সংবাদ শিরোনাম
বঙ্গবন্ধু-প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর: ফাইনের পর সুব্রত গ্রেপ্তার | হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীদের খোঁজ-খবর নিলেন ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ | পুরুষদের নানাভাবে নির্যাতন করছে নারীরা: হিরো আলম | রাহুল গান্ধীকে ঢুকতে দেয়া হয়নি কাশ্মীরে, বিমানবন্দর থেকেই ফেরত | রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তন করাই উত্তম: তাজুল ইসলাম | দিনে দুপুরে গুলশানের কমিউনিটি সেন্টারে ছাত্রলীগের হামলা (ভিডিও) | ৬ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী | ফরিদপুরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১১, আহত ২৫ | বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাংচুর: ছাত্রলীগ নেতা ফাইন গ্রেফতার | মিরপুরে ফুটপাত দখল করে চলছে রমরমা বাণিজ্য |
  • আজ ৯ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মঠবাড়িয়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত, ব্যাপক ক্ষয়ক্ষতি

৫:১৭ অপরাহ্ণ | রবিবার, মে ৫, ২০১৯ দেশের খবর, বরিশাল

এস.এম. আকশ, মঠবাড়িয়া প্রতিনিধি: পিরোজপুরের মঠবাড়িয়ায় ঘূর্ণিঝড় ফণী’র প্রভাবে নদ-নদীতে পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় বেড়িবাঁধ ভেঙে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। সাপলেজা ইউনিয়নের কয়েকটি স্থানের বেড়িবাঁধ ভেঙে গেছে।

বড় মাছুয়া ষ্টিমার ঘাট সংলগ্ন বেড়িবাঁধ পানি বৃদ্ধি পাওয়ায় কিছু অংশ ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এছাড়া কাঁচা ঘরবাড়ি বিধ্বস্ত হয়েছে এবং গাছপালা ভেঙে পড়েছে। ফসলের ব্যাপক ক্ষতি হয়েছে। বলেশ্বর নদের তীরের মানুষ বেড়িবাঁধ ভেঙে যাওয়ায় জলোচ্ছ্বাসের ভয়ে আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে।

মঠবাড়িয়া উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা জি. এম. সরফরাজ জানান, উপজেলার ১১টি ইউনিয়নে ৭৯১টি পরিবার ও ৪ হাজার ৭৩২জন লোক ঝড়ে ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এছাড়া ঝড়ে ২৩০ একর জমির ফসল সম্পূর্ণ ও ৫৭২ একর জমির ফসল আংশিক ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। ঝড়ে ২৪৫টি কাঁচা ঘর ও ৪৩৭টি আংশিক কাঁচা ঘর ক্ষতিগ্রস্থ হয়েছে। এছাড়া উপজেলার ২.৬ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্থ হয়।

শুক্রবার রাতে ঝড় বৃষ্টিতে নদী তীরবর্তী খেতাছিঁড়া, কচুবাড়িয়া জেলে পল্লীর অন্তত ৪০টি ঘরবাড়ি ক্ষতিগ্রস্ত হয়। এসময় বেশ কিছু গাছপালা উপড়ে গেছে। বলেশ্বর নদীতে অস্বাভাবিক জোয়ারে খেতাছিঁড়া ও কচুবাড়িয়া এলাকার বেড়িবাঁধ ভেঙে নিম্নাঞ্চল প্লাবিত হয়েছে। এতে এসব এলাকার মুগডালসহ ফসল দুই ফুট পানিতে ডুবে রয়েছে। খেতাছিড়া ও কচুবাড়িয়া পয়েন্টে বেড়িবাঁধ নদীর প্লাবনের হুমকির মুখে রয়েছে।

পানি উন্নয়ন বোর্ড পিরোজপুরের নির্বাহী প্রকৌশলী সাঈদ আহম্মেদ জানান, মঠবাড়িয়া উপজেলার সাপলেজা ইউনিয়নের দুইটি পয়েন্ট থেকে বেড়িবাঁধ ভেঙ্গে পানি ঢুকে খেতাছিড়া ও কচুবাড়িয়া এবং চরভোলমারা, ভাইজোড়া, নিজামিয়া গ্রামের নিচু এলাকা পানিতে ডুবে গেছে।

সাপলেজা ইউনিয়নের ইউপি সদস্য আফজাল হোসেন জানান, শনিবার দুপুরে খেতাছিড়া ও কচুবাড়িয়া গ্রামের বাসিন্দাদের নিয়ে নিজেরাই ক্ষতিগ্রস্থ্য বাঁধ মেরামত কাজ করেছি।

তিনি আরো জানান, শুক্রবার দুপুরে মঠবাড়িয়ার খেতাচিড়া গ্রামে শতাধিক কাঁচাঘর বির্ধ্বস্ত হয়েছে। বিভিন্ন আশ্রয় কেন্দ্রে আশ্রয় নেয়া লোকজন নিজ নিজ বাড়িতে ফিরে গেছে।