শুরু করে গেস্ট হাউজও। আইজিপি’র জন্য তারকা মানের হোটেলে অবস্থানের ব্যবস্থা থাকলেও তিনি এসব সুযোগ-সুবিধা না নিয়ে সাধারণ মানের গেস্ট হাউজে অবস্থান করেন।

কক্সবাজার জেলা গোয়েন্দা পুলিশের (ডিবি) পরিদর্শক কামরুল আজম বলেন, আমি পুলিশের একজন ছোট কর্মকর্তা হিসেবে অবাক হচ্ছি পুলিশ বাহিনীর একজন প্রধান হয়েও আইজিপি স্যার সাগর পাড়ের আধুনিক সুযোগ সুবিধার হোটেলে থাকেননি। তিনি থেকেছেন পুলিশ ম্যাচের একটি অতি সাধারণ মানের কক্ষে।

পরিদর্শক কামরুল আজম আইজিপি’র অবস্থানের জন্য পুলিশ ম্যাচটির দেখভাল করার দায়িত্ব পালন করছিলেন। তিনি বলেন, কক্সবাজার দেশের প্রধান পর্যটন কেন্দ্র হবার সুবাধে এখানে সরকারি-বেসরকারি লোকজন আসেন প্রতিনিয়ত। অনেকেরই থাকে বিলাসী চাহিদা। কিন্তু এক্ষেত্রে পুলিশের মহাপরিদর্শকের সাধারণ্যে অবস্থান যেন অন্যরকমের।

কক্সবাজার জেলা পুলিশের পরিদর্শক মানস বড়ুয়া এ বিষয়ে বলেন, আমাদের দেশে পুলিশই যেহেতু নানা কাজে জড়িত থাকে সেহেতু পুলিশ নিয়েই সবচেয়ে বেশী আলোচনা-সমালোচনা হয়ে থাকে। আর এমন একটি গুরুত্বপূর্ণ বাহিনীর প্রধান হিসাবে আইজিপি মহোদয়ের এরকম সাধারণ মানের জীবন-যাপন দেশব্যাপী নিশ্চয়ই গোটা পুলিশ বাহিনীরই ভাবমূর্তি উজ্জল করবে।

অতিরিক্ত পুলিশ সুপার জানান, পুলিশ ম্যাচের যে কক্ষে আইজিপি অবস্থান করেছেন সেটির ভাড়া মাত্র ৫০০ টাকা। অথচ সাগর পাড়ের একটি তারকামানের হোটেলের প্রতিটি কক্ষের ভাড়া ক্ষেত্র বিশেষে ১০/১৫ হাজার টাকা।