গভীর রাতে ঢাবির টিএসসির কক্ষ থেকে ছাত্র-ছাত্রী আটক

১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ | বুধবার, জুন ২৬, ২০১৯ শিক্ষাঙ্গন

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্ক- ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ছাত্র শিক্ষক কেন্দ্রের (টিএসসি) একটি কক্ষ থেকে গভীর রাতে দুই শিক্ষার্থীকে আটক করা হয়েছে। মঙ্গলবার (২৫ জুন) দিবাগত রাত ১ টা ১০মিনিটে প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যরা তাদের আটক করেন।

আটককৃত দুইজনই ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের তৃতীয় বর্ষের ছাত্র-ছাত্রী। এরা দুজনেই নারী ও পুরুষ শিক্ষার্থীদের জন্য নির্ধারিত দুটি হলের আবাসিক শিক্ষার্থী।

প্রক্টরিয়াল বডির সদস্যদের সঙ্গে কথা বলে জানা গেছে, টিএসসির ট্যুরিস্ট সোসাইটির কক্ষে দুজন শিক্ষার্থী দীর্ঘ রাত পর্যন্ত অবস্থান করছেন বলে তাদের কাছে খবর আসে। তারা রাত ১টার দিকে টিএসসিতে গিয়ে ওই কক্ষের দরজা বন্ধ ও লাইট নেভানো দেখতে পান। দীর্ঘ ১০ মিনিট দরজা ধাক্কানোর পর দরজা খুলে ওই দুই শিক্ষার্থী বেরিয়ে আসেন।

নিয়ম অনুযায়ী, সকাল ৮টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলো টিএসসির কক্ষ ব্যবহার করতে পারে। তবে কোনো বিশেষ কর্মসূচি থাকলে অনুমতি সাপেক্ষে রাত ১১টা পর্যন্ত কক্ষ ব্যবহার করা যায়।

তাই নিয়মের বাইরে গিয়ে দীর্ঘ রাত পর্যন্ত কক্ষের ভেতর কি করছিলেন জানতে চাইলে ওই ছাত্র জানান, তারা ভেতরে ঘুমাচ্ছিলেন।

হল থাকতে কেন টিএসসির এই কক্ষের ভেতর ঘুমাচ্ছিলেন তা জানতে চাইলে ওই ছাত্র বলেন, তার সঙ্গে থাকা ছাত্রীর বাড়ি গাজিপুরে। সেখান থেকে রওনা দিলে রাত সাড়ে ১১টায় তিনি বিশ্ববিদ্যালয়ে এসে পৌঁছেন। ১০টার পরে আর হলে প্রবেশের সুযোগ না থাকায় তিনি টিএসসির ওই কক্ষে থেকে যাওয়ার সিদ্ধান্ত নেন।

তবে উল্লেখ্য, কোনো নারী শিক্ষার্থী বাসা থেকে হলে ফিরতে বেশি রাত হয়ে গেলে হল প্রভোস্ট/সংশ্লিষ্ট ব্লকের শিক্ষক অথবা প্রক্টরিয়াল বডির সাহায্য নিয়ে হলে প্রবেশ করতে পারেন।

এদিকে, আটক করার পর প্রক্টরিয়াল বডি যখন দুই শিক্ষার্থীর পরিচয় জানতে চান তখন তারা ভুল নাম বলেন। পরে অবশ্য তাদের আসল পরিচয় উদঘাটন করতে সক্ষম হয় প্রক্টরিয়াল বডি।

ঘটনা অবহিত করলে টিএসসির পরিচালক মহিউজ্জামান বলেন, সংগঠনগুলো সকাল ৮টা থেকে রাত ৯টা পর্যন্ত কক্ষ ব্যবহার করতে পারে। আমি ৯টা থেকে ৫টা পর্যন্ত দায়িত্ব পালন করি। শিক্ষার্থী যদি এইরকম কাজ করে তাহলে তো কারও পক্ষে ঠেকানো সম্ভব নয় বলে মন্তব্য করেন তিনি।

ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের প্রক্টর অধ্যাপক এ কে এম গোলাম রব্বানী বলেন, আমরা খবর পেয়ে প্রক্টরিয়াল বডি ২জন শিক্ষার্থীকে সেখানে পাই। পরে তাদের হল কর্তপক্ষের সাথে কথা বলে হলে বুঝিয়ে দেয়া হয়। তারা এত রাতে কেন সেখানে ছিলো বিষয়টি নিয়ে পরে বিস্তারিত তাদের সাথে কথা বলা হবে এবং কোন অপরাধ প্রমাণিত হলে বিধি অনুযায়ী তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

রাত ১০ টার মধ্যে কোন কাজ না থাকলে টিএসসির সামাজিক সাংস্কৃতিক সংগঠনগুলোর অফিস বন্ধ থাকার কথা থাকলেও এত রাতে কেন টুরিস্ট সোসাইটির অফিস খোলা ছিলো প্রশ্ন প্রক্টরের।