• আজ ৩রা কার্তিক, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ

বাকৃবিতে জিটিআইয়ে কর্মকর্তাদের বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপনী

৫:০৪ অপরাহ্ণ | মঙ্গলবার, সেপ্টেম্বর ১৭, ২০১৯ শিক্ষাঙ্গন
BAU

হাবিবুর রনি, বাকৃবি প্রতিনিধিঃ বাংলাদেশ কৃষি বিশ্ববিদ্যালয়ের (বাকৃবি) গ্রাজুয়েট ট্রেনিং ইনস্টিটিউট (জিটিআই) কর্তৃক আয়োজিত দেশের বিভিন্ন পাবলিক বিশ্ববিদ্যালয় কর্মকর্তাদের ১৬ ও ১৭তম বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কর্মশালার সমাপনী অনুষ্ঠিত হয়েছে। মঙ্গলবার দুপুর ১২ টায় বিশ্ববিদ্যালয় জিটিআইয়ের প্রশিক্ষণ কেন্দ্রে ওই অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়। এসময় প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত কর্মকর্তাদের মাঝে সনদ প্রদান করেন বিশ্ববিদ্যালয় মঞ্জুরী কমিশনের (ইউজিসি) সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলমগীর।

১৬ ও ১৭তম বুনিয়াদি প্রশিক্ষণ কর্মশালায় দেশের ২০টি পাবলিক বিশ^বিদ্যালয় থেকে মোট ৫০জন কর্মকর্তা অংশ নেয়। ২৫ দিন ব্যাপি ওই কর্মশালায় ১৬তম ব্যাচের কোর্স কো-অর্ডিনেটর ছিলেন জিটিআই অধ্যাপক ড. এম. নজরুল ইসলাম এবং ১৭ তম ব্যাচের কোর্স কো-অর্ডিনেটর ছিলেন অধ্যাপক ড. মাছুমা হাবিব।

জিটিআইয়ের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক অধ্যাপক ড. এম. মোজাহার আলীর সভাপতিত্বে সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইউজিসির সদস্য অধ্যাপক ড. মোহাম্মদ আলমগীর। এছাড়াও অনুষ্ঠানে প্রধান পৃষ্ঠপোষক হিসেবে উপস্থিত ছিলেন বাকৃবি উপাচার্য অধ্যাপক ড. লুৎফুল হাসান। বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ডিন কাউন্সিলের আহবায়ক অধ্যাপক ড. গিয়াস উদ্দিন আহমদ।

এসময় বাকৃবি উপাচার্য বলেন, প্রশিক্ষণের মাধ্যমে একজন মানুষের জ্ঞান, দক্ষতা, প্রজ্ঞা ও বুদ্ধিমত্তা বৃদ্ধি পায়। আর বাংলাদেশকে এগিয়ে নিতে হলে এই প্রশিক্ষণের বিকল্প নেই। একজন প্রশিক্ষণপ্রাপ্ত মানুষই পারে সমৃদ্ধ বাংলাদেশ বিনির্মাণের অংশীদার হতে। প্রশিক্ষণ থেকে পর্যাপ্ত জ্ঞান অর্জন করে প্রতিটি প্রশিক্ষণার্থীকে জাতির জনক বঙ্গবন্ধুর স্বপ্নের সোনার বাংলা গড়তে কাজ করে যেতে হবে। সেই সাথে দেশ থেকে সন্ত্রাস, জঙ্গিবাদ, দুর্নীতি ও মাদক দূর করতে বাংলাদেশ সরকারের সাথে কাজ করে যেতে হবে। এসময় উচ্চ শিক্ষা অর্জনের জন্য বাকৃবি ক্যাম্পাসে ‘ন্যাশনাল ট্রেনিং একাডেমি’ প্রতিষ্ঠার দাবি তোলেন তিনি।

সভাপতির বক্তব্যে জিটিআইয়ের ভারপ্রাপ্ত পরিচালক অধ্যাপক ড. এম. মোজাহার আলী বলেন, আন্তর্জাতিক মানসম্পন্ন প্রশিক্ষণ প্রদানের জন্য ন্যাশনাল ট্রেনিং একাডেমি প্রতিষ্ঠা করা এখন সময়ের দাবি। বাকৃবিতে এমন ট্রেনিং একাডেমি প্রতিষ্ঠা করার জন্য মনোরম পরিবেশ এবং আন্তর্জতিক মান সম্পন্ন প্রশিক্ষক রয়েছে।