‘উদাহরণ সৃষ্টির মতো শাস্তি হবে ডিসির’

৩:৫৭ অপরাহ্ণ | রবিবার, আগস্ট ২৫, ২০১৯ জাতীয়

সময়ের কণ্ঠস্বর, ঢাকা- সদ্য ওএসডি হওয়া জামালপুরের জেলা প্রশাসক (ডিসি) আহমেদ কবীরের অভিযোগ প্রমাণিত হলে উদাহরণ সৃষ্টির মতো শাস্তি হবে বলে জানিয়েছেন জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ফরহাদ হোসেন।

আজ রোববার সচিবালয়ে নিজ দফতরে সাংবাদিকদের সঙ্গে আলাপকালে প্রতিমন্ত্রী এ কথা জানান।

এক নারী অফিস সহকারীর সঙ্গে আপত্তিকর ভিডিও প্রকাশের পর রোববার বিশেষ ভারপ্রাপ্ত কর্মকর্তা (ওএসডি) করা হয় জামালপুরের ডিসি আহমেদ কবীরকে।

প্রতিমন্ত্রী বলেন, জামারপুরের ডিসি অনৈতিক কাজ করেছে। প্রাথমিক তদন্তের ভিত্তিতে তার বিরুদ্ধে ব্যবস্থা নেওয়া হযেছে। অধিকতর তদন্তের ভিত্তিতে পরবর্তীতে আইনানুগ ব্যবস্থা নেওয়া হবে।

তিনি বলেন, পাশাপাশি যে নারীর নাম এসেছে তাকেও তদন্তের আওতায় আনা হবে। এক্ষেত্রে মন্ত্রিপরিষদ বিভাগ থেকে তদন্ত কমিটি করে ব্যবস্থা নেওয়া হচ্ছে।

তার সর্বেোচ্চ কী শাস্তি হতে পারে এ বিষয়ে জানতে চাইলে প্রতিমন্ত্রী বলেন, অবশ্যই উদাহরণ সৃষ্টি করার মতো শাস্তি হবে। সরকারি চাকরির বিধান মতে তার শাস্তি হবে। আমরা আশা করি, দ্রুত সিদ্ধান্ত নিতে পারব।

তিনি বলেন, ‘একটি কমিটি করে সেই কমিটিকে দায়িত্ব দেয়া হবে। কমিটি ভালোভাবে তদন্ত করে, বুঝে, কী ঘটেছে সেখানে, কতটুকু অনৈতিকতা সেখানে হয়েছে, সবকিছু বিচার-বিশ্লেষণ করেই কিন্তু এক্সামপ্লিয়ারি আমরা একটা প্রিম্যাটিক মেজার্স নেব।’

গেল বৃহস্পতিবার মধ্যরাতে খন্দকার সোহেল আহমেদ নামের একটি ফেসবুক আইডি থেকে ৪ মিনিট ৫৭ সেকেন্ডের ভিডিও পোস্ট করা হয়। ভিডিওতে নিজ অফিস কক্ষে এক নারী কর্মচারীর সাথে আপত্তিকর অবস্থায় দেখা যায় ডিসি আহমেদ কবীরকে। শুক্রবার ভোরের মধ্যেই সেটি ভাইরাল হয়ে যায়। যদিও শুক্রবার সকাল আটটা থেকে ওই আইডিতে ভিডিওটি আর খুঁজে পাওয়া যায়নি। পরে সেটি ছড়াতে থাকে ফেসবুক ম্যাসেঞ্জারে।

দুপুরে জামালপুর সার্কিট হাউজে সংবাদ সম্মেলন ডেকে জেলা প্রশাসক দাবি করেন, যে পুরুষটিকে দেখা যাচ্ছে ভিডিওতে, সেটি তিনি নন। তবে এটি তার কার্যালয়ের ভেতরে স্থাপন করা শোয়ার কক্ষ যে, এটি তিনি স্বীকার করেন।

এ নিয়ে সংবাদ প্রকাশ না করার অনুরোধ করে ডিসি বলেন, ‘আমি মানসিকভাবে খুবই বিপর্যস্ত অবস্থায় আছি। আপনারা আমাকে একটু সময় দেবেন। প্রকৃত ঘটনা জানতে বিষয়টি খতিয়ে দেখা হচ্ছে। আপনারা ক্ষমাসুন্দর দৃষ্টিতে দেখবেন।’