সংবাদ শিরোনাম
স্কুলছাত্রী প্রেমিকাকে বেড়াতে নিয়ে বন্ধুকে সাথে করে শিক্ষকের গণধর্ষণ! | আজ ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে ২ ফ্লাইওভার ৪ আন্ডারপাস উদ্বোধন করবেন প্রধানমন্ত্রী | মাদ্রাসায় যৌন হয়রানি রোধে নারী মেন্টর রাখার সিদ্ধান্ত | ‘নতুন চ্যালেঞ্জ নিয়ে রাজনীতি করবে জাসদ’- ইনু | টাঙ্গাইলে পুলিশি অভিযানে এক ব্যক্তির মৃত্যু ! সড়কে আগুন জ্বালিয়ে বিক্ষোভ | ‘প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা দেশটাকে অনেক উচ্চতায় নিয়েছে’- কৃষিমন্ত্রী ড. আব্দুর রাজ্জাক | ছাত্রলীগের নিজস্ব নিউজপোর্টালের যাত্রা শুরু | মোদি ও অমিত শাহকে অভিনন্দন জানালেন ড. কামাল | কার্ডিফে টাইগারদের জন্য খুদে ভক্তদের উন্মাদনা (ভিডিওসহ) | অনুশীলনের ফাঁকে মাহমুদউল্লাহর ইমামতিতে ‘জুমার নামাজ’ আদায় করলো টাইগাররা |
  • আজ ১১ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

অ্যাসাঞ্জকে ‘আই লাভ ইউ’ বললেন পামেলা

৫:১৪ অপরাহ্ণ | বুধবার, মে ৮, ২০১৯ বিনোদন

বিনোদন ডেস্ক :: বহুল আলোচিত উইকিলিকসের প্রতিষ্ঠাতা জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন সাবেক ‘বেওয়াচ’খ্যাত অভিনেত্রী পামেলা অ্যান্ডারসন। সাক্ষাত শেষে তিনি অ্যাসাঞ্জ সম্পর্কে বলেছেন, আমি তাকে ভালবাসি। বার্তা সংস্থা এএফপিকে উদ্ধৃত করে এ খবর দিয়েছে অনলাইন এনডিটিভি।

পামেলা অ্যান্ডারসন এখন পশু অধিকার বিষয়ক কর্মী। মঙ্গলবার তিনি লন্ডনের জেলে বন্দি জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জের সঙ্গে সাক্ষাত করেছেন। এরপর আবেগঘন কণ্ঠে নিজের প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন। বলেছেন, জেলে অ্যাসাঞ্জের জীবন বিপদের মুখে। তাকে ওই অবস্থায় দেখাটা অত্যন্ত কঠিন। তাকে দেখতে জেলে যাওয়াটা পুরোপুরি হতাশার।

জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জ যখন লন্ডনে ইকুয়েডরের দূতাবাসে ছিলেন তখন তার সঙ্গে বেশ কয়েকবার সাক্ষাত করেছেন পামেলা। এবার সাক্ষাত করলেন লন্ডনে বেলমার্শ জেলে। এ সময় তার মাথায় ছিল একটি বিশাল ক্যাপ। তাতে মত প্রকাশের স্বাধীনতার পক্ষে স্লোগান লেখা। ওই জেলখানার বাইরে দাঁড়িয়ে অ্যাসাঞ্জ সম্পর্কে পামেলা বলেছেন, তিনি খুব ভাল একজন মানুষ। তিনি অবিশ্বাস্য ভাল একজন ব্যক্তি। আমি তাকে ভালবাসি। তিনি কি সব অবস্থার ভিতর দিয়ে যাচ্ছেন তা আমি কল্পনাও করতে পারছি না।

ফ্রান্সে বসবাসকারী পামেলা অ্যান্ডারসন বিখ্যাত ‘প্লেবয়’ ম্যাগাজিনেরও মডেল হয়েছিলেন। বেওয়াচ আর প্লেবয় এই দুয়ের মাধ্যমে তাবত দুনিয়াকে তিনি মাত করে দিয়েছিলেন। তিনি অ্যাসাঞ্জ সম্পর্কে বলেছেন, তার জীবন রক্ষা করা উচিত আমাদের। বিষয়টা এতটাই গুরুত্বপূর্ণ। তার সঙ্গে অন্যায় করা হচ্ছে। তাই এর বিরুদ্ধে আমাদের লড়াই করতে হবে। সত্য প্রকাশে করতে গিয়ে তাকে সবকিছু ত্যাগ করতে হয়েছে।

উল্লেখ্য, ৭ বছর লন্ডনে ইকুয়েডরের দূতাবাসে অবস্থান করার পর গত মাসে অ্যাসাঞ্জকে আশ্রয় প্রত্যাখ্যান করে ওই দূতাবাস। এর ফলে সেখান থেকে বৃটিশ পুলিশ গ্রেপ্তার করে জুলিয়ান অ্যাসাঞ্জকে। জামিনের শর্ত লঙ্ঘন করার দায়ে বর্তমানে ৫০ সপ্তাহের জেল খাটছেন তিনি। হ্যাকিং করে তথ্য ফাঁস করার অভিযোগে তাকে যুক্তরাষ্ট্র নিজেদের হাতে চাইছে।