মাটি কাটাকে কেন্দ্র করে দুই পক্ষের সংঘর্ষে আহত ২০

বরগুনা প্রতিনিধি: জমি নিয়ে বিরোধকে কেন্দ্র করে বরগুনার তালতলীর কড়ইবাড়িয়া বাজারে দুই পক্ষের সংঘর্ষে ২০ জন আহত হয়েছেন। আহতদের পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ ও বরগুনা জেনারেল হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে। ঘটনা ঘটেছে বৃহস্পতিবার দুপুরে। এ ঘটনায় মালেক ও শাহ আলী নামের দুই জনকে আটক করেছে পুলিশ।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা যায়, উপজেলার কড়াইবাড়িয়া বাজারে ২ একর ৪ শতাংশ জমি নিয়ে হাবিব তালুকদার, আবুল বাশার বাদশা তালুকদার ও সেলিম মোল্লা, নুরুল ইসলাম ফকিরের সাথে দীর্ঘ দিন ধরে বিরোধ চলে আসছিল। ওই জমিতে হাবিব তালুকদার, আবুল বাশার বাদশা তালুকদার ও তার সহযোগীরা মাটি কাটতে গেলে সেলিম মোল্লা, নুরুল ইসলাম ফকির ও তার সহযোগীরা বাঁধা দেয়। এ নিয়ে শহিদুল তালুকদার বৃহস্পতিবার সকালে তালতলী থানায় লিখিত অভিযোগ দেয়।

তালতলী থানার এএসআই জাকির হোসেন ঘটনা স্থানে এসে বিরোধী জমি পরিদর্শন করেন এবং দু’পক্ষের লোকজনকে তাদের কাগজপত্র নিয়ে থানায় যাওয়ার নির্দেশ দেয়। পুলিশ ঘটনা স্থান ত্যাগ করার পরপরই কড়ইবাড়িয়া বাজারের সেলিম মোল্লার লোকজন হাবিব তালুকদারের লোকজনের ওপর লাঠিসোটা রডসহ দেশীয় অস্ত্র নিয়ে হামলা চালায়।

এ সময় দু’পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়ে। ঘটনাব্যাপি দু’পক্ষের মধ্যে ধাওয়া পাল্টা ধাওয়ার ঘটনা ঘটে। এ সময় কড়াইবাড়িয়া বাজারে আতঙ্ক ছড়িয়ে পড়ে। এবং মুহুর্তের মধ্যে সকল দোকান পাট বন্ধ হয়ে যায়। খবর পেয়ে পুলিশ ঘটনাস্থলে এসে পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রনে আনে।

দু’পক্ষের সংঘর্ষে ২০ জন আহত হয়েছে। গুরুতর আহত সেলিম ফকির (৪০), মানিক ফকির (৫০), মোশাররেফ তালুকদার (৪০), নুর ইসলাম (৪৫) আবুল বাশার বাদশা তালুকদার (৫০) হাবিব তালুকদার (৫০), সেলিম মোল্লা (৪০), সফের ফকির (৬০), জলিল ফকির (৪০), আফজাল ফকির (৪৫), রবিউল ফকির (২৭), সুমন ফকির (২৪), মামুন তালুকদার (২২) ও খুকু মনিসহ (৩০) ২০ জন গুরুতর আহত হয়েছে । আহতদের বরগুনা জেনারেল ও পটুয়াখালী মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনার সাথে জড়িত সন্দেহে মালেক ও শাহ আলী নামের দুই জনেক আটক করেছে পুলিশ।

আবুল বাশার বাদশা তালুকদার জানান, তার দাদা মরহুম আব্দুল কাদের তালুকদারের রের্কডীয় জমির মাটি কাটতে যাই। সেলিম মোল্লা, শহীদ তালুকদার ও নুরুল ইসলাম ফকির পুলিশ এনে তাদের জমি দাবী করে জমির মাটি কাটা বন্ধ করে দেয়। পুলিশ যাওয়ার পরপরই সেলিম মোল্লা ও তার সহযোগীরা পরিকল্পিতভাবে আমাদের উপর দেশীয় অস্ত্র দিয়ে হামলা চালায়। এতে আমার পক্ষের ১১ জন আহত হয়েছে।

সেলিম মোল্লা বলেন, আমার লোকজনের উপর আবুল বাশার তালুকদার ও তার লোকজন হামলা করেছে।

তালতলী থানার এএসআই মোঃ জাকির হোসেন বলেন, অভিযোগ পেয়ে ঘটনাস্থলে গিয়ে উভয় পক্ষের শান্তি শৃঙ্খলা রক্ষায় মিশাংশার কথা বলে জমির মাটি কাটা বন্ধ করে দেই। কিন্তু আমি ঘটনাস্থল ত্যাগ করার পরেই উভয় পক্ষ সংঘর্ষে জড়িয়ে পড়েন।

তালতলী থানার ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) পুলক চন্দ্র রায় বলেন, এ ঘটনায় জড়িত সন্দেহে মালেক ও শাহ আলীকে আটক করা হয়েছে। তিনি আরো বলেন এখনো অভিযোগ পাইনি। অভিযোগ পেলে আইনানুগ ব্যবস্থা নেয়া হবে।

Sharing is.

Share on facebook
Share with others
Share on google
Share On Google+
Share on twitter
Share On Twitter
  • You May Also Like:
  • Top Views