• আজ ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

পদ হারানো রাব্বানীকে নিয়ে যা বললেন ভিপি নুর

৫:১১ অপরাহ্ণ | রবিবার, সেপ্টেম্বর ১৫, ২০১৯ আলোচিত বাংলাদেশ
NUR

সময়ের কণ্ঠস্বর ডেস্কঃ বিভিন্ন অভিযোগের পর পদ হারিয়েছেন ছাত্রলীগের কেন্দ্রীয় কমিটির শীর্ষ দুই নেতা রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী। শনিবার সন্ধ্যায় আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে এ সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়।

ছাত্রলীগের সদ্য সাবেক সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানী ডাকসুরও জিএস। দুর্নীতির অভিযোগে ছাত্রলীগ থেকে পদচ্যুত করার পর রাব্বানী ডাকসুর পদে থাকতে পারেন কিনা তা নিয়ে প্রশ্ন উঠেছে।এ বিষয়ে ডাকসু ভিপি নুরুল হক নুর বলেন, আসলে যেহেতু তার বিরুদ্ধে অনেক অভিযোগ উঠেছে, অভিযোগ প্রমাণিত হওয়ার ছাত্রলীগের পদও তিনি হারিয়েছে, সেহেতু আমি মনে করি নৈতিকভাবে তার আর এ পদে থাকার অধিকার নেই।

তিনি আরও বলেন, আশা করছি রাব্বানী পদত্যাগ করবেন। তবে সে পদত্যাগ না করলে ডাকসু সভাপতি হিসেবে ঢাবি ভিসির উচিৎ তাকে পদচ্যুত করার উদ্যোগ নেওয়া। নুর আরও বলেন, ছাত্রলীগের মতো ঐতিহ্যবাহী একটি সংগঠন থেকে যাকে পদচ্যুত করা হয়েছে তার ডাকসু জিএস থাকা কোনোভাবেই উচিৎ। এটির সঙ্গে ডাকসুর মান সম্মানও জড়িত।

উল্লেখ্য বিরোধী মতাদর্শীদের অর্থের বিনিময়ে সংগঠনে অনুপ্রবেশ ঘটানো, স্বেচ্ছাচারিতা, ত্যাগী নেতাদের অবমূল্যায়ন, দুপুর পর্যন্ত ঘুমানো, আওয়ামী লীগের সিনিয়র নেতাদের অগ্রাহ্য করা, মাদক সেবন, টেন্ডার ও তদবির বাণিজ্যসহ অসংখ্য অভিযোগে ছাত্রলীগের সভাপতি রেজওয়ানুল হক চৌধুরী শোভন ও সাধারণ সম্পাদক গোলাম রাব্বানীর ওপর ক্ষুব্ধ ছিলেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা। গত শনিবার দলের সভাপতিমণ্ডলীর সভায় তিনি কমিটির র্শীষ দুই পদে নতুন নেতৃত্ব আনার আভাস দেন। এরপরই একের পর এক দুর্নীতির তথ্য বেরিয়ে আসে শোভন-রাব্বানীর বিরুদ্ধে।

আজ আওয়ামী লীগের কার্যনির্বাহী সংসদের বৈঠকে অবশেষে শোভন-রাব্বানীকে পদ থেকে সরিয়ে দেওয়ার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়। তাদের বদলে ছাত্রলীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি হয় আল নাহিয়ান খান। অন্যদিকে ভারপ্রাপ্ত সাধারণ সম্পাদকের দায়িত্ব পান লেখক ভট্টাচার্য।