সংবাদ শিরোনাম
ইবির ৮ শিক্ষার্থীর গলায় প্রধানমন্ত্রীর স্বর্ণপদক | যশোর ছাত্রাবাস থেকে অস্ত্র-গুলি- মাদকসহ গ্রেফতার-৩ | মণিরামপুরে আম বাগানের গাছ কাটলো দৃর্বৃত্তরা | বেলকুচিতে বিশেষ চাহিদা সম্পন্ন শিশুদের মাঝে শিক্ষা উপকরণ ও হুইল চেয়ার বিতরণ | জাতির জনকের সমাধিতে উপজেলা আওয়ামী লীগের নব-নির্বাচিত সভাপতির শ্রদ্ধা নিবেদন | টাঙ্গাইল বিআরটিএর ছয় দালাল আটক, তিনজন কারাগারে | নওয়াপাড়ায় মাদ্রাসা শিক্ষকের হাতে শিশু শিক্ষার্থীর শ্লীলতাহানীর অভিযোগ | ঢাকায় কম্বোডিয়ার প্রয়াত রাজার নামে সড়ক | ‘সরকার অনেক সহ্য করেছে আর না, আরও কড়া পদক্ষেপ নেওয়া উচিত’ | বাংলাদেশ বিশ্বের সবচেয়ে দূষিত বায়ুর দেশ: প্রতিবেদন |
  • আজ ১৩ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

সুস্থ থাকতে হাঁটা কতটা জরুরি?

৯:২০ অপরাহ্ণ | বুধবার, সেপ্টেম্বর ১১, ২০১৯ লাইফস্টাইল

লাইফস্টাইল ডেস্ক- নানা কারণে আজকাল নিয়মিত ব্যায়াম করা সবার পক্ষে সম্ভব হয় না। কিন্তু সুস্থ থাকতে কিছুটা হলেও শারীরিক পরিশ্রম করা জরুরি। বিশেষজ্ঞদের মতে, হাঁটা এমন একটা উপায়, যার মাধ্যমে কষ্টসাধ্য পরিশ্রম ছাড়াও সহজেই সুস্থ থাকা যায়।

তবে কোন সময়ে হাঁটা শরীরের জন্য উপকারী তা নিয়ে অনেকেই দ্বিধায় থাকেন। চিকিৎসকদের মতে, যেকোনো সময়েই হাঁটা যেতে পারে। ২৪ ঘণ্টার মধ্যে যখনই সময় পাবেন তখনই হাঁটতে পারেন। তারপরও হাঁটার জন্য সূর্যাস্তের আগের সময় অর্থাৎ বিকালকে সবচেয়ে উপযোগী বলছেন বিশেষজ্ঞরা।

অনেকেই ঘুম থেকে উঠেই সকালে হাঁটতে বের হন। বিশেষজ্ঞদের মতে, ঘুম থেকে উঠেই হাঁটতে যাওয়া ঠিক না। ঘুম থেকে ওঠার কমপক্ষে ৩০ মিনিট পর হাঁটতে বের হওয়া উচিত।

তাদের মতে, শরীর সুস্থ রাখতে প্রতিদিন কমপক্ষে ৩০ মিনিট হাঁটা উচিত। তবে প্রতিদিন না-ও হাঁটলেও চলে। পাঁচ দিন ৩০ মিনিট করে ১৫০ মিনিট হাঁটলেও সুস্থ থাকা যায়। তাদের ভাষায়, একজন মানুষের সপ্তাহে ১৫০ মিনিট হাঁটা জরুরি।

শারীরিক অবস্থা ভালো থাকলে আরও বেশি সময় ধরে হাঁটা যেতে পারে। তবে কখনোই ৩০ মিনিটের কম হাঁটা উচিত নয়। বিশেষজ্ঞরা বলছেন, একবারে ৩০ মিনিট হাঁটার শারীরিক ক্ষমতা না থাকলে তিনবার ১০ মিনিট করে ৩০ মিনিট হাঁটতে পারেন। অথবা একবার ২০ মিনিট, অন্যবার ১০ মিনিট করে মোট ৩০ মিনিট হাঁটা যেতে পারে।

হাঁটলে নানা ধরনের শারীরিক উপকার পাওয়া যায়। যেমন-

১। ভালো ঘুম হয়।

২। হাড় ও পেশি মজবুত হয়।

৩.। ১৫ মিনিট হাঁটলে ৫৬ ক্যালোরি শক্তি খরচ হয়, ওজন কমে।

৪। সৃজনশীল চিন্তা করতে সাহায্য করে।

৫। মানসিক চাপ, উদ্বেগ, ও টেনশন দূর হয়।

৬। রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বাড়ে।

৭। ধমনির চাপ কমিয়ে হৃদরোগ প্রতিরোধ করা যায়।

Loading...