• আজ ৩রা ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চরফ্যাসনে তরমুজের বাম্পার ফলন

৩:৫১ অপরাহ্ণ | শনিবার, মার্চ ২৩, ২০১৯ অর্থনীতি
tormuj

এস আই মুকুল, নিজস্ব প্রতিবেদক: ভোলার চরফ্যাসন উপজেলায় তরমুজের বাম্পার ফলন হয়েছে। এ বছর এ অঞ্চলে ২ হাজার ১৩৮ হেক্টর জমিতে তরমুজের আবাদ করা হয়েছে। বিশেষ করে উপজেলার নুরাবাদ, নীলকমল, মুজিব নগর ও চর কলমি ইউনিয়নে আবাদের পরিমান ছোখে পড়ার মত।

এ বছর লক্ষ্যমাত্রার চেয়েও বেশি ফলন হয়েছে বলে জানান নীলকমল ইউনিয়নের ৭নং ওয়ার্ডের সুমন মিয়া। তিনি বলেন, আমি চর যমুনায় ১৯ একর জমিতে সুপার এম পি আর জাতের তরমুজের আবাদ করেছি, আল্লাহর রহমতে আশার অধিক ফলন পেয়েছি।

নুরাবাদের কৃষক আহাম্মদ উল্লাহ বেপারী বলেন, গতবছরের তুলনায় এ বছর ভালো ফলন পেয়েছি। কর্তন শুরু করেছি।

তরমুজের পাইকার খলিল উল্যাহ দেওয়ান বলেন, আমরা আগাম ফসল কিনছি এবং ঢাকায় পাঠানো হবে। ঢাকায় প্রতি পিছ তরমুজ ১৫০-২০০ টাকা দরে আগাম ফসল হিসেবে বিক্রি হবে বলে আশা করছি।

ইতোমধ্যে চরফ্যাসনে খুচরা ব্যাবসায়ীরা বাজারে আগাম বিক্রি শুরু করেছে। বাজার ঘুরে দেখা গেছে, প্রতি পিছ তরমুজ ১০০-১৫০ টাকায় বিক্রি হচ্ছে।

খুচরা ব্যাবসায়ীরা বলেন, আগাম তরমুজ চড়া দামে বিক্রি হচ্ছে। গত বছর বৃষ্টিপাত হওয়ায় ভালো দাম পাইনি, এ বছর লোকসানের টাকা উঠে যাবে যদি বৃষ্টিপাত বা প্রাকৃতিক দুর্যোগ না হয়।

উপ-সহকারী কৃষি কর্মকর্তা কামরুজ্জামান শিপন বলেন, এ এলাকায় সাধারণত ডায়মন্ড সুলতান, বিগ-ফ্যামিলী, ড্রাগন, সুইট জায়েন্ট, বল্লাক প্রভৃতি জাতের তরমুজ চাষাবাদ হয়। যা অনেক মিষ্টি হয়ে থাকে। একেকটি তরমুজের ওজন প্রায় ৪-৫ কেজির অধিক হয়।

চরফ্যসন উপজেলা কৃষি সম্প্রসারণ কর্মকর্তা মনোতোষ সিকদার বলেন, এ বছর তরমুজের বাম্পার ফলন দেখে কৃষকরাও অনেক আগ্রহে আছে প্রথম ফলন কর্তনের জন্য, কেউ কেউ কর্তন শুরু করেছে।