রাজবাড়ীতে সরকারিভাবে ধান কেনা শুরু হলেও হতাশা কাটেনি কৃষকদের

৫:১৯ অপরাহ্ণ | সোমবার, মে ২৭, ২০১৯ ঢাকা, দেশের খবর

রাজু আহমেদ, ষ্টাফ রিপোর্টার: চলতি বছর রাজবাড়ী জেলার পাঁচটি উপজেলায় মোট ৮৩ হাজার মেট্টিক টন ধান উৎপাদন হলেও সরকারি সিদ্ধান্ত মোতাবেক জেলার পাচটি উপজেলা থেকে মাত্র ৪ শত মেট্টিক টন ধান ক্রয় করার ঘোষনায় চরম হতাশা ও ক্ষোভ বিরাজ করছে জেলার কৃষকদের মাঝে।

যদিও রাজবাড়ী- ১ আসনের সংসদ সদস্য আলহাজ্ব কাজী কেরামত আলী উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে দাবী জানিয়েছেন, যাতে আরও কিছু পরিমান ধান ক্রয়ের সিদ্ধান্ত বাড়ানো হয়।

এদিকে কৃষকদের অভিযোগ, জেলায় মোট উৎপাদনের তুলনায় সরকারিভাবে এই সামান্য ধান ক্রয়ের নামে কৃষকদের সাথে প্রহসন করা হচ্ছে। এছাড়া এ ধান ক্রয়ের সুবিধা শুধুমাত্র জেলার রাজনৈতিক নেতাগণ ও সরকারী উর্ধতন কর্মকর্তাদের আশির্বাদ পুষ্টরাই পাচ্ছেন, ফলে সাধারণ ও প্রকৃত কৃষকেরা এই সুবিধা থকে বঞিতই হচ্ছেন।

উল্লেখ্য, রোববার সকালে রাজবাড়ীর ভারপ্রাপ্ত জেলা প্রশাসক মোঃ আলমগীর হোসেন, জেলা খাদ্য নিয়ন্ত্রক মুন্সি মজিবুর রহমানের উপস্থিততে সারাদেশের ন্যায় রাজবাড়ীতেও সরাসরি কৃষকের নিকট থেকে সরকারিভাবে ধান ক্রয় শুরু হয়েছে।

রাজবাড়ীর খাদ্য গুদামে কৃষকদের কাছ থেকে সরাসরি ধান ক্রয় কার্যক্রমের উদ্বোধন করেন রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী।

এ সময় রাজবাড়ী-১ আসনের সংসদ সদস্য কাজী কেরামত আলী সাংবাদিকদের বলেন, রাজবাড়ীতে এ বছর ৮৩ হাজার মেট্টিক টন ধান উৎপাদন হয়েছে। সরকারী সিদ্ধান্ত মোতাবেক এ জেলার পাচটি উপজেলা থেকে মাত্র ৪ শত মেট্টিকটন ধান ক্রয় করা হবে যা উৎপাদনের তুলনায় একেবারেই নগন্য। আমরা উর্দ্ধতন কর্তৃপক্ষের কাছে দাবী জানিয়েছি, যাতে এই ধান ক্রয়ে আরও কিছু পরিমান বাড়ানো হয়। এই ধান ক্রয়ের ক্ষেত্রে সরকারের সকল নিয়ম মেনেই ক্রয় করা হবে বলেও জানান এই সংসদ সদস্য।