সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১৩ই জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মিয়ানমারে নামাজের তিনটি স্থান বন্ধ করে দিল বৌদ্ধরা!

২:৪৭ পূর্বাহ্ণ | শনিবার, মে ১৮, ২০১৯ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক :: মিয়ানমারের ইয়াঙ্গুনের সাউথ ডাগোন টাউনশিপে রমজান মাস উপলক্ষ্যে নামাজের যে তিনটি অস্থায়ী জায়গা তৈরি করা হয়েছিল, বৌদ্ধ জাতীয়তাবাদীদের হুমকির পর সেগুলো বন্ধ করে দেয়া হয়েছে। ওই এলাকার প্রশাসনিক কর্মকর্তা এ তথ্য জানান।

সাউথ ডাগোন টাউনশিপের কর্মকর্তাদের মতে, রমজান মাসে ওই জায়গাগুলোতে নামাজের জন্য ব্যবহারের ব্যাপারে চুক্তি করেছিল স্থানীয় ইসলামি নেতারা। সাউথ ডাগোন টাউনশিপের ১০৬ নং কোয়ার্টারের অধিবাসী ও ঘটনার প্রত্যক্ষদর্শী উ ইয়ান অং বলেন, “তারা (বৌদ্ধ জাতীয়তাবাদী) হঠাৎ করে উদয় হয়ে এই জায়গায় নামাজকে অবৈধ ঘোষণা দেয়। আমরা আগে থেকেই অফিশিয়াল অনুমতি নিয়েছিলাম। যেহেতু এই জায়গায় নামাজ বন্ধ করে দিতে হয়েছে, তাই আমাদের অবাক লাগছে এরা কি প্রশাসনের চেয়েও শক্তিশালী কি না”।

সাউথ ডাগোন টাউনশিপে উ মাউং মাউংয়ের মালিকানাধীন ২৬ নং কোয়ার্টারের একটি বিল্ডিং, উ তিন সো’র মালিকানাধিন ৬৪ নং কোয়ার্টারের একটি বাড়ি এবং উ মাইন্ত লিউয়িনের মালিকানাধিন ১০৬ নং কোয়ার্টারের একটি বাড়িতে রমজান মাসে নামাজের জন্য অনুমতি দিয়েছিল ইয়াঙ্গুনের আঞ্চলিক সরকার।

উ ইয়ান অং বলেন যে, আনুষ্ঠানিকভাবে এই অনুমতি দেয়া হয় যে এখানে ৬ মে থেকে ৭ জুন পর্যন্ত নামাজ পড়া যাবে। নিরাপত্তার কারণে নাম প্রকাশ না করার শর্তে একজন প্রশাসনিক কর্মকর্তা বলেন, বৌদ্ধ উগ্রপন্থীরা ১৪ মে ২৬ নং কোয়ার্টারে জড়ো হয়ে নামাজের জায়গাটি বন্ধের দাবি জানায়। পরদিন ৬৪ নং ও ১০৬ নং কোয়ার্টারে গিয়েও তারা একই দাবি জানায়।

তিনি বলেন, কিছু উগ্র জাতীয়তাবাদী নামাজের জায়গার ভেতরে ঢুকে ছবি তোলে এবং বাকিরা বাইরে ঘিরে রেখে সেটা বন্ধ করে দেয়ার দাবি জানায়। উগ্র জাতীয়তাবাদীদের নেতৃত্ব দেন উ মিখাইল কিয়াও মাইন্ত। তিনি বলেন বাড়িতে মুসলিমদের নামাজ পড়া গ্রহণযোগ্য নয়। এবং অন্যান্য কোয়ার্টারে গিয়েও তারা একই কাজ করবে।

উ মিখাইল কিয়াও মাইন্ত বলেন, “কে এই বাড়িগুলোকে মসজিদ হিসেবে ব্যবহারের অনুমতি দিয়েছে? কে এই নিয়ম লঙ্ঘন করছে, যেটার কোন অনুমোদন নেই? তারা এটার অনুমতি দিতে পারে, কিন্তু আমরা দিবো না। আমরা টাউনশিপে আরও এ ধরনের জায়গা খুঁজে বের করে সেগুলো বন্ধ করে দেবো”।