সংবাদ শিরোনাম
কেরানীগঞ্জে প্লাস্টিকসামগ্রী তৈরি কারখানায় অগ্নিকাণ্ডে এ পর্যন্ত ৮জনের মৃত্যু | গ্রামবাসীর অর্থায়নে তৈরি হচ্ছে মৌলা নদীর উপর ‘স্বপ্নের জনতা’ ব্রীজ | নোবিপ্রবিতে শিক্ষক সমিতি নির্বাচনে লড়বে আওয়ামী পন্থী দুই দল | জাতীয় স্মৃতিসৌধ ১২-১৫ ডিসেম্বর সর্বসাধারণের প্রবেশ বন্ধ | বেনাপোল ইমিগ্রেশনের কার্যক্রম ৬টা থেকে রাত ১০টা পর্যন্ত করার নির্দেশ জাতীয় রাজস্ব বোর্ডের | টাঙ্গাইলে ফসলি জমির মাটি ইটভাটায় বিক্রি এলাকাবাসীর ক্ষোভ | কাপাসিয়ায় সড়ক দুর্ঘটনায় নিহত ৩, আহত ২ | শিশুকে ধর্ষণ করে রক্তাক্ত অবস্থায় ফেলে গেল ১৪ বছরের কিশোর! | বনানীতে বাসার পাশে মাটিতে পোঁতা চীনা নাগরিকের লাশ | যশোরের চৌগাছায় নববধূকে ধর্ষণ করল চা-দোকানি! |
  • আজ ২৭শে অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গ্রেফতার করা হয়েছে প্রিয়াংকা গান্ধীকে

৩:২২ অপরাহ্ণ | শুক্রবার, জুলাই ১৯, ২০১৯ আন্তর্জাতিক
priyanka

আন্তর্জাতিক ডেস্কঃ এলোপাতাড়ি গুলি করে নিরীহ উপজাতীয়দের হত্যার ঘটনার প্রতিবাদ জানাতে গেলে ভারতের বিরোধীদলীয় নেতা প্রিয়াংকা গান্ধীকে শুক্রবার আটক করেছে পুলিশ। উত্তরপ্রদেশের উত্তপ্ত সোনভদ্রে যাওয়ার পথে তাঁকে আটক করে যোগী আদিত্যনাথের পুলিশ। সরকারি গাড়ি করে প্রিয়াঙ্কা ও অন্য কংগ্রেস কর্মীদের অন্যত্র নিয়ে যাওয়া হয়।

গত সপ্তাহে সোনভদ্রের একটি গ্রামে জমি নিয়ে গোলমালের জেরে গুলি চলায় মৃত্যু হয় ১০ জনের। মৃতদের পরিবারের সঙ্গে দেখা করতে শুক্রবার প্রধানমন্ত্রী নরেন্দ্র মোদীর নির্বাচনী কেন্দ্র বারাণসী পৌঁছন প্রিয়াঙ্কা গান্ধী। সেখান থেকে সড়কপথে সোনভদ্রে যাওয়ার কথা ছিল তাঁর। কিন্তু সোনভদ্রে কোনওরকম জমায়েত করা যাবে না, এই কথা বলে প্রিয়াঙ্কাকে আটকে দেয় পুলিশ। রাস্তার ওপরেই অন্য কংগ্রেস নেতা-কর্মীদের সঙ্গে বসে পড়েন তিনি।

বিজেপি সরকারের অপদার্থতার কারণেই উত্তরপ্রদেশে দুষ্কৃতীদের বাড়বাড়ন্ত হয়েছে বলে অভিযোগ করেন প্রিয়াঙ্কা। তাঁকে কোন আইনে আটকানো হল, সে প্রশ্নও করেছেন তিনি। গুজ্জর ও গোণ্ড সম্প্রদায়ের মধ্যে ৩৬ একরের একটি জমি নিয়ে গোলমালের জেরে উত্তপ্ত হয়ে ওঠে সোনভদ্র।

প্রদেশটির কংগ্রেস প্রধানের দায়িত্ব পালন করছেন প্রিয়াংকা। তাকে শুক্রবার সনভান্দ্র জেলার কাছে মির্জাপুরের একটি রাস্তায় বসে প্রতিবাদ করতে দেখা গেছে। এসময় কংগ্রেস কর্মীরা তার সঙ্গে ছিলেন। নিরাপত্তা কর্মীরা তাদের ঘিরে রেখেছিল।

প্রিয়াংকা বলেন, আমি কেবল আক্রান্ত পরিবারগুলোর সঙ্গে দেখা করতে চাই। তাদের স্বজনদের নির্মমভাবে গুলি করে হত্যা করা হয়েছে। আমার ছেলের বয়সী একটি শিশু গুলিবিদ্ধ হয়েছে। সে এখন হাসপাতালে বেডে কাতরাচ্ছে।

গান্ধী পরিবারের এই সন্তান বলেন, আমি শান্তিপূর্ণভাবে অবস্থান নিয়েছি। এখানে লোক জড়ো হওয়া নিষিদ্ধ এমন কোনো নির্দেশনা আমাকে কেউ দেখাতে পারবে।

এরপর যখন তাকে সরকারি গাড়িতে তুলে নেয়া হচ্ছিল, তখন তিনি বলেন, আমি জানি না, তারা আমাকে কোথায় নিয়ে যাচ্ছে। এখন যেকোনো জায়গায় যেতে আমি রাজি আছি।

প্রত্যক্ষদর্শীরা বলেন, ইয়াগি দত্ত ৩২টি ট্রাক্টরে করে ২০০ লোক নিয়ে আসেন জমি দখল করতে। কিন্তু স্থানীয় উপজাতীয়রা নিজেদের ভূমি ছাড়তে অস্বীকার করেন। তখন গ্রামপ্রধানের লোকজন আধঘণ্টা ধরে তাদের লক্ষ্য করে এলোপাতাড়ি গুলি করতে থাকেন।

এতে ভারতের সাম্প্রতিক সময়ের সবচেয়ে ভয়াবহ প্রাণহানির ঘটনা ঘটেছে। স্থানীয় একটি অভিজাত পরিবারের কাছ থেকে বছর দশেক আগে ওই ভূমি কেনার দাবি করে হত্যাকারী ইয়াগি।

সূত্র: এনডিটিভি

Loading...