দীর্ঘ ১৮ বছরেও শুরু হয়নি গোপালগঞ্জের বানিয়ারচর গীর্জায় বোমা হামলার বিচার

৬:৪৮ অপরাহ্ণ | সোমবার, জুন ৩, ২০১৯ ঢাকা
boms

এইচ এম মেহেদী হাসানাত, ষ্টাফ রিপোর্টার,গোপালগঞ্জ- আজ ৩রা জুন গোপালগঞ্জের মুকসুদপুর উপজেলার বানিযারচর গীর্জা ট্রাজেডি দিবস। ২০০১ সালের এই দিনে ভয়াবহ বোমা হামলায় গীর্জায় প্রার্থনারতঃ খ্রীষ্টান সম্প্রদায়ের ১০ জন নিহত ও আরো অর্ধশত মানুষ আহত হয়। দীর্ঘ দেড় যুগেও বিচার কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় ক্ষোভ আর হতাশা নিয়ে দিন পার করছে নিহতদের স্বজনরা।দ্রুত এ হত্যাকান্ডের বিচারের দাবী জানিয়েছে নিহতদের স্বজন ও এলাকাবাসী।

দীর্ঘ ১৮ বছর অতিবাহিত হলেও বানিয়ারচর গীর্জায় বোমা হামলার চার্জ শিট দিতে পারেনি সিআইডি। আর এ কারনে নিশংস এই বোমা হামলা মামলার বিচার কাজই এখনো শুরু হয়নি।

বিগত ১৮বছর পার করে দিলো শুধু স্বজনদের হত্যার বিচারের আশায়।বোমা হামলায় নিহত অনেকের বাবা-মা এখন ভাল করে কথা বলতেও পারেন না। তারপরও আশায় বুক বেঁধে আছেন, হত্যাকারীদের দৃষ্টান্ত মূলক শাস্তি কবে হবে এই আশায়।

২০০১ সালের এই দিনে বানিয়ারচর গীর্জায় সাপ্তাহিক প্রাথর্না চলাকালে বোমা হামলা চালায় জঙ্গী সংগঠন হরকত-উল-জিহাদ।এতে নিহত হন ১০জন আর আহত হন অর্ধ-শতাধিক।সেদিনের কথা মনে করে এখনো শিউরে ওঠেন নিহত পরিবারের সদস্যরা।কিন্তু, হত্যাকান্ডের দেড় যুগ পার হলেও বিচার কাজ সম্পন্ন না হওয়ায় বাড়ছে ক্ষোভ আর হতাশা।দ্রুত এসব হত্যাকান্ডের বিচার কাজ শেষ করার দাবী জানিয়েছেন নিহেতদের স্বজনরা।

এদিকে, হত্যাকান্ডের ঘটনায় দায়ের করা দুটি মামলার আসামী হরকত-উল-জেহাদ নেতা মুফতি আব্দুল হান্নান মুন্সীর ফাঁসি হলেও বেশ কয়েকজন জঙ্গি সদস্যকে গ্রেপ্তার করা হয়েছে।আর এসব মামলায় এখন পর্যন্ত ২২ বার তদন্তকারী কর্মকর্তা বদল হলেও অভিযোগ গঠন করা সম্ভব হয়নি সিআইডির পক্ষ থেকে। দ্রুত এ মামলার বিচার কাজ শেষ করার দাবী এলাকাবাসীর।

দিবসটি পালন উপলক্ষে বানিয়ার চর গীজায় প্রার্থনাসহ নানা কর্মসূচী নেওয়া হয়েছে বলে জানালেন গীর্জার ফাদার ফরেজা রোম রিকো গমেজ। তিনি জানান, প্রার্থনা ছাড়াও এদিন বিকেলে মঙ্গল শোভাযাত্রা, কবরে পুস্পস্তবক অর্পন ও মোমবাতি প্রজ্জলন ও আলোচনা সভার আয়োজন করা হযেছে। এসব অনুষ্ঠানে নিহতদের আত্মীয় স্বজন ও স্থানীয় খৃষ্ট ধর্মীয় লোকজন উপস্থিত থাকবেন।

গোপালগঞ্জ জেলা ও দায়রা জজ আদালত-এর পাবলিক প্রসিকিউটর (পিপি) অ্যাডভোকেট মোঃ আব্দুল হালিম বলেন সিআইডি দ্রুত তদন্ত শেষ করে চার্জশিট জমা দিলে বিচার কাজ সম্পন্ন করা সম্ভব হবে। তিনি বলেন ১৮ বছর পেরিয়ে গেলেও সিআইড এখন পর‌্যন্ত এ মামলার চার্জশীট আদালতে দাখিল করতে পারেনি।,

সিআইডি-র গোপালগঞ্জ ক্যাম্প ইনচার্জ, পরিদর্শক ফতেহ মোঃ ইফতেখারুল আলম জানান, এ মামলা দু’টিতে বেশ কয়েকজন জঙ্গী সদস্যরা গ্রেফতার হয়েছে। তদন্ত কাজ চলছে। যত দ্রুত সম্ভব তারা এ মামলার চার্জশীট আদালতে দাখিল করবেন বলে জানান।

মৃত্যুর আগে যেন সন্তান হত্যার বিচার দেখে যেতে পারেন এমনটাই চাওয়া বোমা হামলায় স্বজন হারানো পরিবারের সদস্যদের।