সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ১২ই আষাঢ়, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

৫১ বস্তা অবৈধ কারেন্টজাল উদ্ধার করে ৪২ বস্তা ৫লাখ টাকায় বিক্রি !

১১:৫৫ অপরাহ্ণ | বুধবার, জুন ১২, ২০১৯ ঢাকা

মোঃ রুবেল ইসলাম তাহমিদ,লৌহজং মুন্সিগঞ্জ প্রতিনিধিঃ মুন্সীগঞ্জে অবৈধ কারেন্ট জাল জব্দ করার এক ঘন্টা পরে সেই মালিকের কাছেই বিক্রি করেছে পুলিশ। ঘটনার সময় কার্তিক নামক এক সুইপার ছিল পুলিশের সাথে সহযোগি।

এ.এস আই খলিলুর রহমান, কনস্টবল কুদ্দুস ও সুইপার কার্তিক এই অভিযানের অংশ নেয়। ৫১ বস্তা অবৈধ কারেন্টজাল উদ্ধার করে ৪২ বস্তা কারেন্ট জাল ৫লাখ টাকায় বিক্রি করা হয়েছে বলে অভিযোগ পাওয়া গেছে। ঘটনাটি ঘটে  মঙ্গলবার (১১জুন) বিকাল ৫টায়।

একাধিক সূত্র থেকে জানা যায়, কারেন্টজালের মালিক আনোয়ার হোসেন পুলিশ সুপার বরাবর অভিযোগ করেন তার থেকে ৫১ বস্তা কারেন্ট জাল জব্দ করে ৪২ বস্তা কারেন্টজাল ৫লাখ টাকায় বিক্রি করা হয়েছে তার কাছেই ।

এস.আই খলিলুর রহমান জানান, ৯বস্তা কারেন্টজাল উদ্ধার করেছি। মালিকের নাম ঠিকানা কিছুই পাননি তিনি। পরবর্তীতে মালিকপক্ষ এসপি সাহেবের কাছে কিভাবে অভিযোগ দিল। ৫১ বস্তা কারেন্ট জালের মধ্যে থেকে ৪২ বস্তা কারেন্ট জাল তার কাছে ৫লাখ টাকায় বিক্রি করা হয়েছে এমন প্রশ্ন করা হলে কোন সদুত্তর দিতে পারেনি সে। সে চুপ হয়ে যান। সুধু বলেন ইউ এন ও  স্যারের  সামনে উপজেলা মাঠে ৯বস্তা কারেন্টজাল পুরিয়ে দিয়েছি বলেই   ফোন কেটে দেয়।  তারপর বার বার ফোন করেও তাকে  পাওয়া যায়নি ।

মুন্সীগঞ্জ জেলা পুলিশ সুপার জায়েদুল আলম পিপিএম জানান, আনোয়ার আমার কাছে একটি অভিযোগ দিয়েছে তবে ২২ বস্তা হইতে পারে ৫১বস্তা না। তবে আনোয়ারের অভিযোগের কথা বলার পরে তিনি জানান বিষয়টি তদন্ত হচ্ছে তদন্ত শেষে আইনগত ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

এ বিষয়ে  লৌহজং উপজেলা সুযোগ্য নির্বাহী অফিসার জনাব মোহাম্মদ কাবিরুল ইসলাম খান বলেন আজ উপজলোর মালির অংক বাজারে মুন্সীগঞ্জ থেকে আগত ঢাকা মেট্রো ড-১৪-৪২৬৫ নম্বর ট্রাক থেকে কারেন্ট জাল আটক করেন লৌহজং থানা পুলিশ।

এসময় মৎস্য রক্ষা ও সংরক্ষণ আইন, ১৯৫০ এর ৫ এর (খ) ধারা মোতাবেক কারেন্ট জাল পরবিহন এবং দন্ডবিধি ১৮৬০ এর ১৮৮ ধারা সরকারি আদেশ অমান্য করার অপরাধে মোবাইল কোট পরিচালনা করি মোবাইল কোর্টের মাধ্যেম মোঃ আল আমিন (৩৫), মোঃ দুলাল (৩৮) এবং মোঃ মাসুদ (৫২) প্রত্যক কে পাঁচহাজার  টাকা করে মোট ১৫, হাজার টাকা জরিমানা এবং ১০ দিন করে বিনাশ্রম কারাদন্ড প্রদান করা হয়।পরে সকলের উপস্থিতিতে আটককৃত ৯বস্তা কারন্টেজাল পুড়িয়ে ফেলা হয়।তিনি আরো বলেন মোবাইল কোর্ট পরচিালনায় সার্বিক সহযোগীতা করনে ইদ্রিস তালুকদার, সিনিয়র উপজলো মৎস্য র্কমর্কতা (অ: দা:), লৌহজং, এবং জনাব মোঃ খলিল, এ এস আই, লৌহজংথানা।