উল্লাপাড়ায় ট্রেন-মাইক্রোবাস সংঘর্ষ: নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০ জনে

১২:৩৮ পূর্বাহ্ণ | মঙ্গলবার, জুলাই ১৬, ২০১৯ রাজশাহী

রাজিব আহমেদ, শাহজাদপুরে (সিরাজগঞ্জ) প্রতিনিধি: সিরাজগঞ্জের উল্লাপাড়ায় অরক্ষিত রেলক্রসিংয়ে ট্রেন-মাইক্রোবাস সংঘর্ষে নিহতের সংখ্যা বেড়ে ১০ জন।  কনের বাড়ি থেকে বরের বাড়িতে ফেরার পথে মাইক্রোবাসটি এ দূর্ঘটনার শিকার হয়। নিহতের মধ্যে বর-কনেও রয়েছেন। আহত রয়েছেন আরও ৪ জন।

এ তথ্য জানান সিরাজগঞ্জ রেলওয়ে পুলিশের ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওসি) হারুন মজুমদার। ওসি হারুন মজুমদার বলেন, এ দুর্ঘটনায় বর-কনেসহ ৯ যাত্রী ঘটনাস্থলেই মারা যান। ৫ জনকে আহতাবস্থায় উদ্ধার করে হাসপাতালে পাঠান স্থানীয়রা। এদের মধ্যে সিরাজগঞ্জ সদর হাসপাতালে চিকিৎসাধীন অবস্থায় আরও একজনের মৃত্যু হয়েছে।

নিহত ১০ জন হলেন- নববিবাহিত বর সদর উপজেলার কান্দাপাড়া গ্রামের আলতাফ হোসেনের ছেলে রাজন (৩২), তার সদ্যবিবাহিতা স্ত্রী উল্লাপাড়ার এনায়েতপুর গুচ্ছগ্রামের মৃত গফুর শেখের মেয়ে সুমাইয়া (২১), একই গ্রামের আশরাফ আলীর স্ত্রী মমতা (৩৫), সদর উপজেলার রামগাঁতী গ্রামের মৃত আব্দুছ ছালামের ছেলে শফিউল (১৯), একই এলাকার মৃত মশিউর রহমানের ছেলে আব্দুস সামাদ (৪৫), একই গ্রামের শিশু আলিফ (৯), সয়দাবাদ এলাকার নূর আলম (৩৫), সিরাজগঞ্জ পৌর এলাকার দিয়ার ধানগড়া মহল্লার আলতাফ হোসেনের ছেলে শরীফ (৩২), রায়গঞ্জ উপজেলার কৃষ্ণদিয়ার গ্রামের আলম শেখের ছেলে খোকন (২৪) এবং মাইক্রোবাস চালক কামারখন্দ উপজেলার জামতৈল গ্রামের এলাহী বক্সের ছেলে স্বাধীন মিয়া (৫৫)।

উল্লাপাড়া ফায়ার সার্ভিন অ্যান্ড সিভিল ডিফেন্সের লিডার নাদির হোসেন  জানান, উল্লাপাড়ার গুচ্ছগ্রামের সুমাইয়া খাতুনের সঙ্গে সদর উপজেলার কান্দাপাড়া গ্রামের রাজনের বিয়ে হয় সোমবার। বিয়ে শেষে কনেকে নিয়ে মাইক্রোবাসটিতে ফিরছিলেন বর ও তার সঙ্গী যাত্রীরা। সন্ধ্যার দিকে তাদের মাইক্রোবাসটি বেতকান্দি রেলক্রসিং পার হওয়ার সময় রাজশাহী থেকে ঢাকাগামী ট্রেন ‘পদ্মা এক্সপ্রেস’ বিয়ের গাড়িটিতে ধাক্কা দেয়। মাইক্রোবাসটি সেখান থেকে অন্তত আধা কিলোমিটার দূরে শাহীকোলা পর্যন্ত টেনে-হিঁচড়ে নিয়ে যায় সে ট্রেন। এতে মাইক্রোবাসে থাকা নয় যাত্রী তখনই মারা যান। খবর পেয়ে ফায়ার সার্ভিসকর্মীরা ঘটনাস্থলে পৌঁছে মরদেহ উদ্ধার করেন।

এদিকে, দুর্ঘটনার পর স্থানীয়রা ট্রেনটিকে প্রায় আধঘণ্টা রেললাইনে আটকে রাখেন। উল্লাপাড়া মডেল থানা পুলিশ ঘটনাস্থলে গিয়ে বিক্ষুব্ধদের সরিয়ে দেয়। পরে ট্রেনটি ঢাকার উদ্দেশে ছেড়ে যায়।

এদিকে, এ দুর্ঘটনায় প্রাণহানি ও ক্ষয়ক্ষতিতে গভীর শোক ও দুঃখ প্রকাশ করেছেন রেলমন্ত্রী নূরুল ইসলাম সুজন। তিনি নিহতদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করেন এবং শোকসন্তপ্ত পরিবারের প্রতি গভীর সমবেদনা জানান।