জামালপুরে বন্যা পরিস্থিতি আরও ভয়াবহ রুপ নিচ্ছে!

৭:৪৬ অপরাহ্ণ | বুধবার, জুলাই ১৭, ২০১৯ ময়মনসিংহ

আবদুল লতিফ লায়ন, জামালপুর প্রতিনিধি : পানি বৃদ্ধি অব্যাত থাকায় জামালপুরের সার্বিক বন্যা পরিস্থিতির ভয়াবহ রুপ নিয়েছে। বুধবার বিকালে জামালপুরে বাহাদুরাবাদ পয়েন্টে যমুনার পানি রেকর্ড ভেঙ্গে বিপদসীমার ১৬২ সেন্টিমিটার উপর দিয়ে প্রবাহিত হয়েছে। বর্তমানে জেলার ইসলামপুর উপজেলাসহ ৭টি উপজেলা ৪লক্ষাধিক মানুষ বন্যার পানিতে ভাসছে।

বন্যায় ক্ষতিগ্রস্থ অধিকাংশরাই আশপাশের উঁচু রাস্তা,ঘরের চাল,ব্রীজ ও শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে আশ্রয় নিয়ে মানবেতর জীবন যাপন করছে। বন্যা কবলিত এলাকার ফসলি জমি, রাস্তা ঘাট, রেল লাইন,শিক্ষা প্রতিষ্ঠান ডুবে গেছে। জেলার সবচেয়ে বেশী বন্যা কবলিত ইসলামপুর উপজেলার বন্যার্তদের মাঝে ত্রাণের জন্য চলছে হাহাকার।

বন্যা ইসলামপুর ও দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা ভয়াবহ রুপ নিয়েছে। বন্ধ হয়ে গেছে ঢাকার সঙ্গে দেওয়ানগঞ্জের রেল যোগাযোগ।  ইসলামপুর উপজেলার চিনাডুলী ইউনিয়নের চিনাডুলি, শিংভাঙ্গা, বাবনা, পূর্ববাবনা, দেওয়ানপাড়া, কড়ইতলা, ডেবরাইপ্যাচ, নন্দনেরপাড়, বেলগাছা ইউনিয়নের মুন্নিয়ারচর, চরবড়ুল, শিলদহ, সিন্দুরতলী ও কুলকান্দি ইউনিয়নের বেড়কুশা, জিগাতলা ও চরকুলকান্দি গ্রামের মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছে।

দেওয়ানগঞ্জ উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তার কার্যালয়, বাসভবন, উপজেলা প্রকল্প বাস্তবায়ন কর্মকর্তার কার্যালয়, পানি উন্নয়ন বোর্ডের কার্যালয়সহ সব দাফতরিক কার্যালয়গুলো এখন পানির নিচে। রেল লাইন ও আঞ্চলিক সড়কগুলোতে পানি উঠায় এরইমধ্যে যোগাযোগ বিচ্ছিন্ন হয়ে পড়েছে। এতে করে সাধারণ মানুষের দুর্ভোগ চরমে পৌঁছেছে। ইতিমধ্যে বেশকিছু শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে পানি উঠে পড়ায় বন্ধ হয়ে গেছে শিক্ষা কার্যক্রম।

ইসলামপুর উপজেলা পৌর সভা, সাপধরী, চিনাডুলি, বেলগাছা, কুলকান্দি, নোয়ারপাড়া, পাথর্শী,পলবান্ধা ও ইসলামপুর সদর ইউনিয়নগুলোর দেড় লক্ষাধিক মানুষ পানিবন্দী হয়ে পড়েছেন।

জেলা ত্রাণ ও পূর্ণবাসন কর্মকর্তা নায়েব আলী মঙ্গলবার জানিয়েছেন, বন্যায় জেলা সদর, ইসলামপুর, দেওয়ানগঞ্জ, বকশীগঞ্জ,সরিষাবাড়ি, মাদারগঞ্জ ও মেলান্দহ উপজেলার ৫২টি ইউনিয়নের ৭২হাজার ৩৫০টি পরিবারের ৩ লক্ষ ৬১হাজার ৭৫০জন খতিগ্রস্থ ও পানিবন্দি হয়ে পড়েছে।