সংবাদ শিরোনাম
মহিলাকে রাম দা দেভিয়ে ফেঁসে গেলেন যুবলীগ নেতা! | মেয়ের বাড়িতে মিলিত হতে গিয়ে আপত্তিকর অবস্থায় ধরা পড়ল যুবক! | ঘরের দরজা খুলে গৃহবধূর মুখ চিপে চারজন মিলে পালাক্রমে গনধর্ষণ! | ১০ বছরের শিশুকে সুপারি বাগানে নিয়ে ধর্ষণচেষ্টা চালাল রিক্সা চালক! | গায়ে হলুদের অনুষ্ঠানে অশ্লীল নৃত্য ও মদের আসরের প্রতিবাদ করায় প্রবাসীকে পিটিয়ে হত্যা! | ভারতের কাছে পাকিস্তানের লজ্জার হার! | আমেরিকার ঘুম হারাম করতে অবাক করা খবর দিলেন এরদোগান! | জাদুর খেলা দেখাতে গিয়ে মাঝনদীতে ‘ভ্যানিস’ জাদুকর! | মুক্তিযুদ্ধে চেতনা ও দক্ষতা বিবেচনায় পদোন্নতির নির্দেশ প্রধানমন্ত্রীর | রাজবাড়ীতে ইউপি চেয়ারম্যান কালাম মৃধাকে কুপিয়ে যখম |
  • আজ ৩রা আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

নৌরুটে যানবাহন ও যাত্রী সঙ্কট: গাড়ীর অপেক্ষায় ফেরী! যাত্রীর অপেক্ষায় লঞ্চ!

১:১৪ অপরাহ্ণ | শনিবার, জুন ১, ২০১৯ ঢাকা, স্পট লাইট

মোঃ রুবেল ইসলাম তাহমিদ, লৌহজং (মুন্সীগঞ্জ) প্রতিনিধি :: গেল মাত্র এক দিনের ব্যবধানেই পাল্টে গেছে শিমুলিয়া ঘাটের চিত্র। একেবারেই ভিন্নরকম অবস্থা দেখা দিয়ে ফাঁকা হয়ে উঠেছে শিমুলিয়া ফেরীঘাট। ফাঁকা ঘাটে এখন ফেরী পারাপারের গাড়ীর সঙ্কট। পারাপারের যানবাহনের অপেক্ষায় রয়েছে পল্টুনে ভেরানো অলস ফেরীগুলো।

প্রতি বছর যেখানে প্রতি ঈদে যাত্রীবোঝাই যানবাহনের ভীড়ে হিমশিম খেতে হতো শিমুলিয়া ফেরীঘাট কর্তৃপক্ষকে তার বিপরীতে সেখানে ফেরী পারাপারে শনিবার সকাল থেকে সারাদিন বাস প্রাইভেটকারসহ যানবাহনের কোন চাপই ছিল না মাওয়াঘাটে। তবে ফেরী কর্তৃপক্ষের দাবী ১৮টি ফেরীই নৌরুটে চলাচল করায় এখানে দেখা দিয়েছে যানবাহন স্বল্পতা।

ঈদে ঘরমুখো যাত্রী সাধারণের উপচে পড়া ভীড় আর অতিরিক্তি যানবাহনের চাপ নিয়ে ঘরমুখো যাত্রীদের নৌরুট পাড়ি দিতে যানবাহনের অভাববোধ করেছে ফেরীগুলো।আর এ নিয়ে সংশি¬ষ্ট একাধিক মহলে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে। তবে বেশীরভাগ সংশ্লিষ্ট মহলের ধারণা গতকাল গেল দিন শুক্রবার এ নৌপথে ব্যাপক চাপ দেখা দেওয়ার কারণে আজ শনিবার ঘাটে তেমন চাপ নেই।

