এবার মালয়েশিয়ার আরেক রাজ্যে জাকির নায়েকের ভাষণে নিষেধাজ্ঞা

১:০৮ অপরাহ্ণ | সোমবার, আগস্ট ১৯, ২০১৯ আন্তর্জাতিক

আন্তর্জাতিক ডেস্ক- পার্লিসের পর এবার মালয়েশিয়ার কেদাহ রাজ্যে আলোচিত মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ডা. জাকির নায়েকের বক্তৃতায় নিষেধাজ্ঞা জারি করা হয়েছে। রোববার রাজ্যটির ধর্ম বিষয়ক কমিটি তার বক্তৃতার ওপর নিষেধাজ্ঞা জারি করে।

মালয়েশীয় সংবাদমাধ্যম সিনার হ্যারিয়ানের প্রতিবেদনে বলা হয়েছে, কেদাহ ধর্ম বিষয়ক কমিটির চেয়ারম্যান দাতুক ড. ইসমাইল সাল্লেহ বলেন- জাকির নায়েককে যখন রাষ্ট্রীয় সীমান্তে স্বাগত জানানো হয়েছিল, তখন তিনি দেশটির ভেতর কোনো অনুষ্ঠানাদির সঙ্গে জড়িত ছিলেন না। আমরা লোকজনের ঐক্যবদ্ধতাকে বেশি অগ্রাধিকার দিচ্ছি। আগুনে ঘি ঢালবেন না, কারণ এতে তা আরও বড় আকার ধারন করবে।

তিনি বলেন, আমরা নিজেদের ভেতরকার ঐক্যকে ঝুঁকিতে ফেলতে চাই না।

এর আগে পার্লিসে ১৬-১৮ আগস্ট মালয়েশিয়া রিভার্টস ক্যাম্প নামে নওমুসলিমদের একটি সম্মেলনে জাকির নায়েকের বক্তৃতা নিষেদ করে স্থানীয় পুলিশ। অনুষ্ঠানটি মালয়েশিয়ায় ধর্মান্তরিত মুসলিমদের সবচেয়ে বড় সমাবেশ হিসেবে পরিচিত। এতে জাকির নায়েক ও তার ছেলে ফারিক ভাষণ দেয়ার কথা ছিল।

পার্লিসের পুলিশ প্রধান নুর মুশার সংবাদ সম্মেলনে জানিয়েছিলেন, জাকির নায়েকের বিরুদ্ধে পুলিশের কাছে ১৫০টি অভিযোগ রয়েছে। তিনি পার্লিস আসতে পারবেন কিন্তু বক্তৃতা দিতে পারবেন না। যদি তিনি বক্তৃতা করেন তাহলে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেয়া হবে।

এদিকে রোববার কুয়ালালামপুর কনভেনশন সেন্টারে আয়োজিত ওই সংবাদ সম্মেলনে মালয়েশিয়ার প্রধানমন্ত্রী মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, ‘জাকির নায়েকের রাজনীতি থেকে তার দূরে থাকা উচিত। তিনি প্রচার করতে পারেন, তিনি ইসলামের প্রচার করতে পারেন এবং আমরা তাকে থামাতে যাচ্ছি না। কিন্তু তাকে অবশ্যই রাজনীতি নিয়ে কথা বলা বন্ধ করতে হবে। চীনা এবং ভারতীয়দের নিজ দেশে ফিরে যেতে বলাটা রাজনৈতিক। তিনি বর্ণবাদী মানসিকতা উসকে দিচ্ছেন কিনা পুলিশ তা তদন্ত করছে।’

জাকির নায়েকের উদ্দেশে মাহাথির মোহাম্মদ বলেন, আপনি যদি কোনো ধর্মীয় বিষয়ে কথা বলতে চান তবে আপনাকে স্বাগত। এতে আপনাকে অনুমতি দেব। আর কাউকে আমরা থামাবো না।কিন্তু তিনি (জাকির) মালয়েশিয়ার রাজনৈতিক বিষয়ে বক্তব্য দিচ্ছে। এটা খারাপ।

নাজিব রাজাকের বিগত সরকার জাকির নায়েককে স্থায়ী আবাসিকতার অনুমোদন দেয়। গত তিন বছর ধরে দেশটিতে বসবাস করছেন তিনি।

Loading...