• আজ ২রা আশ্বিন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

মামলা তুলে না নেয়ায় মা-বাবাকে বেঁধে মেয়েকে গণধর্ষণ

৬:৫৬ অপরাহ্ণ | রবিবার, আগস্ট ১৮, ২০১৯ খুলনা, দেশের খবর

সময়ের কণ্ঠস্বর, চুয়াডাঙ্গা- ধর্ষণ চেষ্টার মামলা তুলে না নেয়ায় চুয়াডাঙ্গার আলমডাঙ্গা উপজেলার ৬ষ্ঠ শ্রেণির এক মাদ্রাসাছাত্রীকে দলবদ্ধ ধর্ষণের অভিযোগ পাওয়া গেছে।

শনিবার রাতে ওই কিশোরীর বাড়িতে ঢুকে মা-বাবাকে মারধর করে বেঁধে রেখে মেয়েকে তুলে নিয়ে ধর্ষণ করা হয়। রোববার দুপুরে ওই কিশোরীকে চুয়াডাঙ্গা সদর হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে।

এ ঘটনায় নির্যাতিত মাদ্রাসাছাত্রীর বাবা আলমডাঙ্গা থানায় একটি ধর্ষণ মামলা দায়ের করেন। পরে ঘটনার সাথে জাড়িত থাকার অভিযোগে রোববার দুপুরে লাল্টু নামে একজনকে আটক করেছে পুলিশ।

জানা যায়, আলমডাঙ্গা উপজেলার নতিডাঙ্গা আবাসন এলাকার হতদরিদ্র পরিবারের মেয়েকে একই এলাকার জয়নালের ছেলে লাল্টু (৩৫), মৃত সভা ভোরামীর ছেলে শরীফুল (৪০) ও মিলনের ছেলে রাজু (৩০) প্রায় উত্তক্ত করে আসছিল। এ ঘটনায় ওই মেয়ের মা চুয়াডাঙ্গা আদালতে মাসখানেক আগে শ্লীলতাহানীর একটি মামলা করেছিল। ওই মামলার জের ধরেই শনিবার দিবাগত মধ্যরাতে আলমডাঙ্গার নতিডাঙ্গা আবাসন এলাকায় ওই হতদরিদ্র পরিবারের বাড়িতে হামলা করে লাল্টু, শরিফুল ও রাজু।

এসময় নির্যাতিতার বাবা মাকে মারধর করে মেয়েকে পাশের বাঁশবাগানে জোড় করে তুলে নিয়ে পালাক্রমে ধর্ষণ করে তারা। পরে এই ঘটনা পুলিশকে জানালে প্রাননাশেরও হুমকি দেয় অভিযুক্তরা। রোববার দুপুরে পুলিশ ভিকটিমের বাড়ি থেকে অভিযোগ পেয়ে নির্যার্তিতা মেয়েকে উদ্ধার করে আলমডাঙ্গা থানায় নিয়ে আসে।

পরে গোপন তথ্যের ভিত্তিতে নতিডাঙ্গা আবাসন এলাকায় অভিযান চালিয়ে অভিযুক্ত তিনজনের মধ্যে লাল্টুকে আটক করে পুলিশ। অন্য দুই আসামী পুলিশের উপস্থিতি টের পেয়ে পালিয়ে যায়।

ওই মাদ্রাসাছাত্রীর বাবা জানান, রোববার ছিল ওই মামলার সাক্ষ্য গ্রহণের দিন। ঠিক এর আগের দিন শনিবার রাত সাড়ে ১২টার দিকে লাল্টু, রাজু ও শরিফুল লাঠিসোঁটা নিয়ে আমার ঘরে প্রবেশ করে আমাদের মারধর করে। একপর্যায়ে আমাদের দুজনকে হাত-পা বেঁধে আমার মেয়ে তুলে নিয়ে যায়। এরপর তাকে গ্রামের মাথাভাঙ্গা নদীর তীরে বাঁশবাগানে পালাক্রমে ধর্ষণ করে। পরে স্থানীয় লোকজনের সহযোগিতায় আমরা ভোরের দিকে মেয়েকে উদ্ধার করি।

আলমডাঙ্গা থানার পুলিশ পরিদর্শক (তদন্ত) মাহাবুবুর রহমান ঘটনার সত্যতা নিশ্চিত করেছেন। তিনি জানান, অভিযুক্ত একজনকে আটক করেছে পুলিশ বাকিদের গ্রেফতারে পুলিশের অভিযান চলছে।