ফেরীঘাট সংশ্লিষ্টরা বলছেন, ঘরমুখো অনেকেই নিজ প্রাইভেট গাড়ী না এনে বাসে করে ছুটে চলেছেন নিজ নিজ গ্রামে। নয়তো বিকল্প পথে পাটুরিয়া – দৌলতদিয়া পথহয়ে ছুটছেন ঘরমুখো দক্ষিণ পশ্চিমাঞ্চলের যাত্রীসাধারণ।

এদিকে গতকাল শুক্রবারের ছুটিকে কেন্দ্র করে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত শিমুলিয়া ফেরীঘাটে ফেরী পারপারে যানবাহনের বাড়তি চাপ দেখা দিয়েছিল। এ সময় দক্ষিণবঙ্গগামী ভিআইপিসহ অনেক যাত্রী ও যানবাহন ভোর থেকেই ফেরীঘাটে হুমড়ি খেয়ে পড়ে। ফেরীঘাটে ফেরী পারাপারের লাইনে অপেক্ষায় থাকে দক্ষিণবঙ্গগামী শতাধিক পণ্যবাহী ট্রাকসহ সাড়ে ৮শতাধিক ছোট ছোট যানবাহন ও যাত্রীবাহী বাস। এতে করে সকাল থেকে দীর্ঘ যানজটে ঘাটে আটকে থাকা দক্ষিণবঙ্গের বিপুল সংখ্যক যাত্রী চরম দুর্ভোগে পড়েন। একপর্যায়ে ফেরী কর্তৃপক্ষ দিনভর চেষ্টা চালিয়ে যানবাহনের চাপ নিয়ন্ত্রণে আনতে সক্ষম হয়।

এদিকে শিমুলিয়াঘাটে ঈদের সামনে আজ শনিবার এ ভিন্ন পরিস্থিতিতে মিশ্র প্রতিক্রিয়া দেখা দিয়েছে খোদ ফেরী কর্তৃপক্ষ ও পুলিশ প্রশাসনের কর্মকর্তাদের মাঝে। যাত্রীবহনকারী যানবাহনের অভাবে গত বৃহস্পতিবার সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ফেরীগুলোতে ঘাটে অপেক্ষামান পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার করেছে।

নৌ-পরিবহন মন্ত্রণালয় থেকে প্রতি ঈদের আগে অন্তত ৭ দিন পণ্যবাহী ট্রাক ফেরী পারাপার বন্ধ রাখার সিন্ধান্ত দেয়া হয়ে থাকলেও যাত্রীবাহী যানবাহনের অভাবে সকাল থেকে দুপুর পর্যন্ত ফেরীগুলোতে ঘাটে অপেক্ষামান এই পণ্যবাহী ট্রাক পারাপার করেই কর্মচাঞ্চল্য রাখতে হয়েছে নৌরুট।

শিমুলিয়া (মাওয়া) বিআইডবি¬উটিসির সহকারী মহাব্যবস্থাপক নাসির মোহাম্মদ চৌধুরী জানান, গতকাল শুক্রবার এ নৌপথে ব্যাপক চাপ দেখা দেওয়ার কারণে আজ শনিবার ঘাটে তেমন চাপ নেই।আবার সামান্য বৃষ্টি হওয়ায় ঘাটে যানবাহনের চাপ দেখা যাচ্ছে না। যানবাহনের অভাবে ঘন্টার পর ঘন্টা উল্টো পারাপারের অপেক্ষামান এখন ফেরীগুলোই। ঘাটে অলস বসে আছে ফেরী। পারাপারের জন্য নেই যানবাহন।

বিআইডবি¬উটিসির মেরিন অফিসার মোঃ আহম্মদ আলী জানান, ঘাটে পর্যাপ্ত ফেরী রয়েছে। নেই শুধু পারাপারের যানবাহন।তাই বাধ্য হয়ে ট্রাক পারাপার করছি। এ ব্যাপারে হাইওয়ে পুলিশের টি আই হিলাল উদ্দিন, জানান, আজ যানবাহনের চাপ না দেখা দিলেও আগামী করেক দিন ব্যাপক চাপ দেখা দিতে পারে।