সংবাদ শিরোনাম
বঙ্গবন্ধু-প্রধানমন্ত্রীর ছবি ভাঙচুর: ফাইনের পর সুব্রত গ্রেপ্তার | হাসপাতালে ডেঙ্গু রোগীদের খোঁজ-খবর নিলেন ইঞ্জিনিয়ার মোশারফ | পুরুষদের নানাভাবে নির্যাতন করছে নারীরা: হিরো আলম | রাহুল গান্ধীকে ঢুকতে দেয়া হয়নি কাশ্মীরে, বিমানবন্দর থেকেই ফেরত | রোহিঙ্গাদের নিজ দেশে প্রত্যাবর্তন করাই উত্তম: তাজুল ইসলাম | দিনে দুপুরে গুলশানের কমিউনিটি সেন্টারে ছাত্রলীগের হামলা (ভিডিও) | ৬ কোটি টাকার উন্নয়ন প্রকল্পের উদ্বোধন করলেন পররাষ্ট্র প্রতিমন্ত্রী | ফরিদপুরে পৃথক সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ১১, আহত ২৫ | বঙ্গবন্ধুর ছবি ভাংচুর: ছাত্রলীগ নেতা ফাইন গ্রেফতার | মিরপুরে ফুটপাত দখল করে চলছে রমরমা বাণিজ্য |
  • আজ ৯ই ভাদ্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চট্টগ্রামে আসল ম্যাজিস্ট্রেট এর হাতে ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট আটক

১০:৫৬ অপরাহ্ণ | শনিবার, মে ১১, ২০১৯ চট্টগ্রাম
vua majistrat

জে. জাহেদ, চট্টগ্রাম প্রতিনিধি: চট্টগ্রামে শুটকির দোকানে ম্যাজিস্ট্রেট এর ভয় দেখিয়ে ৬ হাজার টাকা জরিমানা আদায় কালে আটক হয়েছেন কথিত সাংবাদিক ও ভুয়া ম্যাজিস্ট্রেট।

নগরীর বাকলিয়া থানাধীন তুলাতুলি সংলগ্ন এলাকায় আজ এই ঘটনা ঘটে। আটক ভূয়া ম্যাজিস্ট্রেট এর নাম মহি উদ্দীন সাগর (৩৭)বলে জানান প্রত্যক্ষদর্শীরা।

খবর পেয়ে দ্রুত সময়ে আসল ম্যাজিস্ট্রেট ঘটনাস্থলে হাজির হয়ে প্রতারকদের আটক ও চিংড়ি শুটকীতে রঙ ও তেল মেশানোর অপরাধে শুটকি ব্যবসায়ি খোরশেদকে ৩ মাসের কারাদন্ড দেন।

পরে কথিত নারী সাংবাদিক সহ পাঁচজন বাকলিয়া থানায় অনৈতিক ভাবে আদায় করা টাকা ফেরত দিয়ে মুচলেকায় মুক্ত হন বলে জানা যায়।
ঘটনা সুত্রে জানা যায়, ১১ মে শনিবার দুপুরে হঠাৎ কিছু সাংবাদিক খোরশেদ এর কারখানায় এসে কৃত্রিম রঙ ও তেল মিশিয়ে শুটকী তৈরীর সংবাদ সংগ্রহ করতে থাকে৷ এসময় কারখানার মালিক’কে জানানো হয় ম্যাজিস্ট্রেট আরাকান সড়কে অপেক্ষা করছে এবং তার কারখানায় অভিযান চালানো হবে৷

এভাবে তারা প্রথমে ২০ হাজার টাকা দাবী করলেও কারখানার মালিক খোরশেদ সেটা দশ হাজার টাকায় রফা করেন৷ এসময় নগদ ৬ হাজার টাকা প্রদান করে এবং বাকী ৪ হাজার টাকা বিকাশের মাধ্যমে পরিশোধ করার অঙ্গিকার করে কারখানার মালিক ৷ এক পর্যায়ে এলাকাবাসির সন্দেহ হলে তারা কথিত সাংবাদিকদের ঘেরাও করে পুলিশকে খবর দেয়৷

খবর পেয়ে বাকলিয়া থানার পুলিশ এক নারী সহ ৫ জনকে আটক করে থানায় নিয়ে যান। খবর পেয়ে শুটকির কারখানাটিতে হাজির হন ম্যাজিস্ট্রেট মাহফুজা জেরিন। ক্ষতিকারক রং ও তেল মিশিয়ে শুটকী তৈরীর অপরাধে কারখানার মালিক খোরশেদকে ত্রিশ হাজার টাকা জরিমানা করা হয়। জরিমানা দিতে অপারগ হওয়ায় কারখানা মালিককে তিন মাসের কারাদন্ড দেওয়া হয়। একই সাথে ঐ কারখানার সকল শুটকী ধ্বংস করা হয়।