হাটে জাল কিনতে গিয়ে ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনি খেলেন ভ্যানচালক

১০:২১ অপরাহ্ণ | রবিবার, জুলাই ২১, ২০১৯ ঢাকা, দেশের খবর

মোল্লা তোফাজ্জল, টাঙ্গাইল প্রতিনিধি- সময় বড়ই নিষ্ঠুর। কখন, কার সঙ্গে, কীভাবে খেলা করে সেটা বোঝা মুশকিল। কে জানত শখের বশে মাছ ধরার জাল কিনতে গিয়ে ছেলেধরা সন্দেহে এভাবে গণপিটুনি খেতে হবে?

টাঙ্গাইলের ভূঞাপুর উপজেলার বন্যা কবলিত এলাকা টেপিবাড়ির কোরবান আলীর ছেলে মিনু মিয়া (৩০)। পেশায় ভ্যান চালক। সে কালিহাতীর সয়া হাটে গিয়েছিলেন মাছ ধরার জাল কিনতে। হঠাৎ ছেলেধরা সন্দেহে তার উপর উত্তেজিত হয়ে বেধড়ক পিটুনি দেয় উপস্থিত জনতা।

রোববার (২১ জুলাই) দুপুরে উপজেলার সয়া হাটে এ ঘটনা ঘটে। পরে পুলিশ গুরুতর আহত অবস্থায় তাকে উদ্ধার করে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করায়। তাৎক্ষণিভাবে ওই ব্যক্তির নাম পরিচয় পাওয়া যায়নি। পরে টাঙ্গাইল হাসপাতালে নেওয়ার পর তার পরিচয় নিশ্চিত করা হয়।

স্থানীয়রা জানান, একটি ছেলেকে সিএনজি চালিত অটো রিক্সায় তুলে নিয়ে যাচ্ছে এমন প্রচারে সয়া হাটে মিনু মিয়াকে মারপিট করে জনতা। এসময় উপস্থিত এলাকার কয়েকজন জনতার রোষ থেকে তাকে বাঁচানোর চেষ্ট করেন।। পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণের বাইরে গেলে তখন পুলিশকে খবর দেওয়া হয়।

এ বিষয়ে কালিহাতীর থানার এসআই এসএম ফারুকুল ইসলাম সময়ের কণ্ঠস্বরকে বলেন, ছেলেধরা গুজবে ওই যুবককে উপস্থিত জনতা বেধড়ক পিটুনি দেয়। পরে আমরা খবর পেয়ে তাকে আশংকাজনক অবস্থায় উদ্ধার করে কালিহাতী উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সে ভর্তি করি। অবস্থার অবনতি হওয়ায় উন্নত চিকিৎসার জন্য তাকে টাঙ্গাইল জেনারেল হাসপাতালে রেফার্ড করেন চিকিৎসকরা।

টাঙ্গাইলের পুলিশ সুপার সঞ্জিত কমার রায় বলেন, ছেলেধরা সন্দেহে গণপিটুনির শিকার ব্যক্তিরা আসলে কে বা তাদের উদ্দেশ্য কী সেটা তদন্ত করে বের করা হবে। জনগনকে আরো সতর্ক থাকতে হবে। নিরপরাধ কেউ যেন হামলার শিকার না হন।