এক কাপ গ্রিন টি-এর এত গুণ!

৩:১৬ অপরাহ্ণ | শনিবার, মার্চ ১৬, ২০১৯ লাইফস্টাইল

লাইফস্টাইল ডেস্ক- শরীর ও মনকে চাঙ্গা করতে এক কাপ চায়ের জুড়ি নেই। আর তা যদি হয় গ্রিন টি তাহলে প্রফুল্লতার পাশাপাশি নানাবিধ উপকার হবে আপনার শরীরের। তেঁতো স্বাদের কারণে অনেকেই পান করতে পছন্দ করেন না গ্রিন টি।

তবে এর নানাবিধ গুণাবলির মধ্যে একটি গ্রিন টি পানে শরীরের অতিরিক্ত মেদ কমিয়ে দেয়? শুধুমাত্র এক কাপ গ্রিন-টি এ ক্ষেত্রে আপনার বন্ধু স্লিম হয়ে উঠতে পারে বলে এক সমীক্ষায় প্রকাশিত হয়েছে।

নিউট্রিশন বায়োকেমিস্ট্রির একটি জার্নালে সম্প্রতি এই সমীক্ষার ফলাফল প্রকাশিত হয়। সেখানে একদল ইঁদুরের উপর পরীক্ষা করে দেখানো হয়েছে, হাই ফ্যাট ডায়েট সাপ্লিমেন্ট যুক্ত খাবার খাওয়ার পরেও যারা গ্রিন টি পান করেন তারা অন্তত একই খাবারে অভ্যস্ত অন্যদের তুলনায় কুড়ি শতাংশ কম ওজন বৃদ্ধির সমস্যায় ভোগে। এমনকি তাদের শরীরে ইনসুলিন রেজিস্টেন্সও অন্যদের তুলনায় ভালো হয়।

সমীক্ষায় আরও বলা হয়, একদল ইঁদুরের উপরে পরীক্ষা চালাতে একই খাদ্যাভ্যাসের সঙ্গে কয়েকটিকে গ্রিন টি খাওয়ানো হয়েছিল। দেখা গেছে যারা গ্রিন টি খায়নি তাদের তুলনায় যারা গ্রিন টি খেয়েছে তাদের ওজন বৃদ্ধির সমস্যা কম হয়েছে এবং ইনসুলিন রেজিস্টেন্স অনেক বেশি সুস্থভাবে ঘটছে।

যে সব ইঁদুরদের ২ শতাংশ গ্রিন টি খাওয়ানো হয়েছিল তাদের ক্ষেত্রে দেখা গিয়েছে গাটের স্বাস্থ্য ও সুস্থতা অনেক বেশি ভালোভাবে ঘটেছে। গাটের দুর্বলতা সমস্যাকে ‘লিকি গাট’ বলে অভিহিত করা হয়। এই একই সমস্যা মানব দেহেও দেখা যায়।

গবেষণার মুখ্য লেখক রিচার্ড ব্রুনো, যিনি ওহিও স্টেট ইউনিভার্সিটির প্রফেসর। তিনি বলেন, ‘‘এই সমীক্ষায় দেখা গিয়েছে গ্রিন-টি গাটে ভালো ব্যাকটেরিয়ার বৃদ্ধি ও বিকাশের সহায়ক হয়। শরীরের মধ্যে অজস্র ভালো উপাদানের সঞ্চার করে, স্থূলতার সমস্যাকে কমিয়ে দেয়।

তিনি বলেন, সমীক্ষাকারী দলটি প্রায় এক সপ্তাহ ধরে ইঁদুরের উপরে পরীক্ষা চালিয়েছে। সব ইঁদুরকে হাই ফ্যাট ডায়েট দেওয়া হয়েছিল। যা ছিল ফ্যাট তৈরির সহায়ক। কিন্তু পাশাপাশি কিছু ইঁদুরকে গ্রিন টি এক্সট্রাক্ট খাবারে মিশিয়ে দেওয়া হয়েছিল। দেখা যায় যারা গ্রিন টি এক্সট্রাক্ট খেয়েছে সেইসব ইঁদুরদের ক্ষেত্রে মোটা হওয়ার প্রবণতা কম দেখা গিয়েছে এবং তাদের ইনসুলিন রেজিস্টেন্স খুবই ভালো।

সমীক্ষাকারী দলটি আরও জানিয়েছে, গ্রিন টি ক্যান্সারের আশঙ্কা কমায়, হার্ট এবং লিভারের স্বাস্থ্য ভালো রাখতে সাহায্য করে।