সংবাদ শিরোনাম
শাকিব খানকে ১০ লাখ টাকা জরিমানা | র‌্যাবের ম্যাজিস্ট্রেট সারওয়ার আলমকে হাইকোর্টে হাজির হওয়ার নির্দেশ | লাইনে দাঁড়িয়ে টিসিবির পেঁয়াজ কিনলেন মেয়র আরিফ! | পেঁয়াজ কিনতে গিয়ে ধাক্কাধা‌ক্কি, পু‌লিশের ‘মিস ফায়ারে’ গু‌লি‌বিদ্ধ ২ | মাত্র ৭৫ হাজার টাকা হলে বাঁচতে পারে অসুস্থ সেহের বানু! | অস্ত্রোপচারের সময় পেটে গজ-ব্যান্ডেজ রেখে সেলাই, প্রসূতির মৃত্যু | মির্জাপুরে অর্ধগলিত অজ্ঞাত যুবকের লাশ উদ্ধার | শেরপুর সীমান্তে বিএসএফের গুলিতে বাংলাদেশি নিহত | বগুড়ার শেরপুরে মহাসড়কের ভূমি অধিগ্রহণে ন্যায্য ক্ষতিপূরণের দাবিতে মানববন্ধন | নতুন সড়ক আইনের প্রতিবাদে সাতক্ষীরার সকল রুটে বাস চলাচল বন্ধ |
  • আজ ৪ঠা অগ্রহায়ণ, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাকৃবিতে কৃষি প্রকৌশল অনুষদের শিক্ষার্থীদের মানববন্ধন

৫:০৬ অপরাহ্ণ | বুধবার, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯ শিক্ষাঙ্গন
BAU AET student human chain (1) (1)

হাবিবুর রনি, বাকৃবি প্রতিনিধি: বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিসে (বিসিএস) টেকনিক্যাল ক্যাডার চালুর দাবিতে বুধবার শিল্পাচার্য জয়নুল আবেদিন মিলনায়তনের সামনে মানববন্ধন করে বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ে (বাকৃবি) কৃষি প্রকৌশল ও প্রযুক্তি অনুষদের শিক্ষার্থীরা। দাবি আদায় না হওয়া পর্যন্ত ওই অনুষদের সকল ক্লাস পরীক্ষা বর্জনের ঘোষণা দেন তারা। মানববন্ধন চলাকালে অনুষদের প্রায় ৪ শতাধিক শিক্ষার্থীদের সাথে ওই অনুষদের শিক্ষকরাও এসে আন্দোলনে একাত্বতা ঘোষণা করেন।

ইমরান সিদ্দিক পান্তর সঞ্চালনায় মানবন্ধনে উপস্থিত ছিলেন অনুষদীয় ডিন অধ্যাপক ড. মো. নুরুল হক, ফার্ম স্ট্রাকচার এন্ড এনভায়রনমেন্টাল ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগের প্রধান ড. মো. রায়হানুল ইসলাম, কৃষি শক্তি ও যন্ত্র বিভাগের অধ্যাপক ড. মো. মঞ্জরুল আলম প্রমুখ।

মানববন্ধনে বক্তারা অবিলম্বে বিশ্ববিদ্যালয়ের অনান্য অনুষদের ন্যায় বিসিএসে টেকনিক্যাল ক্যাডার চালু করার জোর দাবি জানান। বক্তারা আরও বলেন, কৃষি প্রকৌশলীদের চাকরির ক্ষেত্র দিন দিন কমে যাচ্ছে। বাংলাদেশ কৃষি উন্নয়ন করপোরেশন (বিএডিসি), বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বারি), বাংলাদেশ পরমাণু কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠান (বিনা), কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর (ডিএই), বাংলাদেশ ধান গবেষণা প্রতিষ্ঠান (ব্রি) প্রভৃতি সরকারি প্রতিষ্ঠানে খুবই সীমিত সংখ্যক নিয়োগ দেওয়া হচ্ছে। আবার বিসিএসে কৃষি ও খাদ্য প্রকৌশলীদের জন্য টেকনিক্যাল ক্যাডার না থকায় প্রকৌশলীরা কৃষকের দাড়গোড়ায় গিয়ে সেবা দিতে পারছে না। ফলে সন্তোষজনক ক্ষেত্র না পেয়ে অন্য পেশায় ঝুঁকে পড়ছে কৃষি ও খাদ্য প্রকৌশলীরা। এতে কৃষি ও খাদ্য প্রকৌশলীদের অর্জিত জ্ঞানের যথাযথ প্রয়োগ হচ্ছে না অর্থাৎ সরকারের শিক্ষা ক্ষেত্রে সম্পূর্ণ বিনিয়োগ বৃথা যাচ্ছে। যান্ত্রিকীরণের যুগে বিপুল জনসংখ্যার বিপরীতে আবাদযোগ্য জমির পরিমাণ খুবই কম। অল্প জমিতে অধিক ফসল উৎপাদনের জন্য কৃষকদের প্রযুক্তি নির্ভর হওয়া প্রয়োজন। কিন্তু পেশাগত ক্ষেত্রে কৃষি প্রকৌশলীদের কাজের সুযোগ না থাকায় দেশের কৃষিতে প্রযুক্তির ছোয়া লাগছে না বলেও মানববন্ধনে অভিযোগ করেন তারা।

Loading...