শিশুর নাকের ব্যাকটেরিয়া পরীক্ষায় ফুসফুসের সংক্রমণ নির্ণয়

১:৩৮ অপরাহ্ণ | শনিবার, মার্চ ১৬, ২০১৯ আপনার স্বাস্থ্য

আপনার স্বাস্থ্য ডেস্ক :: বিশ্বজুড়ে পাঁচ বছরের কম বয়সী শিশু মৃত্যুর হারে শীর্ষে রয়েছে ফুসফুস ক্যান্সার। এই ভয়াবহতার পরিত্রাণে শিশুর নাকের ব্যাকটেরিয়া পরীক্ষায় ফুসফুসের দাওয়াই উদ্ভাবনে সুখবর দিয়েছেন ইডেন বার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের গবেষকরা।

শিশুদের নাকের মধ্যে ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাস পরীক্ষা করে ফুসফুসের গুরুতর সংক্রমণ নির্ণয় এবং উন্নততর চিকিত্সার বিষয়ে একটি গবেষণা প্রতিবেদন প্রকাশ করা হয়েছে।

প্রতিবেদনটি প্রকাশ করেছে দ্য ল্যানসেন্ট রেসপাইরেটরি মেডিসিন।

ইডেনবার্গ বিশ্ববিদ্যালয়ের মেডিকেল রিসার্চ কাউন্সিল সেন্টার ফর ইনফ্লামেশন রিসার্চ বিভাগের
অধ্যাপক এবং গবেষণা দলের প্রধান দেবী বোগার্ট বলেন, শিশুর ফুসফুসে সংক্রমণ অল্পতেই তীব্র হয়ে গুরুতর অবস্থা ধারেণ করে। এটা বাবা মায়ের জন্য খুবই পীড়াদায়ক।

তিনি জানান, গবেষণায় দেখা গেছে, নাক ও কণ্ঠনালী বা গলা থেকেই ব্যাক্টেরিয়া ও ফাইরাস ফুসফুসে ছাড়ায়। তাই নাক ও গলায় কোনো ব্যাক্টেরিয়া বা ভাইরাস আক্রান্ত হয়েছে কিনা সেটাই আগে পরীক্ষা করতে হবে। সংক্রমণ নির্ণয়ে এটাই সহজ পদ্ধতি।

গবেষণায় দেখা গেছে, শিশুদের নাকের মধ্যে ব্যাকটেরিয়া এবং ভাইরাস থেকেই শ্বসন সংক্রমণ ঘটে।

গবেষকরা বলছেন, গবেষণা অন্যদের তুলনায় শিশুদের ক্ষেত্রে কেন সংক্রমণ আরো প্রবল হয় গবেষকরা এই গবেষণার মধ্যমে তার ব্যাখ্যা পেয়েছেন।

তাদেরর দাবি, এই গবেষণা গুরুতর ফুসফুস সংক্রমণ প্রতিরোধ করার জন্যেও বড় ভূমিকা রাখবে। প্রাপ্ত বয়স্ক এবং শিশুদের সংক্রমণের মাত্রাগত পার্থক্য মূলত রোগের তীব্রতা নির্দেশ করে এবং চিকিৎসরা জন্য রোগীকে কতদিন পর্যন্ত হাসপাতালে থাকতে হবে সে বিষয়ে চিকিৎসকদের সিদ্ধান্ত গ্রহণের সহায়তা করবে।

কম গুরুতর অবস্থার ক্ষেত্রে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার কমানো এবং স্বাভাবিকভাবেই শিশুর রোগমুক্তিতে সহায়তা করবে।