সংবাদ শিরোনাম
খোলা মাঠে প্রকাশ্যে বৃদ্ধকে উলঙ্গ করে নির্যাতনের ভিডিও ভাইরাল | ঝিনাইদহে পাট ক্ষেতে নিয়ে ৮ বছরের শিশুকে বৃদ্ধের ‘ধর্ষণ চেষ্টা’ | হাসপাতাল থেকে রোগী ফেরানো শাস্তিযোগ্য অপরাধ: তথ্যমন্ত্রী | নান্দাইলে বিটিভি’র শিল্পী টাপ্পিসহ আরো ৪ জন করোনায় আক্রান্ত | সরকার গণপরিবহন সিন্ডিকেটের কাছেই আত্মসমর্পণ করেছে: রিজভী | সব বাধা অতিক্রম করে দেশ এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী | করোনা চিকিৎসায় গেম চেঞ্জার ওষুধের অনুমোদন দিলো রাশিয়া | ঢাকা-টাঙ্গাইল মহাসড়কে স্বাস্থ্যবিধি না মেনেই চলছে গণপরিবহন | ‘১৫ জুনের মধ্যে হজের বিষয়ে সিদ্ধান্ত আসতে পারে’- ধর্ম প্রতিমন্ত্রী | করোনায় প্রথমবারের মতো এক রোহিঙ্গার মৃত্যু |
  • আজ ১৯শে জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৭ বঙ্গাব্দ

‘মেসি আমাকে সেরা কোচ বানিয়েছে’- মরিনহো

৪:০৫ অপরাহ্ণ | শনিবার, সেপ্টেম্বর ১৪, ২০১৯ খেলা
messi

স্পোর্টস আপডেট ডেস্কঃ রিয়াল মাদ্রিদের কোচ থাকাকালীন নিয়মিতই মেসিকে প্রতিপক্ষ হিসেবে পেতেন মরিনহো। অন্য ক্লাবের হয়েও চ্যাম্পিয়নস লিগে মেসির মুখোমুখি হতে হয়েছে তাকে। বহুবার লিওনেল মেসিকে থামানোর ছক কষতে হয়েছে হোসে মরিনহোকে। আর এটাই তাকে সেরা কোচ বানাতে সহায়তা করেছে বলে জানালেন মরিনহো।

মরিনহো বলেন, ‘আমি আগেও বলেছি আমি খেলোয়াড়দের কাছে কৃতজ্ঞ এবং যারা আমার খেলোয়াড় ছিল না তাদের কাছেও। এমনকি যারা আমার জন্য সমস্যা তৈরি করেছিল তাদের কাছেও।’

মেসির প্রসঙ্গে পর্তুগিজ কোচ বলেন, ‘উদাহরণস্বরূপ, মেসি আমার দলের জন্য কখনোই খেলেনি, কিন্তু সে আমার বিপক্ষে খেলেছে এবং সে আমাকে আরও ভালো কোচ বানিয়েছে। কারণ তাকে থামানোর জন্য আমাকে অনেক প্রস্তুতি নিতে হয়েছে। শুধু মেসি কেন, আরও যেসব বিখ্যাত খেলোয়াড়দের মুখোমুখি হয়েছি আমি তাদের কথাও বোঝাতে চেয়েছি।’

মরিনহো বলেন, ‘সেখানে (রিয়ালে) আমার তিনটি ভালো বছর কেটেছে। অবশ্যই ওই সময়টা কঠিন আর সমস্যাসঙ্কুল ছিল, কিন্তু এটাই পেশাদারী জীবন। ‘এটা মোটেই সহজ ছিল না। সেখানে আমার দারুণ কিছু স্মৃতি আছে। আমি যখন ছিলাম তখন রিয়ালের জন্য কঠিন সময় অতিবাহিত হচ্ছে। এটা সেই সময় যখন বার্সেলোনা প্রাধান্য বিস্তার করেছিল।’

রিয়াল অধ্যায় নিয়ে কথা বলতে গেলে স্বাভাবিকভাবেই চলে আসে ক্রিস্টিয়ানো রোনালদোর নাম। ২০১০ থেকে ২০১৩ সাল পর্যন্ত পর্তুগিজ উইঙ্গারের সঙ্গে কাজ করেছেন মরিনহো। তাদের সম্পর্কও ছিল দারুণ। যদিও শেষটা মধুর হয়নি।

সাবেক শিষ্যকে নিয়ে মন্তব্য করতে গিয়ে মরিনহো বলেন, ‘রোনালদো একজন ফেনোমেনন। সে এমন একজন যে শুধুই জিততে আর খেলায় উন্নতি করায় মনোযোগী। সে যা করছে তা আমাকে মোটেই অবাক করে না। ৩৪ বছর বয়সেও সে শীর্ষ দলের শীর্ষ খেলোয়াড়। সে এক কেস স্টাডি, শারীরিক ও মানসিক দু’ভাবেই।’

আরও অনেক বছর খেলা চালিয়ে যাওয়ার কথা প্রায়ই বলেন রোনালদো। সাবেক ম্যানচেস্টার ইউনাইটেড কোচ নিজেও এমনটাই মনে করেন, ‘আমি মনে করেই রোনালদোর বয়স যখন ৫০ হবে, সে ঘরেই থাকবে আর ফিফা তাকে কিংবদন্তিদের খেলায় অংশ নিতে আমন্ত্রণ জানাবে। সে ওই ম্যাচে খেলবে এবং গোলও করবে। এটা সবসময়ই এমনই থাকবে।’