শিশু খাদিজার ভাগ্যে কি তবে চিকিৎসা নেই?

৪:০০ অপরাহ্ণ | শনিবার, সেপ্টেম্বর ৭, ২০১৯ দেশের খবর, রাজশাহী

এম নজরুল ইসলাম দয়া, সময়ের কন্ঠস্বর, বগুড়া: ৮ মাসের শিশু খাদিজা। বাবা রিকশা চালক। শিশু খাদিজার চিকিৎসার প্রয়োজন হলেও নিরুপায় পরিবার। ওই পরিবারের নূন আনতে পান্তা ফুরায়, রিকশা চালকের শিশু কন্যা খাদিজার ভাগ্যে কি তবে চিকিৎসা নেই! আবেগে আপ্লুত হয়ে কথাগুলো বলছিলেন খাদিজার প্রতিবেশীরা।

সরেজমিনে গিয়ে জানা গেছে, বগুড়া সদর উপজেলার এরুলিয়া জিলাদার পাড়ার রিকশা চালক শুকুর আলীর স্ত্রী স্বপ্না বিবির কোল জুড়ে গত জানুয়ারি মাসে খাদিজা জন্ম নেয়।

জন্মের পর থেকে স্বাভাবিক ছিল খাদিজা। দু’মাস পর থেকেই পাল্টাতে শুরু করে চিত্র। দিন বাড়ার সাথে বাড়তে থাকে খাদিজার মাথার অংশ।

খাদিজার বাবা রিকশা চালক শুকুর আলী শিশু কন্যার সুচিকিৎসার সহায়তা চেয়ে সময়ের কন্ঠস্বরকে বলেন, আমার মেয়ে জন্মের পর সুস্থ ছিল। কিন্ত দু’মাস পর থেকেই মেয়ের মাথার অংশ দিন দিন বড় হতে থাকে। বগুড়ার অনেক ডাক্তারের কাছে গিয়েছিলাম।

কিন্ত ডাক্তাররা বলেছেন বাংলাদেশে নাকি আমার মেয়ের চিকিৎসা করানো সম্ভব না। আমার প্রতিবেশীরাও বলেছে (ভারতে) গেলে চিকিৎসা করানো সম্ভব হবে এবং সুস্থ হবে। চিকিৎসার জন্য প্রায় ৩ লক্ষ টাকার প্রয়োজন। আপনারা মিডিয়া এবং সাংবাদিক ভাইয়েরা আমার শিশু কন্যার মুখের দিকে একবার তাকান। সাহায্য করুন।

প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ও স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রীর সুদৃষ্টি কামনা করে শিশু খাদিজার পিতা বলেন, মাননীয় প্রধানমন্ত্রী আপনি একটু নজর দিলেই আমার শিশু কন্যার সুচিকিৎসা নিশ্চিত হবে। আপনি মানবতার ফেরিওয়ালা। স্বাস্থ্য মন্ত্রণালয়ের মন্ত্রী মহোদয়ের কাছে কি আমার আকুতি পৌঁছাবে?
আমি রিকশা চালক। আমার পরিবারে ‘নূন আনতে পান্তা ফুরায়’। তিন শতক ভিটেমাটি ছাড়া আর কিছুই নেই। শিশু কন্যা খাদিজার চিকিৎসার সামর্থ্য আমার নেই।

এদিকে শিশু খাদিজার চিকিৎসার জন্য সমাজের বিত্তবান এবং মানবসেবীদের আর্থিক সাহায্যের আবেদন করছেন রিকশা চালক পিতা।

০১৭৩৮-৩৩৭৬৬২ (বিকাশ, খাদিজার বাবা) এবং হিসাবের নাম: Md. Shukur Ali Ziladar. সোস্যাল ইসলামী ব্যাংক হিসাব নং: ৯৯০২১০০১৭৯০৫৬