• আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ট্রেনে কাটা পড়া ভিক্ষুকের ব্যাগে মিলল ৮০ হাজার টাকা

১২:৪৩ পূর্বাহ্ণ | বৃহস্পতিবার, মে ২৩, ২০১৯ রাজশাহী
bag

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ পেশাদার ভিক্ষুক ছিলেন খোকা মোল্লা (৬৫)।ভিক্ষা করে পাওয়া টাকা রাখতেন একটি থলেতে। ভিক্ষার ওই থলেটি কখনো স্ত্রী ও সন্তানদের দেখতে দিতেন না খোকা। রাতে ঘুমানোর সময়ও সেটি তার মাথার কাছে থাকতো। সেই থলে রক্ষা করতে গিয়েই ট্রেনে কেটে মৃত্যু হয়েছে খোকা মোল্লার। থলে খুলে মিলেছে ভিক্ষার ৮০ হাজার ১৯০ টাকা।

প্রত্যক্ষদর্শীরা জানান, বুধবার দুপুরে গাইবান্ধার বোনারপাড়া থেকে বগুড়ার সান্তাহারগামী ট্রেনটি সুখানপুকুর রেল স্টেশনে থামলে ওই ভিক্ষুক ট্রেনে ওঠেন। এরপর ট্রেন ছাড়লে ঝাঁকুনিতে ওই ভিক্ষুকের হাতে থাকা ব্যাগটি নিচে পড়ে যায়। এ সময় ভিক্ষুক খোকা মোল্লা ট্রেন থেকে নামার চেষ্টা করেন। তখন ট্রেন থেকে পড়ে ঘটনাস্থলেই তার মৃত্যু হয়। স্থানীয় লোকজন ভিক্ষুকের মরদেহের পাশে একটি ব্যাগ দেখতে পান। ওই ব্যাগে প্রচুর টাকা দেখে স্টেশন মাস্টারের কাছে জমা দেন তারা।

গাবতলী উপজেলার সোনারায় ইউনিয়নের ৯নং ওয়ার্ডের ইউপি সদস্য আবুল কালাম আজাদ বাদল বলেন, ভিক্ষুকের ব্যাগে খুচরা ও টাকার নোট ছিল। যা গণনা করতে প্রায় ৩ ঘণ্টা সময় লেগেছে। ভিক্ষুকের ব্যাগে ৮০ হাজার ১৯০ টাকা পাওয়া গেছে।

বগুড়া রেল স্টেশন পুলিশ ফাঁড়ির ইনচার্জ উপপরিদর্শক (এসআই) কায়কোবাদ ও স্বজনরা জানান, দীর্ঘ ২৫ বছর ভিক্ষাবৃত্তি করে জীবিকা নির্বাহ করতেন খোকা। তার স্ত্রী ও দুই ছেলেমেয়ে তার ভিক্ষার ওপর নির্ভরশীল ছিল।

বুধবার সকাল সোয়া ৯টার দিকে খোকা সুখানপুকুর স্টেশনে বগুড়াগামী কলেজ ট্রেনের দুই বগির সংযোগে উঠে বসেন। এ সময় ভিক্ষার থলেটি তার কাঁধে ছিল। ট্রেন প্লাটফর্ম ছাড়ার সময় ঝাঁকুনিতে থলেটি নিচে পড়ে যায়। থলে উদ্ধারে খোকা মোল্লাও লাফ দেন।

এ সময় ট্রেনে কাটা পড়ে তার মৃত্যু হয়। ওই থলেতে ভিক্ষার ৮০ হাজার ১৯০ টাকা পাওয়া যায়। এ টাকা তার স্ত্রী ও সন্তানদের দেওয়া হয়েছে। পরে প্রশাসনের অনুমতিতে ময়নাতদন্ত ছাড়াই তার লাশ গ্রামের গোরস্থানে দাফন করা হয়।