• আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা

১:৩৯ অপরাহ্ণ | সোমবার, মে ২৭, ২০১৯ ফিচার

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- ফেনীর মাদ্রাসাছাত্রী নুসরাত জাহান রাফি হত্যায় ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনের মামলায় সোনাগাজী মডেল থানার ওসি (প্রত্যাহার) মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করা হয়েছে।

সোমবার দুপুর ১টায় মামলার তদন্ত প্রতিবেদন দাখিল ও গ্রেফতারি পরোয়ানা জারির আবেদনের শুনানি শেষে ঢাকার সাইবার ট্রাইব্যুনালের বিচারক আসলাম জগলুল হোসেন ওসি মোয়াজ্জেমের বিরুদ্ধে গ্রেফতারি পরোয়ানা জারি করেন।

এর আগে গতকাল তার বিরুদ্ধে সব অভিযোগের সত্যতা পাওয়ার কথা জানায় পুলিশ ব্যুরো অব ইনভেস্টিগেশন (পিবিআই)।

ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমনের ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে করা মামলার তদন্ত শেষে এই প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করেন পিবিআই সদর দফতরের সিনিয়র এএসপি রিমা সুলতানা।

এএসপি রিমা সুলতানা বলেন, গত ১৫ এপ্রিল ফেনীর সোনাগাজী মডেল থানা পুলিশের সাবেক ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে ডিজিটাল নিরাপত্তা আইনে একটি মামলা দায়ের করেন ব্যারিস্টার সৈয়দ সায়েদুল হক সুমন।

ডিজিটাল নিরাপত্তা আইন ২০১৮ এর ২৬, ২৯ ও ৩১ ধারায় করা অভিযোগটি পিটিশন মামলা হিসেবে গ্রহণ করে পিবিআইকে তদন্তের নির্দেশ দেন আদালত। তদন্তে আমরা প্রত্যেকটি অভিযোগের সত্যতা পেয়েছি। তদন্তে প্রমাণিত সব তথ্য উপাত্তসহ প্রতিবেদন আদালতে দাখিল করা হয়েছে।

এর আগে গত ১৫ মে পিবিআই প্রধান উপ-মহাপরিদর্শক (ডিআইজি) বনজ কুমার মজুমদার জানিয়েছেন, ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে নুসরাতের জবানবন্দি মোবাইলে রেকর্ড করে ছড়িয়ে দেওয়ার অভিযোগের সত্যতা পাওয়া গেছে। শিগগিরই এ বিষয়ে আদালতে প্রতিবেদন জমা দেওয়া হবে।

নুসরাতকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় অভিযুক্ত সবাইকে গ্রেফতার করা হয়েছে। সবকিছু ঠিক থাকলে মে মাসের মধ্যেই মামলার চার্জশিট আদালতে জমা দেওয়ার কথাও জানান তিনি।

এদিকে, নুসরাতকে পুড়িয়ে হত্যার ঘটনায় ওসি মোয়াজ্জেম হোসেনের বিরুদ্ধে দায়িত্বে অবহেলার সত্যতা মিলেছে আগেই। পুলিশের বিভাগীয় ব্যবস্থার অংশ হিসেবে ইতোমধ্যে মোয়াজ্জেমকে সাময়িক বরখাস্ত করে রংপুর রেঞ্জে সংযুক্ত করা হয়েছে।

একই অভিযোগে ফেনী জেলার পুলিশ সুপার (এসপি) জাহাঙ্গীর আলম সরকারকে প্রত্যাহার করে পুলিশ সদর দফতরে সংযুক্ত করা হয়েছে।

অভিযুক্ত এসআই মো. ইউসুফকে খুলনা রেঞ্জ ডিআইজি কার্যালয় এবং এসআই মো. ইকবাল আহাম্মদকে খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলায় সংযুক্ত করা হয়েছে।