সংবাদ শিরোনাম
বিশ্বজিৎ হত্যার ৭ বছর আজ: দণ্ডিতরা সবাই প্রকাশ্যে , কিন্তু কাউকেই খুঁজে পায় না পুলিশ! | গফরগাঁওয়ে মোটরসাইকেল-অটোরিকশা সংঘর্ষে নিহত ২, আহত ৩ | ধানের সঠিক মূল্য না পেয়ে এবার আগাম আলু চাষের সিদ্ধান্ত কৃষকদের | এবছরও বেগম রোকেয়ার কবরে ফুল দেওয়ার স্বপ্ন পূরণ হচ্ছে না! | পটুয়াখালী হানাদার মুক্ত দিবস স্মরণে আলোর মিছিল | টাঙ্গাইলে প্রেমিকার দেয়া এসিডে ঝলসে গেল প্রেমিক | পিরোজপুরের ভান্ডারিয়ায় গাছের সাথে বেঁধে ২ শিশু নির্যাতন : গ্রেফতার ২ | হিলিতে বিপুল পরিমাণ ভারতীয় ট্যাবলেট জব্দ | স্কুলে পরীক্ষা বন্ধ রেখে আ.লীগের সম্মেলনে গেলেন শিক্ষকরা! | প্রধানমন্ত্রীর সঙ্গে সালমান-ক্যাটরিনা |
  • আজ ২৪শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

স্কুলছাত্রীকে ধর্ষণের দায়ে কৃষি কর্মকর্তার যাবজ্জীবন

৩:৩৮ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, এপ্রিল ১৬, ২০১৯ Uncategorized

সময়ের কণ্ঠস্বর, রংপুর- মায়ের চিকিৎসা সেবার জন্য বাসায় ডেকে নিয়ে স্কুল ছাত্রীকে ধর্ষণের অভিযোগে এক কৃষি কর্মকর্তাকে যাবজ্জীবন কারাদন্ড দিয়েছে আদালত। একই সাথে এক লাখ টাকা জরিমানা করা হয়েছে।

মঙ্গলবার (১৬ এপ্রিল) বেলা পৌনে একটায় রংপুরে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর বিচারক রোকনুজ্জামান এই রায় প্রদান করেন।
দীর্ঘ ১৩ বছর ৯ মাসের বেশি সময় ধরে এ মামলায় আদালত আসামী ও বাদীপক্ষের সাক্ষ্য গ্রহণ শেষে এ রায় ঘোষণা করেন।

আসামী জাকিরুল ইসলাম মিলন রংপুরের বদরগঞ্জ উপজেলার রামনাথপুর ইউনিয়নের পাঠানপাড়া গ্রামের আনছার আলীর ছেলে। সে নীলফামারীর কিশোরগঞ্জ উপজেলা উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা পদে চাকরি করছেন।

এদিকে মামলা ও আদালত সূত্রে জানা গেছে, ২০০৫ সালের ৪ জুলাই আসামী মিলন জ্বরে আক্রান্ত তাঁর অসুস্থ মায়ের মাথায় পানি দেয়ার জন্য প্রতিবেশী আব্দুল মালেকের স্কুল পড়ুয়া মেয়েকে কৌশলে বাড়িতে ডেকে নিয়ে হাত-বেধে জোরপূর্বক ধর্ষণ করেন। ঘটনার নয় দিন পর মিলনের বিরুদ্ধে ধর্ষণের অভিযোগ এনে নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ আদালতে মামলা দায়ের করেন। ওই মামলায় আসামী ও বাদীপক্ষের ১৫ জনের স্বাক্ষ্যগ্রহণ শেষে আনীত অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ায় আসামী জাকিরুল ইসলাম মিলনকে যাবজ্জীবন সশ্রম কারাদনডের আদেশ দেন। একই সাথে আসামীর কাছ থেকে এক লাখ টাকা জরিমানা আদায় করে নির্যাতিতা ওই ছাত্রীকে প্রদানের নির্দেশ দেন বিচারক।

রায় ঘোষণায় সন্তোষ প্রকাশ করে রাষ্ট্রপক্ষের আইনজীবী ও নারী ও শিশু নির্যাতন দমন ট্রাইব্যুনাল-২ এর স্পেশাল পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) জাহাঙ্গীর হোসেন তুহিন বলেন, ‘ঘটনার সময় আসামী মিলন কৃষি ডিপ্লোমা নিয়ে পড়াশুনা করতেন। পরবর্তী সে সরকারি চাকুরিতে যোগ দেন। এই রায়ে বাদীপক্ষ ন্যায় বিচার পেয়েছেন। এতে করে ন্যায় বিচার প্রতিষ্ঠত হয়েছে।’

এদিকে আসামীপক্ষের আইনজীবী ছিলেন রশীদ চৌধুরি ও এমদাদুল হক। রায়ে তারা কোন প্রতিক্রিয়া ব্যক্ত করেননি।

Loading...