চাঁদা না পেলে হামলা-মামলা করিয়ে নিরীহ মানুষকে জিম্মি করার অভিযোগ

mamla

চট্টগ্রাম ব্যুরো: সীতাকুণ্ডে চাঁদাবাজি, ইয়াবা কারবারসহ বহু অপকর্মের হোতা নুরুল কবির দুলালের বিরুদ্ধে অবশেষে মামলা দায়ের করেছে এক ভুক্তভোগি।

শুক্রবার দুপুরে জনি নামক এক ব্যবসায়ীকে হত্যা চেষ্টার অভিযোগে তার বিরুদ্ধে মামলা (নং ১৪তাং ১৫.০৩.১৯ইং) দায়ের করেন নবী উদ্দিন জনি নামক এক ব্যবসায়ী। পুলিশ ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করে দুলালকে গ্রেপ্তার অভিযান শুরু হয়েছে বলে জানিয়েছে।

থানার এজাহার ও ভুক্তভোগির অভিযোগে জানা যায়, সীতাকুণ্ড পৌরসভার ইয়াকুবনগর গ্রামের খোরশেদ আলমের ছেলে মোঃ নুরুল কবির দুলাল নিজেকে কখনো ক্ষমতাসীন দলের নেতা, কখনো পুলিশের সাথে সখ্যতার ভয়সহ নানা প্রভাব দেখিয়ে এলাকার সব শ্রেণি পেশার মানুষকে জিম্মি করে চাঁদা আদায় করত। কেউ তার চাহিদা পূরণ করতে অস্বীকৃতি জানালে তার বিরুদ্ধে ফেইসবুকে মানহানিকর অপপ্রচার শুরু করে এবং পুলিশকে বিভ্রান্ত করে তাকে মিথ্যা ডাকাতি মামলা, হত্যা মামলাসহ নানা ঝামেলায় জটিলতায় ফেলে হয়রানি করে আসছে।

এই ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি পৌরসভার ১নং ওয়ার্ডের উত্তর এয়াকুব নগর গ্রামের বাসিন্দা ব্যবসায়ী জয়নাল আবেদীন ও ফার্নিচার ব্যবসায়ী নবী উদ্দিন জনিসহ মোঃ সামসুদ্দীন, মোঃ আসলাম, মোঃ নয়ন উদ্দিন ও মোঃ রাজসহ আরো অনেকের কাছ থেকে চাঁদাসহ নানান সুবিধা দাবী করে। না দেওয়ায় নবী উদ্দিন জনির উপর সন্ত্রাসী নিয়ে হামলা করে তাকে হত্যার চেষ্টা চালায়।

এ হামলায় জনির হাত ভেঙে দীর্ঘদিন হাসপাতালে চিকিৎসাধীন ছিলো। এরই মধ্যে ৭ মার্চ উপরিউক্ত ভুক্তভোগিরা সীতাকুণ্ড প্রেসক্লাবে নুরুল কবির দুলালের এসব অপকর্ম নিয়ে সংবাদ সন্মেলন করেন। এ বিষয়ে পত্র-পত্রিকায় সংবাদ প্রকাশ করায় দুলাল সীতাকুণ্ড প্রেসক্লাবের সভাপতি এম সেকান্দর হোসাইন ও সদস্য দিদার হোসেন টুটুলের বিরুদ্ধে মানহানিকর অপপ্রচার শুরু করে। পাশাপাশি সংবাদ সম্মেলন করা ভুক্তভোগিদের পুনরায় হুমকি ধমকি দিতে থাকে।

ফলে শুক্রবার ভুক্তভোগি নবী উদ্দিন জনি বাদী হয়ে থানায় মামলা দায়ের করেন। ভুক্তভোগি জনি ক্ষোভ প্রকাশ করে বলেন, দুলাল প্রতিনিয়ত চাঁদা চাইত। নইলে পুলিশ দিয়ে হয়রানির ধমকি দিত সে। তারপরও টাকা না দেওয়ায় আমার উপর হামলা করে হাত ভেঙে দিয়েছে।

সীতাকুণ্ড থানার ওসি মোঃ দেলওয়ার হোসেন বলেন, নুরুল কবির দুলাল কবিরের বিরুদ্ধে বহু অভিযোগ পাওয়া যাচ্ছে। ভুক্তভোগিদের মধ্যে একজন শুক্রবার মামলা দায়ের করেছে। আমরা তাকে গ্রেপ্তারে অভিযান শুরু করেছি। যেকোন মহূর্তে সে গ্রেপ্তার হবে।

সীতাকুণ্ড প্রেসক্লাবের সভাপতি এম সেকান্দর হোসেন বলেন, দুলালের বিরুদ্ধে এলাকাবাসীর অন্তহীন অভিযোগ রয়েছে। সম্প্রতি কিছু ভুক্তভোগি প্রেসক্লাবে সংবাদ সম্মেলন করার পর আমরা সংবাদ প্রকাশ করায় সে আমার বিরুদ্ধেও মানহানিকর অপপ্রচার করছে। আমিও তার বিরুদ্ধে মামলা দায়েরের প্রক্রিয়ায় আছি।

Sharing is.

Share on facebook
Share with others
Share on google
Share On Google+
Share on twitter
Share On Twitter
  • You May Also Like:
  • Top Views