সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৬ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নতুন পরিকল্পনায় ঢেলে সাজানো হচ্ছে টেস্ট ক্রিকেটকে

৫:১৯ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, মার্চ ১৪, ২০১৯ খেলা

স্পোর্টস্ আপডেট ডেস্ক :: এক বিশ্ব, এক বল।বিশ্বকাপের পরই চলতি বছরে শুরু হচ্ছে আইসিসি টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপ৷ এই মঞ্চ থেকেই একই ধরনের বলে বিশ্বজুড়ে টেস্ট ক্রিকেট খেলার প্রস্তাব তুলে দিল এমসিসি’র ক্রিকেট কমিটি৷

বর্তমানে বিভিন্ন দেশে বিভিন্ন বলে টেস্ট ক্রিকেট খেলা হয়৷ ইংল্যান্ড-ওয়েস্ট ইন্ডিজের মতো দেশগুলিতে ডিউক বলে টেস্ট খেলা হয়, তেমনি ভারতে এস জি ও অস্ট্রেলিয়া-দক্ষিণ আফ্রিকায় কোকাবুরা বলে টেস্ট ম্যাচ খেলার প্রচলন৷ টেস্ট ক্রিকেটের আকর্ষণ ফেরাতে ভিন্ন দেশে ভিন্ন বলে খেলার এই রীতি পরিবর্তন করতে চায় এমসিসি’র ক্রিকেট কমিটি৷ অতীতে কোহলি-অশ্বিনরা অবশ্য বিশ্বজুড়ে ডিউক বলেই টেস্ট খেলার দাবি তুলেছিলেন৷ এমসিসি’র ক্রিকেট কমিটিও ডিউক বলেই বিশ্বজুড়ে টেস্ট খেলাকে অগ্রাধিকার দিচ্ছেন৷

এমসিসি’র ক্রিকেট কমিটির বিবৃতিতে জানানো হয়েছে, পরিবেশে ভেদে বিশেষ বলের কারণে বোলাররা বিশেষ সুবিধা তৈরি করতে পারে৷ স্যান্ডার্ড বলে টেস্ট হলে বিশ্বের সর্বত্র বোলাররা একই সুবিধে পাবেন৷ টেস্ট ক্রিকেটকে আরও উত্তেজক করতেই এই প্রস্তাব৷

চলতি মাসে বেঙ্গালুরুতে এমসিসি ক্রিকেট কমিটির বৈঠকে এ ব্যাপারে আলোচনা হয়৷ কিংবদন্তি সৌরভ গাঙুলি-কুমার সাঙ্গাকারা, মাইক গ্যাটিংদের কমিটির প্রস্তাবিত সিদ্ধান্তগুলি নিয়ে মে মাসের বৈঠকে আলোচনা করবে আইসিসি৷ ক্রিকেটের সর্বোচ্চ নিয়ামক সংস্থা শিলমোহর দিলে টেস্ট চ্যাম্পিয়নশিপের আসর থেকেই স্যান্ডার্ড বলে টেস্ট ক্রিকেট শুরু হতে পারে৷

এখানেই শেষ নয় টেস্ট ক্রিকেটকে আরও আকর্ষণীয় করতে বেশ কিছু গুরুত্বপূর্ণ ভাবনা প্রস্তাব করছে সৌরভদের কমিটি৷ সীমিত ওভারের ক্রিকেটের মতোই এবার টেস্টেও শুরু হতে পারে নো বলে ফ্রি-হিট৷ পরিসংখ্যান বলছে সাদা বলের ফরম্যাটে ফ্রি-হিট চালু হওয়ার পর থেকে নো বল করার প্রবণতা অনেক কমেছে৷ উদারণ স্বরূপ বলা হয়েছে, সম্প্রতি ইংল্যান্ড ৪৫টি ওয়ান ডে ম্যাচে কোনও নো বল করেনি৷ এমনকি সম্প্রতি ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে তিন টেস্টের সিরিজেও মাত্র ১১টি নো বল করেছে ইংলিশ বোলাররা৷ নো বলে ফ্রি হিট থিওরি শুধু দর্শকদের উন্মাদনা বাড়ায় না৷ এতে ওভার সংখ্যাও বেড়ে যায়৷

সেই সঙ্গে টেস্টে ওভার রেট বাড়ানোর জন্য ব্যবহার হতে পারে টাইমার৷ ম্যাচের টান টান উত্তেজনা ধরে রাখতে বিড়তির সময়, বোলার পরিবর্তনগুলি আরও দ্রুত করার মাধ্যমে ওভাররেট বাড়ানোর প্রস্তাব এমসিসি’র।