বাস মালিক-শ্রমিকদের কাছে জিম্মি নওগাঁর যাত্রীরা, ৪০০ টাকার ভাড়া ৮০০ টাকা!

৫:১৪ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, জুন ১১, ২০১৯ দেশের খবর, রাজশাহী

নাজমুল হক নাহিদ, নওগাঁ প্রতিনিধি- নওগাঁ থেকে ঈদ শেষে দেশের বিভিন্ন স্থানের কর্মস্থলে ফেরা যাত্রীরা বাস মালিকদের কাছে জিম্মি হযে পড়েছে। অতিরিক্ত ভাড়া আদায়ের অভিযোগ করেছেন যাত্রীরা।

ঈদের ছুটি শেষে কর্মস্থলে ফেরা মানুষদের জিম্মি করে ঢাকা, চট্টগ্রামসহ বিভিন্ন স্থানে যাত্রাগামী যাত্রীদের কাছ থেকে সব ধরনের যানবাহনগুলো ভাড়া দুই থেকে তিনগুন বেশি আদায়ের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

অপরদিকে কালো বাজারে টিকিট বিক্রি হওয়ার কারনে কাউন্টারগুলোতে ধর্না দিয়েও মিলছে না একটা টিকিট। কিন্তু টাকার অংক বৃদ্ধি করতে চাইলে গোপনে টিকিট বিক্রি করা হচ্ছে। সেই টিকিকে টাকার অংশ ফাঁকা রেখে টিকিট দেওয়া হচ্ছে।

কর্মস্থলে ফেরা যাত্রী আপেল মাহামুদ জানান, ফোনে বা টিকিট কাউন্টারে ধর্না দিলে কোনো টিকিট না পেয়ে পরে রকি এন্টারপ্রাইজ থেকে ৪০০শত টাকার ভাড়া ৮০০শত টাকা দিয়ে টিকিট নিয়েছেন।

তিনি আরো বলেন, ঈদের সময় প্রতি বছর যাত্রীদের কাছে থেকে ভাড়া বেশী নেওয়া হয়। ঈদের সময় সাধারন মানুষ যেনো বাস মালিকদের কাছে জিম্মি হয়ে যায়। প্রশাসন যদি দুই ঈদে সাধারন যাত্রীদের পাশে থাকতেন তাহলে যাত্রীদের ভাড়া বেশী দিতে হত না এবং এত ভোগান্তী পোয়াতে হয় না।

এস আর ট্যাভেস এসি বাসে ঈদের আগে ভাড়া ১১শত টাকার ভাড়া বৃদ্ধি করে ১৮শত টাকা নেওয়া হচ্ছে। আর নন এসি বাসের ভাড়া দ্বিগুন করার অভিযোগ পাওয়া গেছে। শ্যামরী এন্ট্যারপ্রাইজেরও ভাড়া বেশী নেওয়ার অভিযোগ পাওয়া গেছে।

এবার ঈদে নাড়ির টানে বাড়ি ফেরা মানুষ ঈদের পরের দিন থেকে আস্তে আস্তে কর্মস্থলে ফিরতে শুরু করলে আজ মঙ্গলবার ঈদের ৭দিন পরেও সকল বাস কাউন্টারে মানুষের ভিড় দেখেই যানবাহনের ভাড়া দুই থেকে তিনগুন ভাড়া বৃদ্ধি করা হয়েছে। এতে যাত্রীরা পরেছেন চরম বিপাকে এবং টিকিট কিনতে গিয়ে কাউন্টারে ভাড়া বেশী গুনতে হচ্ছে যাত্রীদের।

আতোয়ার হোসেন নামের ঢাকাগামী এক যাত্রী বলেন, ঈদের আগে ঢাকা থেকে বাড়ী আসার সময় ভাড়া ছিলো ৪০০টাকা আর ঈদ শেষে কর্মস্থলে ফেরার সময় বাসের টিকিট কিনছি ৮০০টাকা দিয়ে। কিছু করার নেই কারন কর্মস্থলে পৌছাতে না পারলে চাকরী চলে যাবে তাই বাধ্য হয়েই বেশী দামে টিকিট কিনতে হলো।

এদিকে টিকিট কাউন্টার গিয়ে টিকিটের মূল্যে বৃদ্ধির কারণ জানতে চাইলে একজন টিকিট বিক্রেতা জানান, আমাদের বাস যাবার সময় যাত্রী নিয়ে যায় কিন্তু আবার ঢাকা থেকে ফেরার পথে খালি বাস ফিরে আসে তাই মালিক পক্ষের নির্দেশে টিকিটের মূল্য বৃদ্ধি করা হয়েছে। এ বেশী কিছু তারা জানেন না বলে জানান।

একজন বাস চালক বলেন, আমরা যাত্রী নিয়ে ঢাকা যাচ্ছি আর আসার সময় যাত্রী ছাড়া ফিরে আসতে হচ্ছে। তাই যাতায়াতের খরচ হিসাব করে ক্ষতি পুষিয়ে নিতে হচ্ছে অতিরিক্ত ভাড়ার মাধ্যমে।

নওগাঁ সদর বাস মালিক সমিতির অফিসে যোগায়োগ করতে গিয়ে দেখা যায় অফিস বন্ধ।