‘একটি ছবি তোলার জন্য অনেক সময় জীবনের ঝুঁকি নিতে হয়’- তথ্যমন্ত্রী

১০:৪২ অপরাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, এপ্রিল ২৫, ২০১৯ ঢাকা
hasan

মেজবাহুল হিমেল, ঢাকা থেকে- রূপসী বাংলার অনন্য রূপ। দেশের বিভিন্ন সংবাদমাধ্যমে কর্মরত আলোকচিত্রীদের এমন নজরকাড়া আলোকচিত্র প্রদর্শিত হয়েছে ‘রূপসী বাংলা জাতীয় ফটো প্রদর্শনী। আজ শুক্রবার (১৯ এপ্রিল) বাংলাদেশ শিল্পকলা একাডেমির জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে শুরু হয়েছে তিন দিনের এ প্রদর্শনী। বাংলাদেশ ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের আয়োজনে ফটো প্রদর্শনীর সঙ্গে শুক্রবার হয়েছে প্রতিযোগিতা ও সম্মাননা জানানো হয়েছে প্রয়াত তিন আলোকচিত্র সাংবাদিক এস এম মোজাম্মিল হোসেন, মোশারফ হোসেন লাল ও জহিরুল হককে।

দুপুরে জাতীয় চিত্রশালা মিলনায়তনে আয়োজিত শিল্পকলা একাডেমির মহাপরিচালক লিয়াকত আলী লাকীর সভাপতিত্বে প্রধান অতিথি হিসেবে বক্তব্য রাখেন তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ।

বিশেষ অতিথি বক্তব্য রাখেন নৌ-পরিবহন প্রতিমন্ত্রী খালিদ মাহমুদ চৌধুরী এবং জাতীয় প্রেসক্লাবের সভাপতি সাইফুল আলম। আরও বক্তব্য রাখেন একাডেমির সচিব ড. কাজী আসাদুজ্জামান, সিনিয়র আলোকচিত্র সাংবাদিক রফিকুর রহমান এবং ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশনের সভাপতি গোলাম মোস্তফা ও সাধারণ সম্পাদক কাজল হাজরা।

তথ্যমন্ত্রী ড. হাছান মাহমুদ বলেন, একটি ছবি তোলার জন্য অনেক সময় ফটো সাংবাদিকদের অনেক সময় জীবনের ঝুঁকি নিতে হয়। কোনো সংবাদ অনেক সময় ছবি-ছাড়া অসম্পূর্ণ থেকে যায়ছবি তুলতে গিয়ে জীবন বিপন্ন হয়েছে। একটি ছবি মানুষের তৃতীয় নয়ন খুলে দিতে পারে এই কাজগুলো অনেক সময় অন্তরালেই রয়ে যায়, কিন্তু তবু এটি অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি কাজ। একটি ছবি অনেক সময় গবেষণার বিষয় হয়ে দাঁড়ায়। পৃথিবীর অনেক বিখ্যাত ছবি গবেষণার বিষয় হয়েছে। আমাদের স্বাধিকার আন্দোলন থেকে শুরু করে স্বাধীনতা এবং স্বাধীনতা পরবর্তী সময়েও সব ক্ষেত্রে ফটো

সাংবাদিকদের যে ভূমিকা, তা অনস্বীকার্য।‘রূপসী বাংলা’ নামে এই অনুষ্ঠানের আয়োজন করায় ফটো জার্নালিস্ট অ্যাসোসিয়েশকে ধন্যবাদ জানিয়ে মন্ত্রী বলেন, বাংলাদেশ যে কতো সুন্দর, আমরা যখন বিদেশে যাই তখন সেটি অনুভব করি। এতো সবুজ, প্রকৃতির অপরূপ শোভায় বাংলাদেশের মতো অত্যন্ত মায়াবী স্নিগ্ধ প্রকৃতি খুব কম দেশেই আছে। আর সেই রূপ-প্রকৃতির ছবি নিয়ে যে প্রদর্শনীর আয়োজন, সেটি সত্যিই প্রশংসার দাবিদার।

খালিদ মাহমুদ চৌধুরী বলেন, ফটো সাংবাদিকদের ছবি ইতিহাসের সাক্ষ্য দেয়। বাংলাদেশের গণমাধ্যম বড় হচ্ছে। প্রতিনিয়ত গণমাধ্যমে গণতন্ত্রের চর্চা হচ্ছে। তাদের ক্যামেরা বাংলাদেশের ও মানুষের কথা বলে। একটি ঘটলে রিপোর্টার হয়তো দূরে থেকেও সংবাদ সংগ্রহ করা যায়। কিন্তু একজন প্রকৃত ফটো সাংবাদিকের পক্ষে তা সম্ভব নয়। তাকে জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ঘটনার খুব কাছে যেতে হয় এবং সেই মুহূর্তটির জন্য অপেক্ষা করতে হয় যেটি তিনি ক্যামেরায় ধরবেন। জাতীয় চিত্রশালার চার নম্বর গ্যালারিতে তিন দিনের এ প্রদর্শনীতে ৬৫ জন আলোকচিত্র ফটো সাংবাদিকের ৬৫টি আলোকচিত্র স্থান পেয়েছে। আগামী রোববার (২১ এপ্রিল) পর্যন্ত প্রতিদিন সকাল ১১টা থেকে রাত ৮টা পর্যন্ত এ প্রদর্শনী সবার জন্য উন্মুক্ত থাকবে।