• আজ ৬ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

রেকর্ডের ছড়াছড়ি, সাকিবই এবারের বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড়!

১১:৪৬ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, জুন ১৮, ২০১৯ খেলা

স্পোর্টস আপডেট ডেস্ক- টনটনে ক্যারিবিয়ানদের রীতিমতো নাকানিচোবানি খাইয়ে ৭ উইকেটে ম্যাচ জিতে নেয় বাংলাদেশ। আর সেই ম্যাচের নায়ক সাকিব আল হাসান। ২টি উইকেট নেওয়ার পাশাপাশি ১২৪ রান করে অপরাজিতও থেকে যান সাকিব। আর এই ম্যাচের পরই শাকিবের নামের পাশে লেখা হয়ে গেল একাধিক রেকর্ড।

২০১৯ বিশ্বকাপে এখনও অবধি সর্বাধিক রান করলেন সাকিব। চলতি বিশ্বকাপে সাকিবের ব্যাট থেকে উঠে এসেছে ৩৮৪ রান। ৩৪৩ রান করে সাকিবের ঘাড়ে নিঃশ্বাস ফেলছেন অস্ট্রেলিয়ান অধিনায়ক অ্যারন ফিঞ্চ। তিন নম্বরে রয়েছেন রোহিত শর্মা। এই বিশ্বকাপে এখনও অবধি ৩১৯ রান করেছেন রোহিত শর্মা।

এই নিয়ে পর পর পাঁচটি ম্যাচে ৫০ রানের বেশি করলেন সাকিব। বাংলাদেশের ক্রিকেটার হিসেবে এটিও একটি রেকর্ড। এর আগে এমনতর রেকর্ড কেবল বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান তামিম ইকবালের ঝুলিতেই ছিল।

এদিন সাকিবের ১২৪ রান বিশ্বকাপে বাংলাদেশের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রান। এর আগে ২০১৫ সালের বিশ্বকাপে বাংলাদেশি ব্যাটসম্যান মহম্মদুল্লাহ রিয়াদ করেছিলেন ১২৮। সেটিই সর্বোচ্চ।

এখানেই শেষ নয়। রয়েছে আরও রেকর্ড। দ্রুততম ৬০০০ রানের গণ্ডি টপকালেন সাকিব। তামিম ইকবালের পর বাংলাদেশের ক্রিকেটার হিসেবে শাকিবই এমন নজির দেখালেন। তার থেকেও দ্রুততর ২৫০ উইকেট নিলেন শাকিব। চামিন্ডা বাসও এত তাড়াতাড়ি ২৫০ উইকেট তুলতে পারেননি।

বাকি রয়ে গিয়েছে আরও একটি রেকর্ড। অলরাউন্ডার হিসেবে খুবই দ্রুত ৬০০০ রান এবং ২৫০ উইকেট নিলেন সাকিব। জ্যাকস ক্যালিস, সনৎ জয়সূর্য এবং শাহিদ আফ্রিদিকে পিছনে ফেলে দিয়ে মাত্র ২০২ ম্যাচ খেলেই এই রেকর্ড গড়লেন সাকিব আল হাসান।

সাকিব কী বলছেন?

খেলা শেষে সংবাদ সম্মেলনে সাকিব বলেন, “আমার শুরু থেকে লক্ষ্য ছিলো মেরে খেলবো, যেখানে মারতে চাচ্ছিলাম যাচ্ছিলো, আমি বাজে বলের জন্য অপেক্ষা করছিলাম।”

আলাদাভাবে উইকেটের কথা বলেন সাকিব আল হাসান। তিনি বলেন, “উইকেট খুব ভালো ছিলো, আমরা যেভাবে চাইছিলাম ঠিক সেভাবেই ব্যাট করতে পারছিলাম।”

তবে সাকিব মনে করেন আজকের এই জয় ৩০০ বা ৩৫০ এর মতো লক্ষ্য তাড়া করতে আত্মবিশ্বাস যোগাবে। তিনি বলেন, “অনেক সময় ভালো অবস্থাতে থেকে রান করা সম্ভব হয়নি, এখন হচ্ছে চাইছি ধারাবাহিক থাকতে। একজন ব্যাটসম্যান টানা ভালো খেললে এটাই স্বাভাবিক ব্যাপার হয়ে যায়, ব্যাটে ভালো বল আসছে, চেষ্টা থাকবে সর্বোচ্চ দেওয়ার।”

তবে সাকিবের মতে এইরকম জায়গায় মানসিক শক্তিটাই সবচেয়ে বড় ব্যাপার। তিনি বলেন, এরকম মঞ্চে ব্যাট বা বল যাই করেন, সেখানে মানসিক শক্তিটা প্রয়োজন। আমার মনে হয় কেউ নিজের মধ্যে হেরে গেলে আর পারে না।

Loading...