টাঙ্গাইলে পাকিস্তানি কিশোরীকে ধর্ষণের মূলহোতা গ্রেফতার

৬:৫২ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, এপ্রিল ২৩, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ

সিরাজুল ইসলাম শিশির, সিরাজগঞ্জ প্রতিনিধি- টাঙ্গাইলের গোপালপুরে পাকিস্তানী কিশোরীকে ধর্ষণের প্রধান আসামী আল-আমিনকে (২০) কুড়িগ্রাম থেকে গ্রেফতার করেছে সিরাজগঞ্জ র‌্যাব-১২ এর সদস্যরা।

মঙ্গলবার সকালে কুড়িগ্রাম জেলার রাজিবপুর থানার পঞ্চনগর গ্রামে অভিযান চালানো হয়। অভিযানে একটি বাড়ি থেকে আল-আমিনকে গ্রেফতার করা হয়।

আজ মঙ্গলবার বিকেলে সিরাজগঞ্জ র‌্যাব-১২ এর কার্যালয়ে সংবাদ সম্মেলনে এ তথ্য জানান র‌্যাব-১২ এর অধিনায়ক লেঃ কর্ণেল আব্দুল্লাহ আল মোমেন।

মামলার এজাহারে উল্লেখ করা হয়েছে, টাঙ্গাইল জেলার গোপালপুরের হুমায়ন কবীরের সাথে প্রায় ২০ বছর পূর্বে পাকিস্তানী নাগরিক নিলুফার বিয়ে হয়। তাদের দাম্পত্য জীবনে হুমেরা বাবু (১৭) নামে একটি কন্যা সন্তান রয়েছে।

গত ৫ মাস পূর্বে মেয়েকে সাথে নিয়ে মোছাঃ নিলুফার ভাসুর আবদুল ওয়াদুদের বাড়িতে বেড়াতে আসেন। সেখানে বসবাসকালে তার অপর ভাসুর আবুল হোসেনের পরিবারের সাথে সুসম্পর্ক গড়ে ওঠে।

এমতবস্থায় ভাসুরের ছেলে আল-আমিন তার মেয়ে হুমেরা বাবুকে উত্ত্যক্তা ও কুপ্রস্তাব দিয়ে আসছিলো। গত ১৬ এপ্রিল বড় ভাসুর আবদুল ওয়াদুদের বাড়িতে রাত্রী যাপনকালে রাত ৯টার দিকে হুমেরা বাবু প্রকৃতির ডাকে বাইরে বের হয়।

এসময় সেখানে আগে থেকে ওৎ পেতে থাকে আল-আমিন। তার অন্যান্য সহযোগিদের সহায়তায় মোটর সাইকেলযোগে কিশোরী হুমেরা বাবুকে অপহরন করে নিয়ে যায়। পরে দিন ১৭ এপ্রিল আল-আমিন বিয়ের প্রলোভন ও ভয়ভীতি দেখিয়ে হুমেরা বাবুকে শারিরীকভাবে নির্যাতন করে এবং ধর্ষন করে।

পরবর্তীতে হুমেরা বাবুকে জামালপুর জেলার সরিষাবাড়ি থানার মহিষাকান্দি গ্রাম থেকে উদ্ধার করা হয়। এ ঘটনায় হুমেরা বাবুর মা মোছাঃ নিলুফার বাদী হয়ে টাঙ্গাইলের গোপালপুর থানায় নারী ও শিশু নির্যাতন আইনে (২০০০ সংশোধীত ২০০৩ এর ৭/৯ (১)/৩০) ধারায় মামলা দায়ের করেন।