৫০ বছর মেয়াদী মাস্টারপ্ল্যান বাস্তবায়নে পাল্টে যাবে রাজশাহী সিটি

৬:৫৯ অপরাহ্ণ | রবিবার, জুন ৩০, ২০১৯ দেশের খবর, রাজশাহী

ওবায়দুল ইসলাম রবি, রাজশাহী- রাজশাহীর উন্নয়নে মহাপরিকল্পনায় মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করে রাজশাহীর বিভিন্নখাতে ব্যাপক উন্নয়নের লক্ষ্যে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন ও চায়নার রাষ্ট্রায়ত্ত প্রতিষ্ঠান পাওয়ার চায়না‘র মধ্যে গত ১২ মে ২০১৯ তারিখে সমঝোতা স্মারক চুক্তি (এমওইউ) স্বাক্ষরিত হয়েছে।  ৫০ বছর মেয়াদী মাস্টারপ্ল্যানটি বাস্তবায়ন হতে শুরু করলে পাল্টে যাবে পুরো রাজশাহী মহানগরীর চিত্র।

চুক্তি অনুযায়ী আগামী তিন বছর ৮ টি খাতকে সামনে রেখে মাস্টারপ্ল্যান তৈরি করছে পাওয়ার চায়না। পরবর্তীতে ধাপে ধাপে এসব প্রকল্প বাস্তবায়ন করা হবে। প্রকল্প বাস্তবায়নে অর্থায়ন করবে পাওয়ার চায়না।

২০১৮-২০১৯ অর্থবছরের সংশোধিত বাজেট বিগত অর্থ বছরে বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৭৫২ কোটি ৩৭ লক্ষ ৮১ হাজার টাকা। সংশোধিত বাজেটে এর আকার দাঁড়িয়েছে ৩২৪ কোটি ৮৯ লক্ষ ৯৯ হাজার টাকা। ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরের প্রস্তাবিত বাজেট: আয় ও ব্যয় সমপরিমাণ ধরে ২০১৯-২০২০ অর্থ বছরে বাজেটের লক্ষ্যমাত্রা ধরা হয়েছে ৫৪৭ কোটি ১৮ লক্ষ ১২ হাজার ২৭৪ টাকা ৬৬ পঁয়সা ।

চলমান প্রকল্পের অগ্রগতির তথ্য মতে ১৮২ কোটি ৬৮ লক্ষ ১৯ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে প্রকল্পটির আওতায় রাজশাহী-নওগাঁ মহাসড়কের কাজ চলমান। ১৮২ কোটি ২২ লক্ষ ৩১ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে ‘রাজশাহী মহানগরীর জলাবদ্ধতা দূরীকরণার্থে নর্দমা নির্মাণ। ১২৭ কোটি ৪৯ লক্ষ ৫৯ হাজার টাকা ব্যয় বর্তমান সড়কটির প্রশস্তা করে ৪ লেন সড়কে উন্নীত করা। ১৭২ কোটি ৯৮ লক্ষ ৩৫ হাজার টাকা ব্যয় করে মহানগরীর ওয়ার্ডসমূহের বর্তমান ১৩২.৩৭ কিলোমিটার কার্পেটিং সড়কগুলো পুনঃনির্মাণের মাধ্যমে চলাচলের উপযোগী করা। ২১ কোটি ৯৫ লক্ষ ৪৫ হাজার টাকা ব্যয়ে ভারতীয় অর্থায়নে চলমান প্রকল্পটির আওতায় মহানগরীর গুরুত্বপূর্ণ উপশহর হাউজিং এস্টেটের সকল রাস্তা এবং অন্যান্য গুরুত্বপূর্ণ সড়কের উভয় পাশে নিরাপদ চলাচলে ১৭.৯৪ কিলোমিটার ফুটপাথ নির্মাণ কাজ করা। ১০৮ কোটি ২৭ লক্ষ ৪৯ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে ২.৫০ কিলোমিটার বর্তমান সড়কটি ১২.০০ মিটার প্রশস্ত করে নির্মাণ করা হবে। ২৯৭৩ কোটি ৩৯ লক্ষ ৩৬ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে নগরীর সমন্বিত অবকাঠামো উন্নয়নে প্রকল্পটি সরকারের অনুমোদনের নিমিত্ত দাখিল করা হয়েছে।

৮৯৫ কোটি ৩৯ লক্ষ ৯৬ হাজার টাকা ব্যয়ে মহানগরীর ৩০টি ওয়ার্ডের প্রধান সড়কে বিদ্যুৎ সাশ্রয়ী ৭৭০৭ টি ১২০ ওয়াটের এলইডি বাতি এবং ৪০ ওয়াটের ১৮২৬৪ টি এলইডি বাতি সংযোজনের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ৪৯ কোটি ৮৬ লক্ষ ৮৭ হাজার টাকা ব্যয়ে মহানগরীর ওয়ার্ডসমূহের প্রান্তিক এলাকায় ৫২.১১ কিলোমিটার বর্তমান কার্পেটিং ও সিসি রাস্তা পুনঃনির্মাণের মাধ্যমে চলাচলের উপযোগী করা হবে। ৭৯৫ কোটি ৮০ লক্ষ ৭৮ হাজার টাকা ব্যয় সাপেক্ষে নগরীর জলাশয় সমূহের অব্যহত ভরাট বন্ধ করাসহ প্রাকৃতিক পরিবেশ রক্ষার্থে প্রকল্পটির আওতায় মহানগরীর মোট ২২টি প্রাকৃতিক জলাশয় সংরক্ষণ ও উন্নয়ন করার পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ২৯৯৫ কোটি ১১ লক্ষ টাকা ব্যয় সাপেক্ষে মহানগরীর গুররুত্বপূর্ণ ১৫টি সড়কে নির্বিগ্নে যান চলাচলের উদ্দেশ্যে ১২.৫০ মিটার চওড়া করে নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। প্রকল্পের ডিপিপি বর্তমানে প্রণয়নাধীন পর্যায়ে রয়েছে। দ্রুত ডিপিপি প্রণয়নপূর্বক সরকারের অনুমোদনের নিমিত্ত দাখিল করা হবে।

৪৯২ কোটি ৮ লক্ষ টাকা ব্যয় সাপেক্ষে মহানগরীতে নতুন ৫০.০০ একর ভূমি বরাদ্দের মাধ্যমে আধুনিক স্যানিটারী ল্যান্ডফিল্ড নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ৪২৬ কোটি ৬০ লক্ষ টাকা ব্যয় সাপেক্ষে মহানগরীর শ্রীরামপুর পদ্মা নদীর তীরে প্রায় ১০০.০০ একর ভূমি বরাদ্দের মাধ্যমে অবকাঠামো উন্নয়নের মাধ্যমে বঙ্গবন্ধু ইকোপার্ক নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে। ৫১১ কোটি ৯ লক্ষ টাকা ব্যয় সাপেক্ষে মহানগরীতে প্রায় ১০০.০০ একর ভূমি বরাদ্দের মাধ্যমে অবকাঠামো উন্নয়নের মাধ্যমে শেখ রাসেল সায়েন্স সিটি ও সাফারি পার্ক নির্মাণের পরিকল্পনা গ্রহণ করা হয়েছে।

Loading...