রাণীনগরে রাস্তার কাজে নিম্ন মানের ইট: কাজ বন্ধ করে দিয়েছে এলাকাবাসি

১২:৩৫ পূর্বাহ্ণ | শুক্রবার, জুন ২৮, ২০১৯ রাজশাহী

নাজমুল হক নাহিদ, নওগাঁ প্রতিনিধি : নওগাঁর রাণীনগরে প্রায় ৪০ লক্ষ টাকার প্রকল্প কাজে নিন্ম মানের ইট দিয়ে রাস্তা  নির্মান করায় কাজ বন্ধ করে দিয়েছে এলাকাবাসি। এঘটনার পর সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষ ওই রাস্তা পরিদর্শন করে গতকাল বুধবার ঠিকাদারকে সবগুলো ইট অপসারনের নির্দেশ দিয়েছেন।

জানাগেছে, নওগাঁ জেলা এলজিইডি অধিদপ্তর থেকে পল্লী অবকাঠামো উন্নয়ন শীর্ষক-২ প্রকল্পের আওতায়  রাণীনগর উপজেলার আবাদপুকুর-পতিসর পাকা রাস্তা থেকে কালীগ্রাম খন্দকার পাড়া হয়ে দপ্তরিপাড়া পর্যন্ত এক কিলোমিটার রাস্তা এইচ বিবি করনের জন্য ৩৮ লক্ষ ৪৪ হাজার ৭শত ৯৪ টাকা নির্মান ব্যয় ধরে  টেন্ডার দেয়া হয়। এতে মেসার্স সোনা কন্সট্রাকশন পোরশা,নওগাঁ টেন্ডার পেয়ে মিঠু আহম্মেদ নামের একজনের নিকট সাব ঠিকাদার হিসেবে কাজ হস্তান্তর করেন।

গত ২ জানুয়ানরী থেকে কাজ শুরু করে ২০ জুনের মধ্যে কাজ শেষ করার কথা । এরই মধ্যে গত ফেব্রুয়ারী মাসে সংশ্লিষ্ঠ ঠিকাদার রাস্তার মাটি খুঁরে বক্স করে প্রায় চার মাস অজ্ঞাত কারনে ফেলে রাখেন। রাস্তার মাঝখানে বালুর স্তুপ করে ফেলে রাখার কারনে এবং বৃষ্টির পানিতে হাটু কাদা হওয়ায় যানবাহন চলাচল বন্ধ হয়ে যায় । ফলে  গরুর গাড়ী/মহিষের গাড়ীতে  কৃষিপন্যসহ বিভিন্ন মালামাল  পরিবহন করতে চরম ভোগান্তি পোহাতে হয় । শেষ পর্যন্ত গত এক সপ্তাহ আগে কাজ শুরু করলে ওই রাস্তায় ইট থেকে শুরু করে যে সকল নির্মান সামগ্রী রয়েছে তা একেবারে নিন্ম মানের হওয়ায় এবং দায়সারা কাজ শুরু করলে এলাকাবাসি  কাজ বন্ধ করে দেন। এর পর বিষয়টি এলাকাবাসি সংশ্লিষ্ঠ কর্তৃপক্ষকে জানালে রাস্তা পরিদশর্ন করে রাস্তার সবগুলো ইট  অপসারন করে সিডিউল মোতাবেক ইট দিয়ে রাস্তার কাজ করার  নির্দেশ দেন।

ওই এলাকার আওয়ামীলীগ নেতা আব্দুল কুদ্দুছ জানান,দীর্ঘ দিন রাস্তা খনন করে ফেলে রাখার কারনে বৃষ্টির পানিতে গর্ত হয়ে হাটু কাদায় পরিনত হয়েছে। কাজ করার সময় কাদাগুলো না সরিয়ে কাদার উপর বালু দিয়ে দায়সারা কাজ করছে ঠিকাদার । এছাড়া রাস্তায় যে ইট ব্যবহার করা হচ্ছে তা একেবারেই নিন্মমানের । কাজ শেষ হওয়ার আগেই অনেক জায়গায় ভেঙ্গে যাচ্ছে । তাই এলাকাবাসি মিলে কাজ বন্ধ করে দেয়া হয়েছে।

এব্যাপারে সাব ঠিকাদার মিঠু আহম্মেদ জানান, কিছু ইট খারাপ রয়েছে। দু’একদিনের মধ্যে ইটগুলো তুলে নিয়ে সেখানে মানসম্পন্ন ইট দিয়ে কাজ করা হবে।

এব্যাপারে রাণীনগর উপজেলা প্রকৌশলী শাইদুর রহমান মিয়া বলেন,নিন্মমানের ইট হওয়ায় সবগুলো ইট অপসারন করতে গতকাল বুধবার ঠিকাদারকে লিখিতভাবে  নির্দেশ দেয়া হয়েছে। এর আগে ওই রাস্তায় কাজ করতে দেয়া হবে না।

Loading...