সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

ফেসবুকে প্রেম, বিয়ে পাকা করতে গিয়ে প্রেমিকার বাড়িতে মৃত্যুর কোলে যুবক

৩:৩৬ অপরাহ্ণ | শনিবার, জুলাই ১৩, ২০১৯ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- সামাজিক যোগাযোগ মাধ্যমে ফেসবুকে পরিচয় সূত্রে বন্ধুত্ব। তিন বছরের প্রেমের সম্পর্ককে পরিণতি দিতে বিয়ের সিদ্ধান্ত। কিন্তু বিয়ের দিন-তারিখ ঠিক করতে গিয়ে প্রেমিকার বাড়িতে মৃত্যুর কোলে ঢলে পড়ল যুবক।

শুক্রবার ভারতের পশ্চিমবঙ্গের নদীয়ার নাকাশিপাড়ায় মর্মস্পর্শী এ ঘটনা ঘটেছে।

সংবাদ প্রতিদিন জানায়, কয়েক মাস পরই প্রেমিক অবিনাশ সিদ্ধার্থের সঙ্গে নদীয়ার নাকাশিপাড়ার মুনমুনের বিয়ে হওয়ার কথা ছিল। বিয়ের দিনক্ষণ, স্থান ঠিক করতে দেওঘর থেকে প্রেমিকার বাড়িতে ছুটে আসেন অবিনাশ। সবই ঠিকঠাক চলছিল। শুক্রবার সন্ধ্যায় হঠাৎ প্রেমিকার বাড়িতে অসুস্থ হয়ে পড়েন অবিনাশ। হাসপাতালে নেওয়ার সঙ্গে সঙ্গেই চিকিৎসকরা জানিয়ে দেন, অবিনাশ আর নেই।

স্থানীয় ও পুলিশ সূত্রে জানা গেছে, ২০১৬ সাল থেকে দুজনের আলাপ। চলতি বছরের নভেম্বরে আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ের কথা ছিল। তার আগে অবশ্য দুই পরিবারের সম্মতিতে মুনমুন ও অবিনাশের রেজিস্ট্রি হয়েছিল মাস আটেক আগেই।

আনুষ্ঠানিকভাবে বিয়ের দিনক্ষণ ঠিক করার জন্য মুনমুনের বাড়ির লোকজন দেওঘরে গিয়ে অবিনাশের পরিবারের সঙ্গে কথাবার্তা বলে আসে। সবকিছুই প্রায় ঠিকঠাক হয়ে গিয়েছিল।

দিল্লিতে কর্মরত অবিনাশ নভেম্বরে বিয়ের পর স্ত্রীকে নিয়ে কৃষ্ণনগরে ফ্ল্যাটে থাকবেন বলে ঠিক হয়েছিল। সেই ফ্ল্যাট দেখতেই সুদূর দেওঘর থেকে বাসে করে কৃষ্ণনগরের বেথুয়াডহরিতে পৌঁছান অবিনাশ। হসপিটাল পাড়া রোডে মুনমুনদের বাড়িতে পৌঁছে অসুস্থ হয়ে পড়েন বছর তেত্রিশের এই যুবক।

মুনমুনের বাবা গোপাল বিশ্বাস বলেন, “অবিনাশ আমাদের বাড়িতে এসে ছটফট করতে থাকে। আমি সঙ্গে সঙ্গে গাড়ি ডাকি। বেথুয়াডহরি হাসপাতালে নিয়ে গেলে চিকিৎসকরা তাকে মৃত ঘোষণা করে।”

হবু স্বামীর মৃত্যুতে নিজেকে আর সামলে রাখতে পারছেন না মুনমুন। তার আহাজারি বাঁধ মানছে না।

পুলিশ ও চিকিৎসকদের প্রাথমিক ধারণা, হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে এই যুবকের মৃত্যু হয়েছে। তবে প্রেমিকার বাড়িতে এসে এমন ঘটনা ঘিরে চাঞ্চল্য দেখা দিয়েছে। ঘটনাটি তদন্ত করে দেখার সিদ্ধান্ত নিয়েছে পুলিশ।