র‌্যাবের হাতে দুই শিশু ধর্ষণকারী গ্রেফতার

১:৪৩ অপরাহ্ণ | সোমবার, মে ১৩, ২০১৯ দেশের খবর, রংপুর

মেজবাহুল হিমেল, রংপুর প্রতিনিধি- গাইবান্ধা ও দিনাজপুরে দুই শিশুকে ধর্ষণের ঘটনায় দুই ধর্ষককে গ্রেফতার করেছে র‌্যাব-১৩। রোববার রাতে লালমনিরহাটের পাটগ্রামে এবং দিনাজপুরের বিরলে পৃথক দুটি অভিযান চালিয়ে তাদের গ্রেফতার করা হয।

সোমবার বেলা সাড়ে ১১টায় র‌্যাব-১৩ এর সদর দপ্তরে আয়োজিত প্রেস ব্রিফিংয়ে এ তথ্য জানান র‌্যাব-১৩ এর অধিনায়ক অতিরিক্ত ডিআইজি মোজাম্মেল হক।

তিনি জানান, গাইবান্ধা সদর উপজেলার কুপতলা ইউনিয়নের পশ্চিম কুপতলা মধ্যপাড়া গ্রামের প্রথম শ্রেণির এক এতিম শিশু তার দাদির সঙ্গে থেকে প্রতিপালিত হয়। দাদির কথা অনুযায়ী গত ৫ মে সন্ধ্যায় টর্চ লাইটে চার্জ দেওয়ার জন্য প্রতিবেশী আইয়ুব খানের ঘরে যায় শিশুটি। এ সময় ঘরে থাকা আইয়ুব খানের বখাটে ছেলে শাকিল মিয়া (১৯) শিশুটিকে মুখ চেপে ধর্ষণ করে।

পরে চাকু দিয়ে ভয় দেখিয়ে বিষয়টি কাউকে না বলার জন্য হুমকি দেয়। শিশুটি বাড়িতে এসে সন্ধ্যায় অসুস্থ হয়ে পড়লে দাদি জিজ্ঞাসা করলে ধর্ষণের ঘটনাটি জানায়। পরে অসুস্থ শিশুটিকে গাইবান্ধা সদর আধুনিক হাসপাতালে ভর্তি করা হয়। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার শিশুটির দাদি ৬ মে বাদী হয়ে সদর থানায় একটি মামলা করেন। মামলা দায়েরের পর আসামি শাকিল গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপনে চলে যায়।

পরে গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-১৩ এর একটি দল রোববার রাতে লালমনিরহাটের পাটগ্রাম থানা এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে।

র‌্যাব-১৩ এর অধিনায়ক আরও জানান, অপরদিকে গত ৮ মে দুপুর ১টার দিকে দিনাজপুরের বিরল উপজেলার রাণীপুকুর ইউপির কাজিপাড়া গ্রামের তুলাই নদীর ঘাগরাগাছি ঘাট এলাকার নির্জন ভুট্টা ক্ষেতে নিয়ে প্রথম শ্রেণির এক শিশু কন্যাকে ধর্ষণ করে একই গ্রামের নওশাদের ছেলে আরিফুল ইসলাম (১৬)।

ধর্ষণের পর মেয়েটিকে নদীর পানিতে চুবিয়ে হত্যা চেষ্টার সময় স্থানীয় এক ব্যক্তি দেখে ফেলেন এবং শিশুটিকে তাকে উদ্ধার করে প্রথমে বিরল উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে এবং পরে দিনাজপুর এম আব্দুর রহিম মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করেন। এ ঘটনায় ধর্ষণের শিকার শিশুটির মা বাদী হয়ে ওই দিনই থানায় একটি মামলা দায়ের করেন।

মামলা দায়েরের পর আসামি আরিফুল গ্রেফতার এড়াতে আত্মগোপনে চলে যায়। গোয়েন্দা তথ্যের ভিত্তিতে র‌্যাব-১৩ এর সিপিসি-১ এর একটি দল রোববার রাতে বিরল থানাধীন এলাকায় অভিযান চালিয়ে তাকে গ্রেফতার করে।

প্রাথমিক জিজ্ঞাসাবাদে গ্রেফতারকৃত দুই আসামি ধর্ষণের বিষয়টি স্বীকার করেছে এবং তাদের বিরুদ্ধে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ প্রক্রিয়াধীন বলেও জানান এই র‌্যাব কর্মকর্তা।