সংবাদ শিরোনাম
  • আজ ৬ই কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

চাঁদপুর-হাইমচর নদী ভাঙ্গনরোধে ১১শ’ কোটি টাকার প্রকল্প, কাজ করবে সেনাবাহিনী

৯:৩১ অপরাহ্ণ | সোমবার, আগস্ট ৫, ২০১৯ চট্টগ্রাম
kaj

আশিক বিন রহিম, চাঁদপুর প্রতিনিধি- চাঁদপুর শহররক্ষা বাঁধের পুরাণবাজার হরিসভা এলাকা পরিদর্শণ করেছেন পানি সম্পদ উপমন্ত্রী ও বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক এএম এনামুল হক শামীম। সোমবার (৫ আগস্ট) সকাল ১০টায় তিনি ভঙ্গন কবলিত হরিসভা এলাকা পরিদর্শন করে সংক্ষিপ্ত সমাবেশে বক্তব্য রাখেন। এসময় তিনি ভাঙ্গনরোধে প্রয়োজনিয় সর্বোচ্চ ব্যবস্থাগ্রহণ এবং স্থানীয়দের ধৈর্যধারণ করার অনুরোধে জানান। এছাড়াও ভাঙনে ক্ষতিগ্রস্থ প্রত্যেক পরিবারকে তাৎক্ষনিকভাবে দুই বান্ডেল টিন ও নগদ ৬ হাজার টাকা বরাদ্দের ঘোষণা দেন তিনি।

সংক্ষিপ্ত সমাবেশে আরো বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আওয়ামী লীগের ত্রান ও সমাজ কল্যাণ সম্পাদক সুজিত রায় নন্দী, জেলা প্রশাসক ভারপ্রাপ্ত মো. শওকত ওসমান,জেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক আবু নঈম পাটওয়ারী দুলাল, চাঁদপুর জেলা পূজা উদযাপন পরিসদের সভাপতি সুভাষ চন্দ্র রায়।

পানি সম্পদ উপমন্ত্রী এনামুল হক শামীম তার বক্তব্যে বলেন, চাঁদপুর এবং শরিয়তপুর নদী ভাঙন কবলিত জেলা। প্রতি বর্ষায় মেঘনার নদীর দু’পাড়ে ভাঙ্গন দেখা দেয়। চাঁদপুর ভাঙন শুরু হওয়ার পর থেকেই আমার সাথে শিক্ষামন্ত্রী ডাঃ দীপু মনি সার্বক্ষনিক যোগাযোগ রেখেছেন। আমরা চাঁদপুরকে ভঙ্গন থেকে প্রতিরোধে খুবই আন্তরিক। কারণ আমিও আপনাদের পাশের এলাকার সন্তান। নদী ভাঙনের শিকার হলে মানুষের কতোটা কষ্ট তা আমার জানা আছে। কারণ নদী ভাঙনের শিকার হয়ে আমাদের নিজ ঠিকানাও পরিবর্তন করতে হয়েছে।

মন্ত্রী বলেন, যে কোন মূল্যে মেঘনার ভাঙন থেকে চাঁদপুরকে রক্ষা করা হবে। ইতোমধ্যে মাননীয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার মেঘা প্রকল্পের আওতায় চাঁদপুর ও হাইমচর উপজেলা স্থায়ীভাবে রক্ষাকল্পে ১১শ’ কোটি টাকার একটি প্রকল্প গ্রহণ করা হয়েছে। এই প্রকল্প একনেকে পাশ হওয়ার পরেই চলতি বছরের মধ্যেই কাজ শুরু করা হবে। ১১শ’ কোটি টাকায় যদি প্রকল্প বাস্তবায়ন করতে সমস্যা হয়, প্রয়োজনে ১৫শ’ কোটি টাকা এ প্রকল্পে ব্যয় করা হবে।

এসময় তিনি জনতার দাবীর পরিপ্রেক্ষিতে প্রকল্পের কাজটি যাতে করে সেনাবহিনী মাধ্যমে সম্পন্ন করা হয়, সেই বিষয়ে প্রধানমন্ত্রীর সাথে আলোচনা করা হবে বলে জানিয়ে বলেন, কাজের মান ঠিক রাখতে আপনাদের দাবী অনুযায়ী প্রয়োজনে সেনাবাহিনীর মাধ্যমে কাজ করা হবে। এ বিষয়ে অামি মাননীয় প্রধানমন্ত্রীর সাথে কথা বলবো।

এসময় উপস্থিত ছিলেন বাংলাদেশ পানি উন্নয়ন বোর্ডের মহাপরিচালক মো. মাহফুজুর রহমান, প্রধান প্রকৌশলী ডিজাইন মোতাহার হোসেন ও কুমিল্লা অঞ্চলের প্রধান প্রকৌশলী জহির উদ্দিন।

অন্যান্যদের মাঝে আরও উপস্থিত ছিলেন, জেলা আওয়ামী লীগের সাংগঠনিক সম্পাদক তাফাজ্জল হোসেন এসডু পাটওয়ারী, চাঁদপুরের অতিরিক্ত পুলিশসুপার (সদর সার্কেল) মো. জাহেদ পারভেজ চৌধুরী, ফরিদগঞ্জ উপজেলা পরিষদ চেয়ারম্যান অ্যাড. জাহিদুল ইসলাম রোমান, চাঁদপুর পৌরসভার কাউন্সিলর ছিদ্দিকুর রহমান ঢালী, মোহাম্মদ আলী মাঝি, চেম্বার পরিচালক গোপাল সাহাসহ আওয়ামী লীগ ও অঙ্গ সহযোগী সংগঠনের বহু নেতা-কর্মী।