সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

কর্ণফুলীতে গ্যাস লাইনে স্পট ওয়েল্ডিং: মারা গেছে পুকুরের মাছ ও সহস্রাধিক ফার্ম মুরগী

৫:২৮ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, মার্চ ১৪, ২০১৯ চট্টগ্রাম

জে. জাহেদ, চট্টগ্রাম ব্যুরো: কর্ণফুলী উপজেলায় গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানি কতৃক নিয়োজিত জিটিসিএল প্রতিষ্ঠান তাদের গ্যাস লাইনের পাইপে এক্সার স্পট ওয়েল্ডিং করার সময় নির্গত রাসায়নিক কেমিক্যালের কারণে দুটি পুকুরের মাছ ও সোহেল পোল্ট্রি ফার্মের সহস্রাধিক মুরগী মারা গেছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে।

গত মঙ্গলবার মাঝরাতে উপজেলার বড়উঠান ইউনিয়নের দক্ষিণ শাহমীরপুর ৭নং ওয়ার্ড এলাকায় এ ঘটনা ঘটে। গ্যাস ওয়েল্ডিং এর কয়েকদিন পর একই সাথে দুটি পুকুরের মাছ ও মুরগি মারা যাওয়ায় বিষয়টি এলাকাবাসীর নজরে আসে এবং সঙ্গতকারণে জানাজানি হতে একটু দেরি হয়।

স্পট ওয়েল্ডিং হল চাপ এবং বিদ্যুৎপ্রবাহ প্রয়োগের দ্বারা ছোট বিন্দুতে মেটাল টুকরা ওভারল্যাপিং ঝালাই করার প্রক্রিয়া। যা অত্যন্ত সর্তকভাবে সম্পাদন করা জরুরী।

গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেড (জিটিসিএল) মূলত পেট্রোবাংলার একটি কোম্পানি। যারা কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির সাব ঠিকাদার হিসেবে কর্ণফুলীতে কাজ করছে বলে জানান মোরশেদ নামে তাদের এক অফিস কর্মকর্তা।

মসজিদ পরিচালনা কমিটির সভাপতি শাহমীরপুর এলাকার ক্ষতিগ্রস্ত জয়নাল আবেদীনের থানায় করা অভিযোগ সুত্রে জানা যায়, গত ৫র্মাচ মঙ্গলবার গভীর রাত সাড়ে ১২টায় গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেড (জিটিসিএল) এর কর্মচারীগণ তাদের দারেগারহাট ওয়াজেদিয়া জামে মসজিদের পুকুরের পাশ দিয়ে গ্যাস লাইনে পাইপের এক্সরে স্পট ওয়েল্ডিং করতে গিয়ে পুকুরে বিষাক্ত রাসায়নিক কেমিক্যাল গড়িয়ে যায়। এবং পুকুরের থাকা সব মাছ মরে ভেসে ওঠে।

তিনি প্রকৌশলী কেশব’কে অভিযুক্ত করে তাতে আরো জানান, গ্যাস ট্রান্সমিশন কোম্পানি লিমিটেড (জিটিসিএল) এর প্রকৌশলী ক্ষতিপুরণের আশ্বাস দিয়েও পরবর্তী সময়ে কোন যোগাযোগ না করায় থানায় তিনি লিখিত অভিযোগ করেন। এতে ক্ষয়ক্ষতির পরিমাণ দুই লক্ষ টাকা বলে উল্লেখ করেছেন।

৮মার্চ করা তার অভিযোগটির তদন্ত কর্মকর্তা শাহমীরপুর পুলিশ ফাঁড়ি ইনচার্জ সুজন বড়–য়া জানান, ‘ঘটনাটি সত্য পুকুরের অনেক মাছ ও মুরগি মারা গেছে। গ্যাস পাইপ লাইনের কাজ করা কোম্পানীটি আমাদের দু’দিন সময়ের কথা জানিয়েছেন এবং তারা ক্ষতিগ্রস্তদের ক্ষতিপুরণ দিতে রাজি হয়েছেন।’

