সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ধর্ষণের পর অন্তঃসত্ত্বা, ৪ লাখে রফাদফা: সেই ধর্ষক আটক

৬:১২ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, মে ৭, ২০১৯ ঢাকা, দেশের খবর

মোল্লা তোফাজ্জল, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি- টাঙ্গাইলের কালিহাতী উপজেলার পারখী ইউনিয়নের পূর্বাসিন্দা গ্রামে স্কুল ছাত্রীর ধর্ষক ও সহায়তাকারীকে পুলিশ আটক করে জেল হাজতে পাঠিয়েছে।

বৃহস্পতিবার (২মে) রাতে ধর্ষণের ঘটনা মীমাংসার জন্য স্থানীয় ইউপি সদস্য কদ্দুস ও আওয়ামী লীগ নেতা খসরু ও মাতাব্বর সাইফুল ইসলাম শালিসের মাধ্যমে ৪ লাখ টাকা জরিমানা করে। ভয়-ভীতি দেখিয়ে ধর্ষিতা পরিবারকে গ্রাম ছেড়ে অন্যত্র রাখার সিদ্ধান্ত নেয় তারা।

৬ মে সময়ের কণ্ঠস্বরসহ বিভিন্ন স্থানীয় ও জাতীয় দৈনিকে সংবাদ প্রকাশ হলে এলাকায় তোলপাড় হয়। সংবাদ প্রকাশে পুলিশ প্রশাসনের টনক নড়ে। পুলিশ সালিশের মাতাব্বরদের চাপ দিয়ে তাদের সহযোগিতায় পুলিশ ধর্ষিতা পরিবারের লোকজনকে উদ্ধার করে মামলা নেয়।

মঙ্গলবার দিবাগত রাতে পুলিশ ধর্ষক ও গর্ভপাতে সাহায্যকারী এক নারীকে আটক করে। আটককৃতরা হলো, পূর্বাসিন্দা গ্রামের রায় মোহনের ছেলে রাম প্রসাদ (২০) ও ধর্ষকের ফুফাতো বোন রত্না সূত্রধর (২৫)।

ধর্ষিতার বাবা জানান, স্কুলে যাওয়া-আসার পথে আমার নাবালিকা পঞ্চম শ্রেনীর ছাত্রীকে ফুঁসলিয়ে প্রেমের ফাঁদে ফেলে রাম প্রসাদের ফুফাতো বোনের ঘরে একাধিকবার ধর্ষণ করে। ফলে আমার মেয়ে অন্ত:সত্ত্বা হয়ে পড়ে। ধর্ষক রাম প্রসাদ কৌশলে তার ফুফাতো বোন রত্নার সহযোগিতায় গর্ভপাত করার জন্য ওষুধ খাওয়ায়। পরে বিষয়টি জানাজানি হলে স্থানীয় ইউপি সদস্য কদ্দুস, ওই ওয়ার্ডের আওয়ামী লীগের সভাপতি খসরু ও মাতাব্বর সাইফুল সালিশের আয়োজন করেন।

কালিহাতী থানার ওসি মীর মোশারফ হোসেন বলেন, ধর্ষিতাকে মেডিকেল করার জন্য টাঙ্গাইল হাসপাতালে পাঠানো হয়েছে। ধর্ষক রাম প্রসাদ ও সহযোগী রত্নাকে আটক করে জেল হাজতে প্রেরন করা হয়েছে। ধর্ষিতার বাবা কালিহাতী থানায় মামলা দায়ের করেছেন।