নার্স তানিয়া ধর্ষণ-হত্যা মামলা: এবার জবানবন্দি দিলেন কাউন্টার মাস্টার রফিক

১০:৫২ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, মে ১৬, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ

এ.এম. উবায়েদ, কিশোরগঞ্জ প্রতিনিধি- কিশোরগঞ্জে নার্স শাহিনুর আক্তার তানিয়া ধর্ষণ ও হত্যা মামলায় স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দি দিয়েছেন বাসের কাউন্টার মাস্টার রফিকুল ইসলাম রফিক (৩০)।

বুধবার (১৫ মে) বিকেলে অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আল-মামুন এর কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন রফিকুল। জবানবন্দি শেষে তাকে কিশোরগঞ্জ জেলা কারাগারে পাঠানো হয়।

এর আগে, বুধবার (১৫ মে) বিকেলে অত্যন্ত গোপনীয়তার সঙ্গে রফিকুল ইসলাম রফিকে কিশোরগঞ্জ আদালতে নিয়ে আসে পুলিশ। কিশোরগঞ্জ আদালত পরিদর্শক মো. তফিকুল ইসলাম তৌফিক বিষয়টি নিশ্চিত করেছেন।

এদিকে ৮ দিনের রিমান্ডে থাকা অপর দুই আসামি খোকন মিয়া (৩৮) ও বকুল মিয়া ওরফে ল্যাংড়া বকুলকে (৫০) রিমান্ড শেষে একই আদালতে হাজির করা হয়। পরে আদালতের বিচারক উভয়কে কিশোরগঞ্জ জেলা কারাগারে পাঠানোর আদেশ দেন।

পরিদর্শক সারোয়ার বলেন, আট দিনের রিমান্ড শেষে রফিকুলকে বুধবার বিকালে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত মুখ্য বিচারিক হাকিম আল মামুনের আদালতে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন।

পরিদর্শক সারোয়ার বলেন, খোকন ও বকুলের কাছে গুরুত্বপূর্ণ তথ্য পাওয়া গেছে। দ্রুতই বাকি আসামিদের আটক করে আদালতে অভিযোগপত্র দেওয়া সম্ভব হবে।

কিশোরগঞ্জের পুলিশ সুপার (এসপি) মো. মাশরুকুর রহমান খালেদ বলেন, ঘটনার সঙ্গে কারা কারা জড়িত ছিল এবং তানিয়াকে কিভাবে বাস থেকে নামিয়ে কটিয়াদী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে নেওয়া হয়-এর বিবরণ দেন রফিক। তবে তিনি নিজে ধর্ষণ বা হত্যাকান্ডে জড়িত থাকার কথা অস্বীকার করেন।

এর আগে শনিবার (১১ মে) বাসের চালক নূরুজ্জামান নুরু (৩৯) কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আল-মামুন এর কাছে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন। এরপর মঙ্গলবার (১৪ মে) বিকেলে অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আল-মামুনের কাছে তানিয়াকে ধর্ষণের পর হত্যার দায় স্বীকার করে ১৬৪ ধারায় জবানবন্দি দেন স্বর্ণলতা বাসের হেলপার
লালন মিয়া (৩২)।

এর আগে বুধবার (৮ মে) বিকেলে কিশোরগঞ্জের অতিরিক্ত চিফ জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আল-মামুন রিমান্ড শুনানি শেষে পাঁচ আসামির প্রত্যেকের আট দিন করে রিমান্ড মঞ্জুর করেন।