স্থাপত্যশৈলীর অনন্য নিদর্শন চাঁদপুরের কাজী আলী হোসেন জামে মসজিদ

৬:০৬ অপরাহ্ণ | শনিবার, মে ২৫, ২০১৯ চট্টগ্রাম, দেশের খবর

আশিক বিন রহিম, চাঁদপুর প্রতিনিধি- অপরূপ সুন্দর আর দৃষ্টিনন্দন স্থাপত্যশৈলীর অন্যতম নিদর্শন হিসেবে প্রতিষ্ঠালাভ করতে যাচ্ছে চাঁদপুর শহরতলির তরপুরচন্ডীতে বিটি রোডে অবস্থিত কাজী আলী হোসেন জামে মসজিদ।

ভারতের আগ্রায় সম্রাট শাহাজাহানের বিখ্যাত তাজ মহলের পাশে অবস্থিত মসজিদের আদলে নির্মাণ করা হয়েছে এই মসজিদটি।

ঢাকাস্থ প্রিন্স গ্রুপের মালিকগণ তাদের মরহুম পিতার নামে প্রায় আড়াই কোটি টাকা ব্যয়ে অত্যাধুনিক ও মার্বেল পাথরে দোতলা এই মসজিদটি নির্মাণ করেছে।

আকাশ ছোঁয়া সবুজ গাছগাছালীর মাথার উপর দিয়ে উঁকি দেয়া সুউচ্চ ৫ গম্বুজ বিশিষ্ট মসজিদটির নির্মাণকৌশল অত্যান্ত নয়নাভিরাম, আকর্ষণীয়। যার ভেতর-বাহিরের কারুকার্য সম্মলিত প্রতিটি দেয়ালে দেয়ালে লাল আর সাদা রংয়ের খচিত প্রলেপে চোখ জুড়ানো ঝিলিক ছড়ায়। ফলে দূর থেকে যে কেউ এই স্থাপনাটির গায়ে দৃষ্টি রাখলে মনে এক ভিন্নরকম সুখানুভূতি পাবে।

মসজিদটিতে একসাথে ৫ শ’ মুসল্লীর নামাজ আদায় করার ব্যবস্থা করা হয়েছে। দ্রুম নির্মাণ কাজ সম্পন্ন হওয়া পথে এই মসজিদটিতে ১ টি দরজা ও ২৪ টি জানালা ও ৩০ আসন বিশিষ্ঠ টাইস করা ওজুখানা ও ৬টি ওয়াসরুম রয়েছে। এছাড়াও মসজিদের পাশে রয়েছে একটি অত্যাধুনিক এতিমখানা। এতে ১ শ’ শিক্ষার্থী পড়ার সকল প্রকার সুযোগ সুবিধা থাকবে।

প্রসঙ্গত, ঢাকার মিরপুরস্থ প্রিন্স গ্রুপের চেয়ারম্যান চাঁদপুরের কৃতি সন্তান আলহাজ্ব কাজী রুহুল আমিন সেবাধর্মী চিন্তায় চাঁদপুরের তরপুরচন্ডী নামের নিজ গ্রামের বাড়িতে মসজিদ ছাড়াও ৬ কোটি টাকা ব্যয়ে আরও ৩ টি সেবামূলক প্রতিষ্ঠান নির্মাণ করেছেন।

প্রতিষ্ঠানগুলো হলো: কাজী লজ্জাতুন নেছা মেমোরিয়ার হাসপাতাল, হাফেজিয়া মাদ্রাসা ও এতিম খানা, এবং ৪০টি দোকান সম্মলিত একটি বাজার।

কিভাবে যাবেনঃ

চাঁদপুর শহর থেকে সিএনজি কিংবা অটোরিক্সা যোগে খুব সহজেই যাওয়া যায় তরপুরচন্ডীতে বিটি রোডে অবস্থিত কাজী আলী হোসেন জামে মসজিদ ও কাজী লজ্জাতুন নেছা মেমোরিয়ার হাসপাতালে।