সংবাদ শিরোনাম
জমিতে পুঁতে রাখা হয় ঢাকার ব্যবসায়ীকে, লাশ দেখিয়ে দিলো সেই পুলিশ সদস্য | নামাজের সময় ইয়েমেনের সেনা ক্যাম্পে হামলা, নিহত ৬০ | বিশ্ব জাকের মঞ্জিলে চার দিনব্যাপী ওরস শুরু ১৪ ফেব্রুয়ারী | নির্বাচিত হলে সিটি কর্পোরেশনকে দুর্নীতি মুক্ত করব: ইশরাক | ভালোবাসার নীড় গড়তে গিয়ে স্বামীর বাড়ি থেকে লাশ হয়ে ফিরলেন ‘মীম’ | সাতক্ষীরায় প্রতিবন্ধীকে ধর্ষণ চেষ্টাকারী সেই লাল্টু গ্রেফতার | আখেরি মোনাজাতের মধ্য দিয়ে শেষ হলো ৫৫তম বিশ্ব ইজতেমা | মুজিববর্ষ উদযাপনে সরকারি বরাদ্দ ১০০ কোটি টাকা | বুধবার দেশ ছাড়বে টিম বাংলাদেশ, নিরাপত্তার চাদরে ঢাকা হচ্ছে পাঞ্জাব | নওগাঁয় ডিবির অভিযানে ইয়াবাসহ আটক ১ |
  • আজ ৬ই মাঘ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

গুগলে ভিখারি লিখলেই আসছে ইমরান খানের ছবি

১১:৫৪ পূর্বাহ্ণ | সোমবার, আগস্ট ১৯, ২০১৯ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- সার্চ ইঞ্জিন গুগলে গত বছরের ডিসেম্বরে ইংরেজিতে ‘ইডিয়ট’ লিখলেই ভেসে আসতো মার্কিন প্রেসিডেন্ট ডোনাল্ড ট্রাম্পের ছবি। এজন্য প্রশ্নের মুখে পড়তে হয়েছে গুগলের সিইও সুন্দর পিচাইকে। দিতে হয়েছে এর ব্যাখ্যা। সেসময় পাকিস্তানেরও অভিযোগ ছিল গুগলে ‘ভিখারি’ লিখে সার্চ দিলে ভেসে আসছে প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের ছবি। এবার আবারো গুগলে ইংরেজিতে ‘ভিখারি/bhikhari’ লিখে সার্চ করলে আসছে ইমরান খানের ছবি।

এনিয়ে সামাজিক মাধ্যমে ইমরান খানকে নিয়ে শুরু হয়েছে ব্যঙ্গ। কেউ এনিয়ে লিখেছেন, গুগল সাহেব সব জানে। আবার কেউ লিখেছেন গত ৫০ বছরে পাকিস্তান এই অর্জন করেছে।

পাকিস্তানের বর্তমান ভঙ্গুর অর্থনীতির কারণে ইমরান খানের এমন অবদমন ও হাসির খোরাক হওয়ার নেপথ্যে প্রধান কারণ হিসেবে দেখা হচ্ছে। এছাড়া অর্থনৈতিক অস্থিরতা কাটাতে যুক্তরাষ্ট্র থেকে শুরু করে আইএমএফ কিংবা বিশ্বব্যাংকে ঋণ চেয়ে বেড়ানোর কারণেই পাক এ প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে ফের এমন ব্যঙ্গ করা হচ্ছে বলে ধারণা। তবে এনিয়ে পাকিস্তানের পক্ষ থেকে এখন পর্যন্ত কোন মন্তব্য পাওয়া যায়নি।

ইমরান খানের এমন হাসির পাত্র হওয়ার খবর ভারতের গণমাধ্যমগুলোতে ঘটা করে প্রকাশ করা হলেও পাকিস্তানের কোনো গণমাধ্যম তাদের প্রধানমন্ত্রীকে নিয়ে গুগলের ভিক্ষারি সার্চের কোনো সংবাদ প্রতিবেদন প্রকাশ করেনি।

অর্থনৈতিক ক্ষেত্রে বেশ কোণঠাসা হয়ে পড়েছে পাকিস্তান। এর মধ্যে পাকিস্তান এনহ্যানসড পার্টনারশিপ অ্যাগ্রিমেন্ট বা পেপা এর আওতায় পাকিস্তান যে সাড়ে ৪০০ কোটি ডলার অর্থ সহায়তা পাওয়ার কথা তা ফের ৪৪ কোটি ডলার কমিয়ে দেয়ার ঘোষণা দিয়েছে যুক্তরাষ্ট্র।

পাকিস্তানের অর্থনীতি এখন সংকটের দোরগোড়ায় চলে গেছে বলে জানিয়েছে আন্তর্জাতিক মুদ্রা তহবিল বা আইএমএফ। প্রতিষ্ঠানটি বলছে, এই অবস্থা থেকে বের হতে পাকিস্তানের এখন কিছু সাহসী অর্থনৈতিক পদক্ষেপ নেয়া দরকার।

সম্প্রতি বছরে চীন, সংযুক্ত আরব আমিরাত ও সৌদি আরবের মতো বন্ধুপ্রতিম দেশগুলো থেকে পাকিস্তান কয়েক বিলিয়ন ডলার অর্থসহায়তা পেয়েছে। তবে শুধু অর্থ সহায়তা নয় বড়ও ধরনের ঋণও প্রয়োজন দেশটির। ১৯৮০ সাল থেকে এখন পর্যন্ত পাকিস্তানকে ১৩ বার অর্থ সহায়তা দিয়েছে আইএমএফ।

Loading...