সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৬ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বউয়ের কথামতো দেশ চালাচ্ছেন ইমরান, দাবি সাবেক স্ত্রীর

৩:৫৬ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, মে ৭, ২০১৯ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- মাসকয়েক আগে পাকিস্তানের প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানকে ‘সেনাবাহিনীর পুতুল’ বলেছিলেন তিনি। ক্রিকেটার-রাজনীতিকের প্রাক্তন স্ত্রী রেহাম এবার নিশানা করলেন তাঁর উত্তরসূরি বুশরা মানেকাকে।

সম্প্রতি একটি সংবাদমাধ্যমে দেওয়া সাক্ষাৎকারে রেহামের দাবি, ‘ইমরানের যাবতীয় রাজনৈতিক ও রাষ্ট্রীয় সিদ্ধান্তের নেপথ্যে থাকেন তাঁর তৃতীয় স্ত্রী বুশরা।’

সাক্ষাৎকারে রেহামের অভিযোগ, তাঁর সঙ্গে বিয়ের অন্তত তিন বছর আগে থেকে বুশরার সঙ্গে মেলামেশা ছিল ইমরানের। এমনকী ২০১৩ সালে পাকিস্তানের সাধারণ নির্বাচনের সময় তেহরিক-ই-ইনসাফের প্রার্থী নির্বাচনে বুশরার ভূমিকা ছিল বলেও দাবি করেছেন তিনি।

উল্লেখ্য, ২০১৮ সালে আধ্যাত্মিক গুরু বুশরার সঙ্গে ইমরানের বিয়ে হলেও তার বেশ কিছুদিন আগে থেকেই দু’জনের সম্পর্ক নিয়ে জল্পনা শুরু হয়েছিল পাক মিডিয়ায়।

প্রসঙ্গত, বুশরার প্রাক্তন স্বামী খওয়ার ফরিদ মানেকাও এর আগে অভিযোগ করেছিলেন, ইমরানের আবির্ভাবের পরেই তাঁদের সংসারে ভাঙনের সূচনা হয়েছিল।

গত বছর তৃতীয় বিয়ের সময় ইমরান খান বলেছিলেন, এ বিয়ে ‘তৃতীয় এবং শেষ বিয়ে।’ এরপরই নির্বাচনে জয়ী হয়ে সরকার গঠন করে ইমরানের দল তেহরিক-ই-ইনসাফ। প্রধানমন্ত্রী হিসেবে শপথ নেন ইমরান খান। দায়িত্ব নেওয়ার পর থেকেই বুশরা বিবির সঙ্গে ইমরানের সম্পর্কের অবনতি হয় বলে গণমাধ্যমে খবর প্রকাশ হতে থাকে।

এর আগে এক সাক্ষাৎকারে বুশরা বিবি বলেছিলেন, ‘ইমরান খান খুবই সাধারণ জীবন যাপন করেন। তার মধ্যে কোনো লোভ-লালসা নেই।’ বুশরার মতে, শুধু ইমরান খানই পাকিস্তানে পরিবর্তন আনতে পারেন। তবে পরিবর্তন আসতে সময় লাগবে। কারণ ইমরান খান শুধু পাকিস্তানের নেতা নন, তিনি পুরো মুসলিম বিশ্বের নেতা।

এদিকে প্রধানমন্ত্রী পদে আসীন হওয়ার পরে পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ পার্টির নেতা ইমরান যে ‘নয়া পাকিস্তান’ গড়ার ডাক দিয়েছেন, তাকেও কটাক্ষ করেছেন রেহাম। তাঁর কথায়, ‘ইমরান-বুশরার আপাদমস্তক ঢাকা পোশাক পরা বিয়ের ছবি দেখুন। ধর্মীয় অনুশাসনের প্রতি দায়বদ্ধতা বোঝাতেই জনতাকে ওই ছবি দেখানো হয়েছিল। এভাবে কি দেশ বা সমাজ এগিয়ে নিয়ে যাওয়া সম্ভব?’

পাক সরকার এবং শাসকদলের নানা খুঁটিনাটি সিদ্ধান্ত বুশরার অঙ্গুলিহেলনেই পরিচালিত হয় বলে দাবি করেছেন রেহাম। তাঁর খোঁচা, ‘বুশরা আসলেই ইমরানের আধ্যাত্মিক পথপ্রদর্শক। তিনি যা বলেন, ইমরান তা-ই করেন।’

১৯৯৫ সালে ব্রিটিশ নাগরিক জেমিমা গোল্ডস্মিথকে বিয়ে করেছিলেন ইমরান খান। ইসলাম ধর্ম গ্রহণ করে পাকিস্তানের লাহোরে থাকতেন জেমিমা। কিন্তু ইহুদি পরিবারে জন্ম হওয়ায় পাকিস্তানের মানুষ তাঁকে তেমন পছন্দ করতে পারেননি। ৯ বছর পর ইমরান আর জেমিমার ঘর ভাঙে ২০০৪ সালে। জেমিমার গর্ভে জন্ম নেওয়া দুই ছেলে আছে ইমরান খানের। বিচ্ছেদের পর দুই ছেলে সুলাইমান খান ও কাশিম খানকে নিয়ে যুক্তরাজ্যেই থাকেন জেমিমা গোল্ডস্মিথ।

এরপর ২০১৫ সালে ইমরান বিবাহবন্ধনে জড়িয়েছিলেন বিবিসির টিভি উপস্থাপক, সাংবাদিক রেহাম খানের সঙ্গে। তাঁদের বিয়ে স্থায়ী হয়েছিল ১০ মাস। টিভি উপস্থাপক রেহাম খান একসময় বিবিসিতে আবহাওয়ার খবর পড়তেন। বর্তমানে পাকিস্তানের একটি টিভি চ্যানেলের সঙ্গে যুক্ত।

১৯৯২ সালে বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক ইমরান খানের মতো তিন সন্তানের জননী রেহাম খানেরও আগে একবার বিবাহবিচ্ছেদ হয়েছে। এরপর তৃতীয়বারের মতো ইমরান বিয়ের পিঁড়িতে বসেছেন নিজের আধ্যাত্মিক ধর্মগুরুর সঙ্গে।

১৯৯২ সালে পাকিস্তানের ক্রিকেট বিশ্বকাপজয়ী অধিনায়ক ছিলেন ইমরান খান। পরবর্তী সময়ে ১৯৯৬ সালে পিটিআই গঠন করে তিনি রাজনীতি শুরু করেন। দল গঠনের ২২ বছর পর ১১তম সাধারণ নির্বাচনে জয়ী হয়ে প্রধানমন্ত্রী হন তিনি।