সংবাদ শিরোনাম
নাসিমের অস্ত্রোপচার সফল, নিবিড় পর্যবেক্ষণে থাকবেন ৪৮ ঘণ্টা | ভোলায় চিংড়ি পোনাসহ আটক ৩ জনের একবছর করে কারাদন্ড | বন্ধ হয়ে গেল জামালপুরের পিসিআর ল্যাব | বৃষ্টির সময় ঘরে ডেকে ৯ বছরের শিশুকে ধর্ষণ, লম্পট গ্রেপ্তার | দূষিত বাতাসের শহরের তালিকায় ২য় খারাপ অবস্থানে ঢাকা | ধর্ষণের পর প্রেমিকাকে বন্ধুদের হাতে তুলে দিল প্রেমিক, অতঃপর … | স্পেনে কর্মহীন প্রবাসীদের মাঝে ভালিয়েন্তে বাংলার খাদ্য সহায়তা কার্যক্রম অব্যহত | হঠাৎ ব্রেন স্ট্রোক, মোহাম্মদ নাসিমের অবস্থা সংকটাপন্ন | সবজি বিক্রি করতে হাটে যাওয়ার পথে মাইক্রোবাস চাপায় কৃষকের মৃত্যু | বিক্ষোভে বাধা দেওয়ার অভিযোগে ট্রাম্পের বিরুদ্ধে মামলা |
  • আজ ২২শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

দৃষ্টিহীন সাজ্জাতুল শুনে শুনে কোরআন মুখস্থ করলেন

৬:৪৪ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, আগস্ট ১৩, ২০১৯ স্পট লাইট

সময়ের কন্ঠস্বর ডেস্ক: দুই চোখে দেখতে না পেলেও সাজ্জাতুল ইসলাম (১৮) শুনে শুনেই কোরআন মুখস্থ করেছেন। শরীয়তপুরের গোসাইরহাট উপজেলার আলাওয়ালপুর ইউনিয়নের চার নম্বর ওয়ার্ডের মৃত জবেদ আলী মাল ও সায়েদা বেগমের ছোট ছেলে সাজ্জাতুল। সাজ্জাতুলের আরও তিনটি ভাই ও চারটি বোন রয়েছে।

জন্মের পাঁচ বছর পরেই সাজ্জাতুল চোখের দৃষ্টি হারান। দুই চোখে দেখতে না পেলেও মাদরাসার মাওলানার কাছ থেকে শুনে শুনে মুখস্থ করেছেন পবিত্র কোরআন শরীফ।

সাজ্জাতুল ইসলাম জানান, তার বয়স যখন পাঁচ বছর তখন শরীরে হাম ওঠে। হামের কারণে তার দুই চোখের দৃষ্টি চলে যায়। এরপরেও তিনি থেমে থাকেননি। আট বছর বয়সে চাঁদপুর নেছারিয়া আরাবিয়া হাফিজিয়া মাদরাসায় হেফজ খানায় ভর্তি হন তিনি। মাদরাসার শিক্ষক হাফেজ মাওলানা আব্দুর রহমানের মুখে শুনে শুনে দুই বছরেই কোরআন মুখস্থ করেছেন তিনি। পরে চট্টগ্রাম জামিয়া আহমদিয়া কামেল মাদরাসায় মিজান কিতাব শেষ করেন।

তিনি আরও জানান, তিনি ২০১৯ সালের ফেব্রুয়ারিতে শরীয়তপুর জেলার আংগারিয়া সমন্বিত অন্ধ শিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় আংগারিয়া উচ্চ বিদ্যালয়ে অষ্টম শ্রেণিতে ভর্তি হন। তিনি সরকারি খরচে সেখানে পড়ালেখা করছেন।

তিনি আরও জানান, অন্যের ঘাড়ে বোঝা হয়ে না থেকে স্বাভাবিক জীবন-যাপনের জন্য পড়ালেখা শুরু করেছেন।বড় হয়ে প্রতিবন্ধীদের শিক্ষক হতে চান তিনি। দাঁড়াতে চান তাদের পাশে।

আংগারিয়া সমন্বিত অন্ধ শিক্ষা কার্যক্রমের আওতায় সমাজসেবা অধিদপ্তরের রিসোর্স টিচার মো. এনামুল হক বলেন, আমরা প্রথম শ্রেণি থেকে দশম শ্রেণি পর্যন্ত দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের লেখাপড়া করিয়ে থাকি। সাজ্জাতুল এ বছর অষ্টম শ্রেণিতে ভর্তি হয়েছে। তবে ছাত্র হিসেবে খুবই ভালো সাজ্জাতুল।