অপরদিকে পুকুরের একটু অদূরে সোহেল ফার্মের মালিক সোহেল জানায়, অনেক টাকা ঋণ নিয়ে তিনি মুরগির খামারের ঘরটি তৈরি করেছিলেন। কিন্তু বেশ কিছুদিন যাবত রাতে গ্যাস লাইনে পাইপের এক্সরে ওয়েল্ডিং করায় বিষাক্ত রাসায়নিক গ্যাসের কারণে এক কেজি ও দেড় কেজি ওজনের তার খামারের ১৫৫০টি মুরগি মারা যায় এবং তিনি আর্থিকভাবে চরম ক্ষতিগ্রস্ত হন।

কর্ণফুলী উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা সৈয়দ শামসুল তাবরীজ জানান, ‘লিখিত ও মৌখিকভাবে তিনি কোন অভিযোগ পাননি। তবে তিনি বিষয়টি খতিয়ে দেখছেন বলে আমাদের জানান।’

এ বিষয়ে কর্ণফুলী উপজেলা পরিষদের প্রতিষ্টাতা চেয়ারম্যান ও উপজেলা আওয়ামী লীগের সভাপতি আলহাজ্ব ফারুক চৌধুরী বলেন, গ্যাস পাইপ লাইনের স্পট ওয়েল্ডিং কাজ করতে গিয়ে মসজিদের পুকুরের মাছ এবং ফার্মের মুরগী সব মারা গেছে বলে খবর পেয়েছি। সাবধানতা অবলম্বন না করায় এমনটি ঘটেছে বলে জানান তিনি।

প্রসঙ্গত, গ্যাস ওয়েল্ডিং প্রধানত ৪ প্রকার যথাক্রমে: অক্সি-অ্যাসিটিলিন গ্যাস ওয়েল্ডিং, এয়ার এসিটিলিন গ্যাস ওয়েল্ডিং, প্রেসার গ্যাস ওয়েল্ডি।

গ্যাস ওয়েল্ডিং করার সময় গ্যাস পুর্ন অক্সিজেন সিলিন্ডার, গ্যাসপূর্ণ অ্যাসিটিলিন সিলিন্ডার, অক্সিজেন গ্যাস রেগুলেটর, অ্যাসিটিলিন গ্যাস রেগুলেটর, হোজ পাইপ, ওয়েল্ডিং টর্চ, রেঞ্চ/ সিলিন্ডার, স্পার্ক লাইটার, অয়্যার ব্রাস, সাবান পানি, গগলস, ফ্লাক্স, ব্লো পাইপ, নজল ইত্যাদি সরঞ্জামাদি রাখার নিয়ম থাকলেও রাতের আধারে ঝুঁকিপূর্ণ ভাবে এসব ওয়েল্ডিং কাজ করায় এমন ঘটনা ঘটছে বলে স্থানীয়রা অভিযোগ করেছেন।

পাশাপাশি এসব স্পট এক্সরে ওয়েল্ডিং এর কারণে পার্শ্ববর্তী দুএক কিলোমিটারে বসবাস করা গর্ভবতী মহিলা ও শিশু সহ মানুষের শারীরিক সক্ষমতা বিনষ্ট হওয়ারও সম্ভাবনা রয়েছে বলে কর্ণফুলী গ্যাস ডিষ্ট্রিভিউশান কোম্পানীর অপর এক কর্মকর্তা জানান।

কর্ণফুলী গ্যাস ডিস্ট্রিবিউশন কোম্পানির দায়িত্বেথাকা মোহাম্মদ মোরশেদ জানান, শাহমীরপুরের ঘটনার জন্য আমরা দুঃখিত। ক্ষতিগ্রস্তদের সোমবারে অফিসে ডাকা হয়েছে আশাকরি একটি সুষ্ঠু সমাধান হবে।